চট্টগ্রাম নগরীতে প্রকাশ্যে ধূমপান বন্ধে মেয়রের ঘোষণা

সভায় বক্তব্য রাখছেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছিরউদ্দিন।

‘আগামী এক বছরের মধ্যে চট্টগ্রাম নগরীতে প্রকাশ্যে ধূমপান বন্ধ করা হবে। সেই সাথে সিটি কর্পোরেশনের আওতাভুক্ত সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, ক্লিনিকসহ গুরুত্বপূর্ণ পাবলিক স্থানের একশ গজের মধ্যে সকল প্রকার তামাকের দোকান বন্ধ করব।’

তামাকমুক্ত চট্টগ্রাম নগরী গড়ার লক্ষ্যে সাংস্কৃতিক প্রচারণার উদ্বোধনী আয়োজনে এমন ঘোষণা দেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছিরউদ্দিন। 

সোমবার নগরীর জামালখান প্রেসক্লাব ভবনের বঙ্গবন্ধু মিলনায়তনে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা বিটা, ক্যাব (কনজুমার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ) এবং ইলমার (এনসিউর লিগেল সার্পোট থ্রু লোকাল মুভমেন্ট এন্ড এ্যাকশন) উদ্যোগে এবং সিটিএফকে’র সহায়তায় পিপলস্ জুবিলান্ট এনগেজমেন্ট ফর টোবাকো ফ্রি চিটাগাং সিটি প্রকল্পের আওতায় তামাক বিজ্ঞাপন, প্রচারণা এবং পৃষ্ঠপোষকতায় নিষেধাজ্ঞা বিধির ওপর গুরুত্বারোপ করে এই সাংস্কৃতিক প্রচারণার উদ্বোধন করা হয়। 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। বিটার নির্বাহী পরিচালক শিশির দত্তের সভাপতিত্বে এবং বিটার প্রকল্প সমন্বয়কারী অশোক বড়ুয়ার পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম জেলার উপ-পরিচালক এবং সিভিল সার্জন ডা. আজিজুর রহমান সিদ্দিকী।

আরো উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন বড়ুয়া, সিটিএফকে বাংলাদেশের লিড কনসালটেন্ট শরিফুল আলম। আরো বক্তব্য রাখেন ক্যাব চট্টগ্রামের ভাইস প্রেসিডেন্ট নেজার হোসাইন।

উদ্বোধনী এই আয়োজনে বাংলার লোকঐতিহ্য কবিগানের মধ্য দিয়ে উপস্থিত সবার কাছে তামাকমুক্ত নগরী গড়ার বার্তা পৌঁছে দেন কবিয়াল মো. ইউসুফ এবং কবিয়াল নিরঞ্জন সরকারের দল।

প্রধান অতিথি আ জ ম নাছির উদ্দিন তার বক্তব্যে আরো বলেন, আগামী তিন মাসের মধ্যে সংশ্লিষ্ট সকলকে চিঠি পাঠানো হবে সিটি কর্পোরেশন অফিস থেকে। এ বিষয়ে তদারকি করতে অফিসারদের এসাইন করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। সেই সাথে সরাসরি তিনি এই কাজের তদারকি করবেন বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।’ 

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন বড়ুয়া বলেন, সিটি কর্পোরেশনের আওতাভুক্ত সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে তামাকবিরোধী প্রচারণা পরিচালনা করতে সিটি কর্পোরেশন সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে।    

শুভেচ্ছা বক্তব্যে বিটার নির্বাহী পরিচালক শিশির দত্ত বলেন, ইতোমধ্যে চট্টগ্রামকে সবুজ নগরী গড়তে সিটি মেয়র সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছেন। তামাকমুক্ত চট্টগ্রাম নগরী গড়তে সিটি মেয়র দৃষ্টান্তমূলক ভূমিকা রাখতে পারেন। 

উল্লেখ্য, সাংস্কৃতিক প্রচারণার অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডে সচেতনতামূলক সাংস্কৃতিক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে কবিগান, পাপেট থিয়েটার, মিউজিকেল কনসার্ট এবং মাধ্যমিক স্কুলপর্যায়ে নাটকের মাধ্যমে শিক্ষাকার্যক্রম পরিচালনা করা হবে।  

সিভিল সার্জন আজিজুর রহমান সিদ্দিকী তামাকের স্বাস্থ্যগত ক্ষতি এবং ঝুঁকির বিষয়টি তুলে ধরেন। তিনি বলেন, এটি একটি সামাজিক আন্দোলন। পরিবার থেকেই এর উদ্যেগ গ্রহণ করতে হবে।

র‌্যালির মাধ্যমে শুরু হয় উদ্বোধনী আয়োজনের। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আগত তরঙ্গ দলের পরিবেশনায় দলীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে শুরু হয় অনুষ্ঠান আয়োজন। সভার শুরুতে চট্টগ্রাম নগরীতে তামাকের বিজ্ঞাপন, প্রণোদনা এবং প্রদর্শনী অবস্থা যাচাই শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদনের ফলাফল উপস্থাপন করেন বিটা পরিচালিত তামাকমুক্ত চট্টগ্রাম নগরী প্রকল্পের টিমলিডার প্রদীপ আচার্য।

এই বেইজলাইন সার্ভে থেকে পাওয়া তথ্য মতে, নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডে ৮৪.৫০ শতাংশ তামাক পণ্যের বিক্রয় কেন্দ্রে তামাকের বিজ্ঞাপন ও প্রণোদনা পাওয়া গেছে এবং ৮৫.১০ শতাংশ তামাক পণ্যের বিক্রয় কেন্দ্রে তামাকজাত পণ্যের প্রদর্শনী পাওয়া গেছে।


ফেনীতে ১৫শ’ মিটার অবৈধ ফিক্সড
ফেনীতে বুধবার দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান ১৫শ মিটার অবৈধ ফিক্সড
বিস্তারিত
বিএনপি নেতা শাহীন হত্যার প্রধান
বগুড়া সদর উপজেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ও পরিবহন ব্যবসায়ী
বিস্তারিত
ভাঙ্গায় বাবা মায়ের সামনে সড়কে
ফরিদপুরের ঢাকা-ভাঙ্গা-বরিশাল মহাসড়কের ভাঙ্গা বাসষ্ট্যান্ডে (কুমার নদের উপর বাইপাস সড়কে)
বিস্তারিত
শ্রমিকের চোখে-মুখে শুধুই বিচারের দাবি
কেউ হারিয়েছেন মা, কেউ হারিয়েছেন বাবা, কেউ ভাই, কেউ বোন,
বিস্তারিত
রংপুরে উপজেলা চেয়ারম্যান-ভাইস চেয়ারম্যানদের শপথ
রংপুর সদর ও মিঠাপুকুর উপজেলার নির্বাচিত চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং
বিস্তারিত
ভৈরবে টাস্কফোর্সের সভা দায়িত্বশীলদের সাড়া
রমজানে মাসে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রীর বাজার দর স্থিতিশীল রাখতে
বিস্তারিত