শিশুদের জন্য সফটওয়্যার একাডেমি

দেশে ‘জুনিয়র সফটওয়্যার একাডেমি’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান চালু করেছে স্যামসাং বাংলাদেশ। একাডেমিতে প্রথম সেশনের কার্যক্রমও শুরু হয়েছে। স্যামসাং গবেষণা ও উন্নয়ন ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ বা এসআরবিডিতে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত চলবে সেশনটি।

কোডিং, প্রোগ্রামিং, মাইক্রোসফট অফিস, কম্পিউটার ও ইন্টারনেট সংক্রান্ত প্রাথমিক শিক্ষাসহ অন্যান্য আরও অনেক প্রযুক্তিবিষয়ক প্রশিক্ষণ শিক্ষার্থীরা গ্রহণ করতে পারবে এ একাডেমি থেকে।
এছাড়া স্যামসাংয়ের ইতিহাস, স্যামসাং পণ্য সম্পর্কে জ্ঞান ও অ্যান্ড্রয়েড ওপেন সোর্স সিস্টেম সম্পর্কে জানতে পারবে শিক্ষার্থীরা। সফটওয়্যার উন্নয়ন করতে বেসিক কোডিং ব্যবহার করে শিক্ষার্থীরা কাজও করতে পারবে। আর প্রশিক্ষণ শেষে শিক্ষার্থীদের সনদ দেওয়া হবে। 
স্যামসাং বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক স্যাংওয়ান ইয়ুন বলেন, দেশের শিক্ষার্থীরা সফটওয়্যার একাডেমি থেকে অর্জন করা জ্ঞান ভবিষ্যৎ শিক্ষা গ্রহণে তাদের সহায়তার পাশাপাশি তাদের মাঝে প্রযুক্তি ও উদ্ভাবনী ধারণা নিয়ে কাজ করার ইচ্ছাশক্তি তৈরি করবে। ভবিষ্যতে বাংলাদেশকে টেক জায়ান্ট হিসেবে পরিচিতি পেতে সহায়তা করতে চাই আমরা যার শুরু শিশুদের দিয়ে। আজকের শিশুরাই ভবিষ্যতে দেশের সার্বিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।
ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির ৩০ শিক্ষার্থী জুনিয়র সফটওয়্যার একাডেমিতে অংশ নিয়েছে। ৮ মার্চ থেকে শুরু হওয়া সেশনটি ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে। যেখানে সপ্তাহের প্রতি শুক্রবার ক্লাস নেওয়া হচ্ছে। এসআরবিডিতে বর্তমানে প্রায় ৪০০ প্রকৌশলী কর্মরত আছেন।


রোবট অলিম্পিয়াডের নিবন্ধন শুরু
আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে দেশে দল গঠনের জন্য শুরু হচ্ছে
বিস্তারিত
প্রোগ্রামার হয়ে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করতে
দক্ষ প্রোগ্রামার হয়ে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করার অঙ্গীকার করলেন শিক্ষার্থীরা। সম্প্রতি
বিস্তারিত
যুক্তরাজ্যের ৪ কোম্পানির ভরসা হুয়াওয়ের
যুক্তরাজ্যের চার মোবাইল ফোন অপারেটরের সঙ্গে মিলে ফাইভজি স্থাপনের কাজ
বিস্তারিত
তথ্যপ্রযুক্তি খাতে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে
বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে যে সহযোগিতা করছে নেদারল্যান্ডস, তা অব্যাহত রাখার
বিস্তারিত
আরও ৫ রাইড শেয়ারিং লাইসেন্স
রাইড শেয়ারিংয়ের লাইসেন্স সংখ্যা এখন ছয়। উবার এখন পর্যন্ত আবেদন
বিস্তারিত
রবির রিটেইল পয়েন্টে ব্যাংক এশিয়ার
বিধবা, বয়স্ক ব্যক্তি, বিশেষভাবে সক্ষম ব্যক্তিরা যাতে ব্যাংক এশিয়ার মাধ্যমে
বিস্তারিত