প্রতিটি মানুষই অসাধারণ

৩৭তম বিসিএসের পররাষ্ট্রে ৭ম আসিফ

৩৭তম বিসিএসের পররাষ্ট্র ক্যাডারে ৭ম হয়েছেন আসিফ ইমতিয়াজ। সম্প্রতি এ বিসিএসের গেজেট প্রকাশিত হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অর্থনীতি বিভাগের ২০১০-১১ সেশনের শিক্ষার্থী আসিফ। গ্র্যাজুয়েশন শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদভুক্ত ম্যানেজমেন্ট ইনফরম্যাশন সিস্টেম বিভাগের প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেছেন তিনি।

দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশের সঙ্গে আলাপকালে জীবন সফলতার নানাদিক নিয়ে কথা বলেন আসিফ ইমতিয়াজ। পরামর্শ দেন ৪০তম বিসিএস প্রার্থীদের জন্য। পুরো সাক্ষাৎকারটি পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-

প্রশ্ন: একদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, অন্যদিকে বিসিএস মেধাক্রমে ৭ম স্থান অধিকার- সফলতার রহস্য কী? 

উত্তর: শুধুই পরম করুণাময় আল্লাহর ইচ্ছা। আমি শুধু চেষ্টা করেছি নিজের প্রতিদিনের কাজ প্রতিদিন ঠিকমতো করতে। আমি চেয়েছি আমার কারণে যেন কখনো আমার বাবা-মাকে কষ্ট পেতে না হয়। নিয়মিত পড়ালেখার মাঝে থাকতে চেষ্টা করেছি। হাতের কাছে যা পেয়েছি তাই পড়তে চেষ্টা করেছি। চোখের সামনে যা দেখেছি, তার কিছুটা গভীরে ঢুকতে চেয়েছি। মনের ডাক শুনেছি। ছাত্রজীবনে পৃথিবীকে ক্লাসরুমের বাইরে এসে বোঝার জন্য কখনো টিউশনি করেছি, কখনো চার বন্ধু মিলে আন্ডারগ্রাউন্ড ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজন করেছি, কখনো আমার ঘনিষ্ঠ এক বন্ধুর সাথে কাপড়ের ব্যবসা করেছি। ক্ষুদ্র এই জীবনের বিভিন্ন পর্যায়ে স্নায়ু নিয়ন্ত্রণে ব্যবসায়ের অভিজ্ঞতাটা কাজে লেগেছে। আত্মবিশ্বাসটা অনেক জরুরি। আরও বেশি জরুরি হলো নিজের দুর্বলতা বুঝতে পারা। আমি নিজের দুর্বলতাকে কিছুটা হলেও বুঝতে পারি। এই বোধটাই আমার শক্তি। আমার মা, আমার বাবা আর এখন যোগ হয়েছেন আমার স্ত্রী- আমার যাবতীয় কাজের এই তিন অনুপ্রেরণা।

প্রশ্ন: বিসিএস নাকি ঢাবির শিক্ষকতা, কোনদিকে থাকবেন; যেদিকে থাকবেন, তার কারণ।

উত্তর: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকতাকেই বেছে নিচ্ছি। ইতিহাসের সাক্ষী হওয়ার চেয়ে ইতিহাসস্রষ্টাদের তৈরি করার চেষ্টাকে প্রাধান্য দিচ্ছি। আমার ছাত্র-ছাত্রীরা যদি আমার দেয়া জীবনবোধ আর শিক্ষার কিছুটা অংশ নিজেরা ধারণ করতে পারে আর দূর-দূরান্তে ছড়িয়ে পড়ে পৃথিবীর, তাতেই আমার সুখ নিহিত থাকবে। আমি উদ্যোক্তা তৈরির চেষ্টাতে মনোযোগ দিতে চাই। এখন তারই পূর্বপ্রস্তুতি গ্রহণ করতে যাচ্ছি। 

প্রশ্ন: ৪০তম বিসিএস পরীক্ষার্থীদের জন্য কিছু পরামর্শ দিন। 

উত্তর:  এখন রিভিশনের সময়। নিজের দুর্বলতাকে বুঝতে শিখে সেখানে জোর প্রয়োগ করা যেতে পারে। আত্মবিশ্বাসী হতে হবে। সব বলে ব্যাট চালানো যাবে না। কিছু বল ছেড়ে খেলতে হবে। আমার ধারণা অংক, মানসিক দক্ষতা, বিজ্ঞান, আইসিটি, বাংলা আর ইংরেজি পার্থক্য গড়ে দেবে। সাধারণ জ্ঞান নিয়ে বেশি মাতামাতির দরকার আছে বলে মনে হয় না। এমন হতে পারে আমি ৬ মাস সাধারণ জ্ঞান পড়লাম কিন্তু পরীক্ষায় তার কিছুই আসলো না। তাই সাধারণ জ্ঞানের ম্যাক্সিমাইজেশন কখনো সম্ভব না, রিস্ক মিনিমাইজেশনে মন দিতে হবে।

প্রশ্ন: প্রিলিমিনারিতে মূল সমস্যা কোথায় হয়? ওভারকাম করার উপায় কী? 

উত্তর: প্রিলিমানারির মূল সমস্যা হলো এটি অনেকটাই ভাগ্য-নির্ধারিত। খুব ভাল প্রস্তুতি প্রিলিমিনারি পাসের নিশ্চয়তা দেয় না। ভাল প্রস্তুতি আর ভাল পরীক্ষার পার্থক্য আছে। কিছু ক্ষেত্রে দেখা যায় যে, কয়েকটি বিষয়ে বেশি মন দিতে গিয়ে ভূগোল, দুর্যোগ-ব্যবস্থাপনা, নৈতিকতা সুশাসন ইত্যাদি বিষয়ে পূর্ণ প্রস্তুতি নেয়া যায় না। আমার মতামত হলো, যেকোন তিনটে বিষয়ে সর্বজ্ঞ না হয়ে সব বিষয়েই উতরে যাওয়ার মতো দক্ষতা অর্জন। প্রিলিমিনারি কোন পাণ্ডিত্য-প্রকাশক পরীক্ষা না, স্মার্টলি চিন্তা করে অল্প ক্লেশে পার হয়ে আসার পরীক্ষা। নিজেকে পরীক্ষক হিসেবে কল্পনা করে পড়লে আমার ধারণা অপ্রয়োজনীয় তথ্য বাদ দেয়া সহজ হয়ে যায়।

প্রশ্ন: বিষয়ভিত্তিক পরামর্শ যদি দিতেন। 

উত্তর: এ বিষয়ে অনেক আলোচনা ইতোমধ্যেই হয়েছে। অন্তর্জালে সবই সহজলভ্য। আমি একটু অন্য কথা বলি। প্রত্যেক মানুষের নিজস্ব স্টাইল থাকে পড়ার। সেভাবেই পড়ুক। তবে ফোকাস যেন নড়ে না যায়। ফোকাসটা হলো নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই আমি আমার রিস্ক মিনিমাইজ করব। একটি মূল গাইডের সাথে দুটি আলাদা পাবলিশারের ডাইজেস্টের প্রয়োজনীয় অংশ পড়লে আশা করি কাজ চালানো যাবে। বিসিএসের যেহেতু নির্দিষ্ট কোন সিলেবাস নেই, তাই কেউ যদি বলে আমার সিলেবাস শেষ, তাকে নিয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। তবে বিসিএসে একটা জিনিস খুব কাজে লাগে। তা হলো পূর্ববর্তী জ্ঞান এবং অভিজ্ঞতার Accumulation. 

প্রশ্ন: বিসিএস ভালো করতে কী ধরণের রুটিন মেনে চলা উচিত, আপনার রুটিন কী ছিল? 

উত্তর: আমি প্রিলিমিনারির জন্য ৪৫ দিন পড়েছি। প্রায় দশ ঘণ্টা করে। প্রথম দশ-পনেরো দিন নিজেকে বিচার করেছি। পরের বিশ-পঁচিশ দিন ভিত শক্তিশালী করেছি। তবে অসুস্থতার কারণে রিভিশন দিতে হয় শেষ দুদিন। বাকিটা আল্লাহর ইচ্ছা। লিখিত পরীক্ষার জন্য বেশ কষ্ট করেছি। প্রায় ৪০ দিন টানা পড়ালেখা করেছি। তবে ওই যে বললাম, সঞ্চিত এবং লব্ধ জ্ঞান আর অভিজ্ঞতা দিয়ে লিখিত পরীক্ষা পাস করেছি। অংক আর মানসিক দক্ষতা খুব ভাল কাজ দিয়েছিল। বাংলাদেশ বিষয়াবলি লেখা শুরু করেছিলাম সংবিধান দিয়ে। যা লিখেছি একদম সুস্পষ্ট করে যতটুকু প্রয়োজন ততটুকুই লিখেছি। অকাজে কালি এবং কাগজ অপচয় করিনি। 

প্রশ্ন: অনুজদের জন্য কিছু অনুপ্রেরণা। 

উত্তর:  প্রতিটি মানুষই অসাধারণ। প্রত্যেকের সামর্থ্য আছে দুর্দান্ত কিছু করার। শুধু বুঝতে হবে নিজের মন আর মাথাটা একদিকে কাজ করছে কিনা। যদি করে থাকে, তাহলে তো কথাই নেই। যদি না করে থাকে, সাহস করে অচলায়তনটা ভাঙার চেষ্টা করতে হবে। যারা সফল, তারা আজ পাঠাওয়ের মালিক, বেসিসের চেয়ারম্যান, বিখ্যাত ফ্রিল্যান্সার, চমৎকার ডেটা এনালিস্ট। নিজেকে ছোট ভাবা যাবে না। দেশ আমাকে কী দিলো না ভেবে আমি দেশকে কী দিতে পারি ভাবতে হবে। নিজের স্কিল ডেভেলপ করতে হবে। স্কিল থাকলে সুযোগ আসবেই। আমি অনেক সাধারণ জ্ঞান পারি- এটা কোন স্কিল না। আমি খুব ভাল ওয়েব ডিজাইন জানি- এটা অবশ্যই দক্ষতা। অনেকে বলবে- এগুলো বলতেই সম্ভব আর শুনতেই সুন্দর। কিন্তু তারা চারপাশে ভাল করে চোখটা বুলালেই উত্তর পাবে। 

প্রশ্ন: আপনাকে ধন্যবাদ। 

উত্তর:  আপনাকেও ধন্যবাদ।


এইচএসসিতে মা পেলেন জিপিএ ৪,
উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে আজ।
বিস্তারিত
ব্লু মক্স সুলতান আহমদের অমর
ইস্তানবুলের প্রাচীন স্থাপত্যের এক অন্যতম নিদর্শন হচ্ছে আহমেদীয়া মসজিদ। পশ্চিমারা
বিস্তারিত
অপরূপ নিদর্শন ইস্তানবুলের সুলাইমানিয়া মসজিদ
তৃতীয় দিন আমরা ঠিক করলাম সুলাইমানিয়া মসজিদটি দেখতে যাবো। সেখানে
বিস্তারিত
ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে তালের শাঁস
পাকা তালের রস, কচি তালের শাঁস, অংকুরিত তালের আটির ভেতরের
বিস্তারিত
ইস্তানবুলের পথে পথে
ঈদের ছুটিঁতে স্বপরিবারে তুরস্কের রাজধানী ইস্তানবুলে গিয়েছিলাম। যার আবেশ এখনো
বিস্তারিত
নিষিদ্ধ নেশার কালো পথ এবার
যারা মারছে, যারা মরছে, যারা মৃত্যুর প্রহর গুনছে- এরা সবাই
বিস্তারিত