রমজানের প্রতীক্ষায় মোমিন

যখন রজব মাস প্রবেশ করত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলতেনÑ ‘আল্লাহুম্মা বারিক লানা ফি রাজাবা ওয়া শাবান, ওয়া বাল্লিগনা রামাজান।’ 

রমজান হিজরি বছরের নবম মাস। এ মাস আল্লাহ তায়ালার কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ মাস মহামান্বিত। তার স্বাতন্ত্র্য ও বৈশিষ্ট্য অন্য মাসগুলোর চেয়ে ভিন্ন। এ মাসেই ইসলামের গ্রন্থ ও আসমানি কিতাব কোরআন অবতীর্ণ হয়। এ মাসেই রয়েছে বছরের শ্রেষ্ঠতম রাত, হাজার মাসের চেয়ে উত্তম রজনি লাইলাতুল কদর। ইসলামের অন্যতম ভিত্তি সাওমও এ মাসেই পালন করতে হয়। এ মাসে সব আমলের মূল্য আল্লাহর কাছে সত্তরগুণ বেড়ে যায়। একটি ফরজ অন্য মাসের সত্তরটি ফরজতুল্য ও একটি নফল অন্যান্য মাসের ফরজতুল্য হয়ে যায়। এ মাসে জাহান্নামি লোকদের মুক্তি প্রদান করা হয়। জান্নাতি লোক নির্ধারণ করা হয়। 
যে বস্তু যত বেশি মূল্যবান, তা অর্জনের জন্য প্রস্তুতিও তেমনি নিতে হয়। জিনিস যত দামি তার মূল্যও পরিশোধ করতে হয় অধিক। তাই রমজানের মতো এ মহামান্বিত মাসকে অর্জন করতে হলে তেমনি প্রস্তুতি প্রয়োজন। তার বরকত হাসিল করার জন্য পূর্বপ্রস্তুতির বিকল্প নেই। 
রাসুলুল্লাহ (সা.) রমজানকে লাভ করার জন্য দুই মাস আগে থেকেই প্রতীক্ষায় থাকতেন। রমজানকে ভালোভাবে কাটানোর জন্য পূর্বপ্রস্তুতি নিতেন চোখে পড়ার মতো। সাহাবিদের প্রস্তুত করে তুলতেন রমজানকে সঠিকভাবে কাজে লাগানোর জন্য। বিভিন্ন উপদেশ ও নসিহত পেশ করতেন আমল বাড়িয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে। 
রমজান-পূর্ব দুই মাস রজব ও শাবান। সাহাবায়ে কেরাম রজব মাসের আগমনের সঙ্গে সঙ্গে রমজানের জন্য অধীর আগ্রহে প্রহর গুনতেন। তারা আল্লাহর কাছে দোয়া করতেন যেন দয়া করে তিনি রমজান পর্যন্ত পৌঁছে দেন। শুআবুল ঈমানের এক বর্ণনায় এসেছে, আনাস (রা.) বলেন, যখন রজব মাস প্রবেশ করত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলতেন, ‘আল্লাহুম্মা বারিক লানা ফি রাজাবা ওয়া শাবান, ওয়া বাল্লিগনা রামাজান।’ অর্থÑ ‘হে আল্লাহ আমাদের রজব ও শাবান মাসে বরকত দান করুন এবং আমাদের রমজান পর্যন্ত পৌঁছে দিন।’ (হাদিস : ৩৮১৫)। এমনই তাদের আগ্রহ। রমজানকে পাওয়ার সাধনা। 
আরবি সন হিসেবে আমাদের থেকে বিদায় নিয়েছে জমাদিউল উখরা। এখন চলছে রজব মাস। যে মাস প্রবেশের পর থেকেই পুণ্যবান পূর্বসূরিরা রমজান লাভের দোয়া শুরু করে দিতেন। তার অপেক্ষায় দিন কাটাতেন। তাদের অনুসরণ উম্মতের কর্তব্য। সে হিসেবে আমাদেরও উচিত, রজব মাসকে গুরুত্বের সঙ্গে গ্রহণ করা। আর বেশি বেশি দোয়া করতে থাকা রমজানের জন্য। আর প্রতীক্ষায় থাকা রমজানকে স্বাগত জানানোর।


দাজ্জালের ফেতনা থেকে সাবধান
নবী (সা.) তাঁর উম্মতকে ফেতনা থেকে কঠিনভাবে সতর্ক করেছেন। এ
বিস্তারিত
সন্ত্রাসবাদের কোনো ধর্ম নেই
শ্রীলঙ্কায় নিরাপরাধ মানুষের ওপর নির্বিচার সন্ত্রাসী হামলায় সারাবিশ্বের বিবেকবান মানুষের
বিস্তারিত
আলোর পরশ
কোরআনের বাণী আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘যে বিষয়ে তোমার কোনো জ্ঞান নেই,
বিস্তারিত
দ্বিতীয় কাতার কোথা থেকে শুরু
প্রশ্ন : নামাজের প্রথম কাতার পূর্ণ হয়ে গেলে দ্বিতীয় কাতার
বিস্তারিত
ন তু ন প্র
বইয়ের নাম : রামাদান উদযাপন রচয়িতা : ড. মাওলানা আবু সালেহ
বিস্তারিত
জীবন পাথেয়
আপনি বিপদে পড়ে সর্বশেষ কবে আল্লাহর কাছে ধরনা দিয়েছেন? আল্লাহর
বিস্তারিত