প্রতারণার অভিযোগে চক্ষু চিকিৎসককে লাখ টাকা জরিমানা

পাবনার চাটমোহরে চক্ষু ক্যাম্প চলাকালে মোহাম্মদ আলী (বিএমডিসি রেজিঃ নং ৬৪০২০) নামক এক চিকিৎসককে এক লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার অসীম কুমার।

ডাঃ মোহাম্মদ আলী নাটোর জেলার গুরুদাসপুর উপজেলার চাঁচকৈড় বাজারের আনোয়ার হোসেনের ছেলে। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার বিলচলন ইউনিয়নের বোঁথর গ্রামের বিলচলন ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, ডাঃ মোহাম্মদ আলীর মালিকানাধীন নাটোরের গুরুদাসপুরের চাঁচকৈড় বাজার এলাকায় অবস্থিত অনুমোদনবিহীন আনোয়ার হোসেন চক্ষু ও জেনারেল হাসপাতালের আয়োজনে বৃহস্পতিবার বিলচলন ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে মাত্র ত্রিশ টাকা ফি নিয়ে চক্ষু মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হবে মর্মে গত বুধবার মাইকিং করা হয় ও লিফলেট বিতরণ করা হয়।

ডাঃ মোহাম্মদ আলী (এমবিবিএস, সিসিডি, ডিএমইউ, ডিও-চক্ষু রোগ বিশেষজ্ঞ ও সার্জন ইসলামিয়া চক্ষু হাসপাতাল ঢাকা-ডায়াবেটিক রোগ বিশেষজ্ঞ, বারডেম ঢাকা) এবং মনজুরুল ইসলাম মাসুম (এম.এল.ওপি.বি.এন.এস.বি সিরাজগঞ্জ চক্ষু হাসপাতাল ডি.ও.এল.ভি, ইউ.ওব.সাউথ এশিয়া (ঢাকা) চিকিৎসা সেবা প্রদান করবেন বলে লিফলেটে জানানো হয়। 

বৃহস্পতিবার ডা. মোহাম্মদ আলীর ক্লিনিকে কর্মরত মনজুরুল ইসলাম এ ক্যাম্পে না আসলেও ডাঃ মোহাম্মদ আলী ক্যাম্পে রোগী দেখা শুরু করেন এবং অনেক রোগির কাছে থেকে অতিরিক্ত চার-পাঁচশত করে টাকা আদায় করেন। এলাকাবাসীর সন্দেহ হলে তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী কমিশনার ভূমি ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে বিষয়টি অবহিত করলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ভ্রাম্যমাণ আদালত বসান।

এ সময় সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইকতেখারুল ইসলাম, চাটমোহর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপ কর্মকর্তা ডাঃ সবিজুর রহমান ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সেখ নাসির উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, ভূয়া প্রচারণা, বেআইনি চক্ষু ক্যাম্প স্থাপন, বিশেষজ্ঞ না হয়েও লিফলেটে বিশেষজ্ঞ কথা ব্যবহার করা, তিনি যে সকল হাসপাতালে কর্মরত নন, সে সকল হাসপাতালের নাম ব্যবহার করে প্রচারণা চালানো ও অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের কথা স্বীকার করায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০১০ অনুযায়ী তাকে এক লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ডাদেশ দেয়া হয় এবং রোগিদের টাকা ফেরত দেয়া হয়। তিনি সারা দেশের আর কোথাও অনুমোদনবিহীন চক্ষু ক্যাম্প করবেন না বলে মুচলেকাও দেন। জরিমানার টাকায় তিনি মুক্ত হন।

এ ব্যাপারে ঢাকার ইসলামিয়া চক্ষু হাসপাতালের পরিচালক নজরুল ইসলাম জানান, ডাঃ মোহাম্মদ আলী আমাদের হাসপাতালের চিকিৎসক নন। তিনি আমাদের হাসপাতালের নাম ব্যবহার করে রোগিদের সাথে প্রতারণা করছেন।

উল্লেখ্য, গত ১১ এপ্রিল বৃহস্পতিবার দুপুরে পাবনার চাটমোহরের বিলচলন ইউনিয়নের উত্তরসেন গ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ে একই ধরণের চক্ষু ক্যাম্প চলাকালে ডাঃ মোহাম্মদ আলীর সহকারী ডাঃ মোঃ মনজুরুল ইসলামকে (মাসুম) ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ওই সময় নাটোরের গুরুদাসপুরের আনোয়ার হোসেন চক্ষু ও জেনারেল হাসপাতালের আয়োজনে উত্তরসেনগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ে চক্ষু মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হবে মর্মে কয়েক দিন যাবত মাইকে এই রকম প্রচার চালানো হয় ও লিফলেট বিতরণ করা হয়। তবে সেদিন ডাঃ মোহাম্মদ আলী অনুপস্থিত থাকায় ডাঃ মোহাম্মদ আলীর প্যাডে নিজের স্বাক্ষর দিয়ে প্রেসক্রিপশন করেন ভুয়া ডাঃ মোঃ মনজুরুল ইসলাম (মাসুম)।

স্থানীয়রা এ ঘটনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার অসীম কুমার ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সেখ মোঃ নাসীর উদ্দিনকে অবহিত করলে ভুয়া ডাঃ মোঃ মনজুরুল ইসলামকে থানা হেফাজতে নিয়ে আসা হয়। রাতে সহকারী কমিশনার ভূমি ইকতেখারুল ইসলাম ভূয়া ডাঃ মোঃ মনজুরুল ইসলামকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। একই ঘটনা দ্বিতীয়বার ঘটলো চাটমোহরেই।


বিএনপির রাজনীতিতে কোন চরিত্র নেই:
সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এমপি বলেছেন, বিএনপির গণমুখী রাজনীতিতে এখন
বিস্তারিত
আম চুরির অভিযোগে শিশুকে পিটিয়ে
পটুয়াখালীর বাউফলে আম চুরির অভিযোগে ছাব্বির নামে (১৩) এক শিশুকে
বিস্তারিত
ভিপি নুরের ওপর ছাত্রলীগের হামলা
এবার বগুড়ায় ছাত্রলীগ নেতার্মীদের হামলার মুখে পড়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয়
বিস্তারিত
সিরাজগঞ্জে ইউএনও হাটে গিয়ে কৃষকের
সিরাজগঞ্জে নির্বাহী অফিসাররা হাট-বাজারে গিয়ে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে সরকারের
বিস্তারিত
চাঁদপুরে নকল কারখানার সন্ধান, মালিককে
চাঁদপুরে জেলা পুলিশ বিশেষ অভিযান চালিয়ে শহরের ওয়ারল্যাস বাজার এলাকা
বিস্তারিত
লিচু খেতে চাওয়ায় দুই মেয়েকে
দুই মেয়েকে ডাক্তার দেখাতে নিয়ে গিয়েছিলেন পেশায় পোশাক কারখানার নিরাপত্তা
বিস্তারিত