নিউজিল্যান্ডে গুলিতে নিহত সামাদের বাড়িতে চলছে মাতম

মরদেহ ফেরত চান স্বজনরা

নিউজিল্যান্ড ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হয়েছেন বাংলাদেশের নাগরিক প্রফেসর ড. আব্দুস সামাদ। তার বাড়ি কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী পৌরসভার মধুর হাইল্যা গ্রামে।

প্রফেসর সামাদের মৃত্যুর খবর গ্রামের বাড়িতে পৌঁছালে পরিবারের সদস্যদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। জেলার নাগেশ্বরী উপজেলা থেকে মাত্র ৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত নিহতের বাড়িতে এখন শোকার্ত জনতার ভিড়।

ড. আব্দুস সামাদ বিগত ২০১৩ সাল থেকে সপরিবারে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ শহরের এ্যাগলি পার্কে বসবাস করে আসছিলেন। তিনি নিউজিল্যান্ডের লিংকন ইউনিভার্সিটির শিক্ষক ছিলেন। এছাড়া তিনি ডিন্স অ্যাভিনিউয়ের আল নূর মসজিদের মুয়াজ্জিনের দায়িত্ব পালন করতেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ৩ পুত্রসন্তানের জনক। তার স্ত্রীর নাম কিশোয়ারা বেগম। তারেক রহমান ও তানভীর হাসান নামে তার দুই ছেলে নিউজিল্যান্ডে বসবাস করে।

এছাড়া বড় ছেলে তোহা মাহমুদ ঢাকায় একটি বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত। ড. আব্দুস সামাদ পাঁচ ভাইয়ের মধ্যে তৃতীয়। তার বড় ভাই আসাদ মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হয়েছেন। অন্য দুই ভাই গ্রামের বাড়িতে থকেন।

তার ছোট ভাই হাফেজ হাবিবুর রহমান জানান, তারা এই হত্যাকাণ্ডে অত্যন্ত মর্মাহত। তারা চান দ্রুত এ হত্যাকাণ্ডের বিচার হোক এবং ড. সামাদের মরদেহ অবিলম্বে বাংলাদেশে এনে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হোক।

এদিকে ড. সামাদসহ মুসল্লিদের হত্যার প্রতিবাদে শুক্রবার বাদ আসর নাগেশ্বরী বাজারে ইসলামী আন্দোলনের উদ্যোগে একটি মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। 


প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ স্ট্যাটাস, তরুণের
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে ফেসবুকে কুরুচিপূর্ণ স্ট্যাটাস দেওয়ার অভিযোগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার
বিস্তারিত
আমতলী চা বাগানে সংক্রমণ প্রতিরোধে
সাজানো আমতলী চা বাগানটি হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার পাহাড়ি এলাকার প্রায়
বিস্তারিত
শ্রীপুরে খাবার সংকটে বরমীর সহস্রাধিক
শ্রীপুর উপজেলার বন্দরনগরী হিসেবে পরিচিত বরমী বাজারের প্রধান ঐতিহ্য বানর।
বিস্তারিত
ঈশ্বরদী ডাক্তারসহ আরো ৬ জন
ঈশ্বরদীতে গত ২৪ ঘণ্টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডাঃ উম্মে
বিস্তারিত
ঢাকায় নেওয়া হচ্ছে করোনায় আক্রান্ত
করোনাভাইরাসে আক্রান্ত পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিংকে উন্নত
বিস্তারিত
যে ৩ বিভাগ পুরো লকডাউন!
করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে এলাকাভিত্তিক লকডাউনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। আক্রান্তের সংখ্যার
বিস্তারিত