সুফিকোষ

নবী

‘নবী’ শব্দটি আরবি, একবচন; অর্থ হলো সংবাদদাতা। মূল ‘নাবা’ ধাতু থেকে নির্গত, যার অর্থ সংবাদ, খবর, বার্তা; উচ্চ মর্যাদসম্পন্ন ও উন্নত মর্যাদাবান ইত্যাদি। ‘নবূওয়াত’ শব্দের অর্থ- গোপন সংবাদ বা বার্তা বহন করা। নবী শব্দের বহুবচন হলো ‘নাবিয়্যূনা, নাবিয়্যীনা’ ও ‘আম্বিয়া’; অর্থ- নবীগণ। 
আল্লাহ তাআলার নিআমতপ্রাপ্ত বান্দাদের চার শ্রেণি (নাবিয়্যীন, সিদ্দীকীন, শুহাদা, সলিহীন) এর প্রথম প্রকার হলেন ‘নাবিয়্যীন’ বা নবীগণ। কোরআন মাজীদে এসেছে : “আর যারা আল্লাহ ও রাসুল (সা.) এর আনুগত্য করবে, তারা নবিয়্যীন, সিদ্দীকীন, শুহাদা ও সলিহীনগণের সঙ্গে যাদের প্রতি আল্লাহ অনুগ্রহ করেছেন তাদের সঙ্গী হবে এবং তারা কতইনা উত্তম সঙ্গী হিসেবে!” (সূরা নিসা : ৬৯)। 
নবীগণের তিনটি গুণ বা বৈশিষ্ট্য : (এক) মাছূম বা নিষ্পাপ, অর্থাৎ তারা জীবনে নবুওয়াত প্রকাশের আগে বা পরে সবসময় সব ধরনের কবীরা বা ছগীরা গোনাহ থেকে মুক্ত ও পবিত্র। (দুই) মুন্তাখাব মিনাল্লাহ, অর্থাৎ আল্লাহর পক্ষ থেকে নির্বাচিত। (তিন) ছাহিবুশ শারীআ অর্থাৎ শরীআতের বিধান দাতা। 
পরিভাষায় নবী হলেন ‘আল্লাহ তাআলার বিধি-বিধান সৃষ্টির নিকট পৌঁছানোর লক্ষ্যে আল্লাহ কর্তৃক মনোনীত ও প্রেরিত ব্যক্তি।’ পবিত্র কোরআনে নবী শব্দ একবচনে ৫৪ বার এবং বহুবচনে ২১ বার এসেছে। নবী ও রাসূল উভয় শব্দ পবিত্র কোরআনে প্রায় অভিন্ন অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে; তবে উভয়ের মধ্যে কিছু পার্থক্য রয়েছে। নবী-রাসূলের পার্থক্য মূলত দাওয়াতের ক্ষেত্রে, নবীগণের দাওয়াত ছিল সীমিত পরিসরে আর রাসূলগণের দাওয়াত ছিল সর্বজনীন। নবী একজন মানুষ, আল্লাহ তার প্রতি ওয়াহী নাযিল করেছেন; আর রাসূলও একজন মানুষ আল্লাহ তার নিকট শরীআতের বিধান নাযিল করার পাশাপাশি তা প্রচার ও প্রতিষ্ঠা করার জন্য প্রাণপণ চেষ্টা করার দায়িত্বও তার ওপর অর্পণ করেছেন। সব রাসূলই নবী, সব নবী রাসূল নন। (মাআরিবুত তলাবা, আল ইতকান)। 
তরীকতের পরিভাষায় ‘নবী’ হলেন মারিফাত ও তাসাউফের সালিকীনদের সাতাশ বা ঊনত্রিশ স্তরের একটি স্তর এবং মাজমুআয়ে উছমানীতে বর্ণিত ইনছানের বিয়াল্লিশ পর্বের তেত্রিশতম পর্ব। 

 অধ্যক্ষ মুফতি মাওলানা শাঈখ মুহাম্মাদ উছমান গনী 


দাজ্জালের ফেতনা থেকে সাবধান
নবী (সা.) তাঁর উম্মতকে ফেতনা থেকে কঠিনভাবে সতর্ক করেছেন। এ
বিস্তারিত
সন্ত্রাসবাদের কোনো ধর্ম নেই
শ্রীলঙ্কায় নিরাপরাধ মানুষের ওপর নির্বিচার সন্ত্রাসী হামলায় সারাবিশ্বের বিবেকবান মানুষের
বিস্তারিত
আলোর পরশ
কোরআনের বাণী আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘যে বিষয়ে তোমার কোনো জ্ঞান নেই,
বিস্তারিত
দ্বিতীয় কাতার কোথা থেকে শুরু
প্রশ্ন : নামাজের প্রথম কাতার পূর্ণ হয়ে গেলে দ্বিতীয় কাতার
বিস্তারিত
ন তু ন প্র
বইয়ের নাম : রামাদান উদযাপন রচয়িতা : ড. মাওলানা আবু সালেহ
বিস্তারিত
জীবন পাথেয়
আপনি বিপদে পড়ে সর্বশেষ কবে আল্লাহর কাছে ধরনা দিয়েছেন? আল্লাহর
বিস্তারিত