শ্রেষ্ঠ ডায়ালগ

(এক স্রোতস্বিনীর পাশে আমার সুন্দর

ফুলবাগান। সেখানে আমি মন নিয়ে
খেলা করছি। হঠাৎ এক বিশাল মৌপোকার
ঝাঁক প্রবেশ করল।)
আমি : এখানে কী চাও তোমরা?
মৌপোকা : নম্র সুরে বলল আমরা মধু নেব।
আমি : পরের কানন হতে সম্পদ নিবে কেন?
মৌপোকা : এ সম্পদ আমাদেরই, দেখছি তুমি 
ভারি লোভী ও হিংসুক।
আমি : ভেবেচিন্তে কথা বল।
মৌপোকা : কী জ্ঞান ও শক্তি তোমার, পাপড়ি ও 
ফুল থেকে মধু নাও তো দেখি?
আমি : ও কাজ আমার নয়।
মৌপোকা : তুমি পরজীবী। তুমি ডাকাত। এখন 
আমাদের তাড়াচ্ছ। চাক ভরলে আবার
তাড়িয়ে মধু লুট করবে
আমি : তোমরা পাপড়িতে বসলে ফুলের রূপ হারাবে। 
মৌপোকা : তুমি কি রূপ সঙ্গে নিয়ে জন্ম নিয়েছ? কি এখন
হারাচ্ছ? কি নিয়ে আবার যাবে? তুমি তো স্বার্থপর  
আমি : তুমি তো দেখি ভারি বাচাল।
মৌপোকা : তুমি রাগ করো না। তোমাকে 
একটু জ্ঞান দিলাম, তুমি অনেক জ্ঞানী।
আমি : আচ্ছা বেশ। যাও, যাও।
(এ  কথা শোনা মাত্রই হাজার খানেক মৌপোকা
আমার ওপর ঠান্ডা মাথায় বসল।)
আমি : (স্বগোক্তি):
তাদের উজ্জ্বলতা আমার কৃষ্ণ 
হৃদয়ে প্রবেশ করল। আমি এক
অব্যক্ত মহানন্দ অনুভব করলাম।
এ এক নতুন জ্ঞান, সে এক নতুন অভিজ্ঞতা।
মাটি উজ্জ্বলতা পেয়ে গেল। আমার উজ্জ্বলতা
আর মাটির উজ্জ্বলতা এক হয়ে নিমেষে বাগানকে
আলোকিত করল। এর পর এ শ্রেষ্ঠ ডায়ালগ
অনন্তের ইতিহাসে রচিত হয়ে হারিয়ে গেল।


রাজধানীর রাজহাঁস সাপ-পাখি ও ডাহর
আটটি রাজহাঁস দশ-বারো ফুট দূরে হল্লা করে ভেজা ঘাস খাচ্ছে।
বিস্তারিত
নোঙর
গভীর গহনস্রোতে চোখ রেখে বলি হাতে হাতখানি ধরোÑ এসো, ঝাঁপ দিই অতল
বিস্তারিত
মহিউদ্দিন -বিনে পয়সায় বৃষ্টি
    এসো বৃষ্টি দেখি, বিনে পয়সায় বৃষ্টি। এ শহরের বৃষ্টি বড়ই লাজুক
বিস্তারিত
টিপু সুলতান-নারকেল পাতার চশমা
      আমার একটা ভাবনা ছিল কারোর আঙ্গিনায় গাছ হই। রোদ ভাঙা সন্ধ্যেয়
বিস্তারিত
বিবর্তন
    আভিজাত্য সম্মান জাদুঘরে নির্বাসিত   আমাদের সমাজ এখন ভেড়ার বদলে  কুকুর পালনে মনোনিবেশ
বিস্তারিত
ডুডল
  দীর্ঘ বিরতির পর এই দেখলামÑ তোমার বয়সের ছাপ এসে গেছেÑ চোখের নিচে
বিস্তারিত