একুশ তুমি

একুশ তুমি মাতাল হাওয়া, বসন্ত ফাগুন;

বাংলা মায়ের অশ্রু ঝরা বুকেরই আগুন।

একুশ তুমি গা জড়ানো দখিনা হাওয়া,
আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো এ গান গাওয়া,
একুশ তুমি রাঙা পলাশ কৃষ্ণচূড়া, শিমুল;
কুসুম-তোড়া, পাপড়ি-ঝরা স্মৃতিসৌধের কোল।

একুশ তুমি মৌমাছি আর প্রজাপতির নাচ,
শহীদ ভাইয়ের বাঁধানো ছবি, ফ্রেম; স্বচ্ছ কাচ।

একুশ তুমি নতুন কুঁড়ি নতুন কচি পাতা,
শহীদ ভাইয়ের রক্তে রাঙা ইতিহাসের খাতা,
একুশ তুমি আমের ডালে মুকুল ফোটা শাখা,
ভাষা যুদ্ধের লাল রক্তে একুশ তুমি আঁকা।

একুশ তুমি কোয়েলের গান দূরের সবুজ বনে,
সালাম, জব্বার, রফিক, বরকত করিয়ে দাও মনে,
একুশ তুমি লাল শিমুলের তৃষিত পাখির ঝাঁক,
রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই, আন্দোলনের ডাক।


মায়ের ভালোবাসা
সাবধানে মুখ খোলার চেষ্টা করবি। কিন্তু কী হলো হঠাৎ করে
বিস্তারিত
সহানুভূতি মামুন অপু
দূর আকাশে আলোর নায়ে চড়ব ফাগুন রাতে আম্মু তখন বলবে
বিস্তারিত
বড় হতে হলে বই পড়াটা
আলোকিত মানুষ গড়ার কারিগর বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু
বিস্তারিত
আমি সেরা
বাবা আমায় কাছে ডেকে বললেন,‘মা রে, শোনো’ বড়াই করে মিছেমিছি লাভ কি আছে
বিস্তারিত
কালবৈশাখী
বৈশাখ এলো বৈশাখ এলো এল নতুন ডাক কষ্ট ব্যথা কালবৈশাখী উড়িয়ে নিয়ে যাক। কালবৈশাখীর
বিস্তারিত
শিশু বাথাইন্নাদের অন্যরকম জীবন
চারপাশে নদী। মাঝখানে জেগে ওঠা বিশাল চর। এর নাম-দমারচর। বঙ্গোপসাগরের
বিস্তারিত