সুফিকোষ

মুস্তফা

‘মুস্তফা’ অর্থ নির্বাচিত, মনোনীত, বিশিষ্ট ও বাছাইকৃত। বাংলায় মোস্তফা লিখতে দেখা যায় এবং উচ্চারণে মস্তফা বলতেও শোনা যায়। এটি ‘মুজতাবা’ শব্দের সমার্থক। সাধারণত নবীজি (সা.) এর মুহাম্মাদ নামের সঙ্গে গুণবাচক হিসেবে ‘মুহাম্মাদ মুস্তফা’ (সা.) জোড়া শব্দরূপে ব্যবহার হয়। যেমনÑ আহমাদ নামের সঙ্গে গুণবাচক হিসেবে ‘আহমাদ মুজতাবা’ (সা.) জোড়া শব্দরূপে ব্যবহৃত হয়। 
এর উৎস হলো ‘সফা’ অর্থ পরিষ্কার, পরিচ্ছন্ন, বিশুদ্ধ, খাঁটি, নির্ভেজাল; উত্তম, বাছাইকৃত, সারবস্তু, উৎসবস্তু, নির্মল ও মেঘমুক্ত আকাশ, শ্রেষ্ঠ সম্পদ, রাজকীয় সম্পদ, একান্ত, আপন করে নেওয়া, বিশেষায়িত, গৃহীত, ঘনিষ্ঠ, বন্ধু; অধিক দুগ্ধদায়িনী প্রাণী, অধিক ফলনশীল বৃক্ষ, প্রশস্ত, কঠিন শিলা, মক্কার পবিত্র পাহাড়, হারামের পূতঃস্থান; পরীক্ষিত, সামগ্রিক, ঝর্ণা ইত্যাদি। মূল ধাতু হলো ‘সফওয়াতুন’ এবং ক্রিয়া মূল হলো ‘আল ইস্তফাউ’। নবীজি (সা.) হলেন, সফওয়াতুল্লাহি মিন খলকিহি অর্থাৎ আল্লাহর সৃষ্টির মধ্য থেকে আল্লাহর বাছাইকৃত। নবীরা হলেন মুস্তফাঊন ও মুস্তফাঈন। যেমনÑ হজরত আদম (আ.) এর উপাধী হলো সফিউল্লাহ। (লিসানুল আরব, ইবনে মানযুর রহ., খ- : ৭, অধ্যায় : সদ মুহমালাহ, পৃষ্ঠা : ৩৭০-৩৭২)। 
কোরআন কারিমে এ শব্দটি বিভিন্নভাবে অষ্টাদশবার রয়েছে। যেমনÑ ‘পৃথিবীতে আমি তাকে (ইবরাহিম আ. কে) মনোনীত করেছি, আর আখেরাতেও সে অবশ্যই সৎকর্মপরায়ণদের অন্যতম।’ (সূরা-২ বাকারা : ১৩০)। ‘নিশ্চয়ই সাফা ও মারওয়া আল্লাহর নিদর্শনগুলোর অন্তর্ভুক্ত।’ (সূরা-২ বাকারা : ১৫৮)। ‘নবী (দাঊদ আ.) বললেন, আল্লাহ অবশ্যই তাকে (তালূতকে) তোমাদের জন্য মনোনীত করেছেন এবং তিনি তাকে জ্ঞানে ও দেহে সমৃদ্ধ করেছেন। আল্লাহ যাকে ইচ্ছা স্বীয় রাজত্ব দান করেন। আল্লাহ প্রাচুর্যময়, প্রজ্ঞাময়।’ (সূরা-২ বাকারা : ২৪৭)। ‘নিশ্চয়ই আল্লাহ আদম (আ.) কে, নূহ (আ.) কে ও ইবরাহিম (আ.) এর বংশধর এবং ইমরানের বংশধরকে বিশ্বজগতে মনোনীত করেছেন।’ (সূরা-৩ আলে ইমরান : ৩৩)। ‘স্মরণ করো, যখন ফেরেশতারা বলেছিল, হে মারিয়াম! আল্লাহ তোমাকে মনোনীত ও পবিত্র করেছেন এবং বিশ্বের নারীদের ওপর তোমাকে মনোনীত করেছেন।’ (সূরা-৩ আলে ইমরান : ৪২)। ‘তিনি (আল্লাহ) বললেন, হে মুসা! (আ.) আমি তোমাকে আমার রিসালাত ও বাক্যালাপ দ্বারা মানুষের মধ্যে শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছি, সুতরাং আমি যা দিলাম তা গ্রহণ করো এবং কৃতজ্ঞ হও।’ (সূরা-৭ আরাফ : ১৪৪)। ‘আল্লাহ ফেরেশতাদের মধ্য থেকে ও মানুষের মধ্য থেকে বাণীবাহক মনোনীত করেন; আল্লাহ সর্বশ্রোতা, সম্যকদ্রষ্টা।’ (সূরা-২২ হজ্জ : ৭৫)। ‘বল, সব প্রশংসা আল্লাহরই এবং শান্তি তাঁর মনোনীত বান্দাদের প্রতি।’ (সূরা-২৭ নামল : ৫৯)। ‘অতঃপর আমি (আল্লাহ) কিতাবের অধিকারী করলাম, আমার বান্দাদের মধ্য থেকে যাদের আমি মনোনীত করেছি।’ (সূরা-৩৫ ফাতির : ৩২)। ‘অবশ্যই তারা ছিল আমার মনোনীত উত্তম বান্দাদের অন্তর্ভুক্ত।’ (সূরা-৩৮ সদ : ৪৭)। 
পরিভাষায় ‘মুস্তফা’ আমাদের প্রিয়নবী আখেরি নবী ও রসূল এবং সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের বিশেষ গুণ বা একান্ত বৈশিষ্ট্য। তরিকতের পরিভাষায় ‘মুস্তফা’ হলেন মারিফাত ও তাসাউফের সালিকিনদের সাতাশ বা ঊনত্রিশ স্তরের একটি স্তর এবং ইনছান ও বাশারের তথা মানবের তেতাল্লিশ পর্বের চূড়ান্ত ও সর্বশীর্ষ অবস্থান। (শানে হাবীব, হজরত জামাত আলী শাহ রহ.)। 

অধ্যক্ষ মুফতি মাওলানা শাঈখ মুহাম্মাদ উছমান গনী 


স্বামী বিদেশে থাকলে ইসলামের দৃষ্টিতে
স্বামী বিদেশে থাকলে তার দ্বীন ও দুনিয়া বিষয়ক সকল কিছুর
বিস্তারিত
কোন মুসলিম দেশে কবে ঈদ
ইন্টারন্যাশনাল অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সেন্টার (আইএসি) বেশির ভাগ ইসলামি রাষ্ট্রগুলোতে ঈদুল ফিতরের
বিস্তারিত
রমজানে পাপ মুক্তির অবারিত সুযোগ
আজ ১৬ রমজান বুধবার । মাগফেরাতের দশক শেষ হতে আর
বিস্তারিত
সৌদিতে রমজানে প্রীতিময় পরিবেশ
রমজানের আবহ শুরু হওয়ার আগে থেকেই সৌদি আরবের মানুষ মহিমান্বিত
বিস্তারিত
আজকের তারাবি ১৭
আজ ১৭তম তারাবিতে সূরা নামলের ৬০-৯৩, সূরা কাসাস এবং সূরা
বিস্তারিত
রাতে ঘুমানোর সময় নবীজি যা
আল্লাহ বলেন, ‘তোমাদের নিদ্রাকে করেছি ক্লান্তি দূরকারী।’ (আন-নাবা ৯)। নিদ্রা
বিস্তারিত