বদরখালীতে পুলিশকে মাসোয়ারা দিয়েই চলছে মাদক বেচাকেনা!

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার উপকূলীয় ইউনিয়ন বদরখালীর প্রত্যন্ত এলাকায় এখন প্রকাশ্যে চলছে মাদক বেচাকেনা। পাশাপাশি বিভিন্ন এলাকায় গড়ে উঠছে মাদকের আখড়া। এছাড়া প্রতিদিন নির্দিষ্ট এলাকায় বসছে জমজমাট জুয়ার আসরও।

স্থানীয়দের অভিযোগ, বদরখালী পুলিশ ফাঁড়ির এক কর্মকর্তার টোকেন বাণিজ্যের মাধ্যমে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে মাদক কারবারীরা। প্রতিদিন উপকূলীয় বদরখালী ইউনিয়নের প্রত্যন্ত এলাকায় প্রকাশ্যে মাদক বেচাকেনা চললেও পুলিশ রহস্যজনকভাবে কোনো কার্যকরী ভূমিকা পালন করছে না। ফলে মাদকের ছোবলে এলাকার উঠতি বয়সী তরুণদের পাশাপাশি স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরাও বিপথগামী হয়ে পড়েছে।  বিষয়টি নিয়ে এলাকার সচেতন মহল ও অভিভাবকগণও উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন।

জানা যায়, উপকূলীয় বদরখালী ইউনিয়নটি চকরিয়া উপজেলার সীমান্তবর্তী ইউনিয়ন হলেও ভৌগোলিক দিক দিয়ে জেলার ৭১টি  ইউনিয়নের মধ্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ইউনিয়ন। বদরখালী ইউনিয়নেই রয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম সমবায়ী সংগঠন বদরখালী কৃষি ও উপনিবেশ সমিতি। পার্শ্ববর্তী দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীর লোকজনের সড়কপথে এ বদরখালী ইউনিয়নের উপর দিয়েই যাতায়াত করে।

এছাড়া বদরখালী থেকে নৌপথে দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়া, জেলা সদর কক্সবাজার ও বিভাগীয় শহর চট্টগ্রামের সাথে সরাসরি যোগাযোগ রয়েছে। প্রতিদিন এসব এলাকার লোকজন তাদের প্রয়োজনের তাগিদে সড়কপথের পাশাপাশি নৌপথে বদরখালী হয়েই যাতায়াত করে থাকেন। এছাড়া পার্শ্ববর্তী মহেশখালী উপজেলায় চলমান কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পে কাজ করা লোকজনও বদরখালী বাজার অভিমুখী। প্রতিদিন প্রয়োজনের তাগিদে এসব লোকজন বদরখালীতেই আসা-যাওয়া করে থাকেন। বলতে গেলে এ বদরখালী ইউনিয়নটি উপকূলীয় এলাকার একটি জংশন ইউনিয়ন।

এক সময় এ ইউনিয়নটি মাদকমুক্ত ইউনিয়ন হিসেবে পরিচিত থাকলেও এখন সে অবস্থা আর নেই। বর্তমানে ইউনিয়নের প্রত্যন্ত এলাকায় এখন প্রকাশ্যে চলছে মাদক বেচাকেনা। হাত বাড়ালেই মিলছে বিভিন্ন ধরনের মাদক। এছাড়া চলছে জমজমাট জুয়ার আসরও। মাদকের ছোবলে এলাকার উঠতি বয়সী তরুণদের পাশাপাশি স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরাও বিপথগামী হয়ে পড়েছে। প্রতিদিন উঠতি বয়সী ছেলেমেয়েরা সেবন করছে ইয়াবা, মদ, গাঁজা, ফেন্সিডিল, হেরোইনসহ বিভিন্ন মাদক।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, স্থানীয় ইয়াবা ডন জিয়াবুল করিম মাধ্যমে বদরখালী ইউনিয়নের প্রত্যন্ত এলাকায় মাদকের অবাধ বাণিজ্য ছড়িয়ে পড়েছে। এছাড়া ইয়াবা ডন জিয়াবুল করিমের স্ত্রী রহিমা বেগম কক্সবাজার সমিতিপাড়া এলাকায় তার পরিচিত এক আত্মীয়ের কাছ থেকে প্রতিনিয়ত ইয়াবা নিয়ে এসে বদরখালী হয়ে মহেশখালীসহ বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করছে। তার এ কাজে সহযোগিতা করছে বদরখালী বাজার এলাকার জালাল উদ্দিনের স্ত্রী জন্নাত বেগম, মৃত দেলোয়ারের পুত্র মো. কালু।

এছাড়া একই এলাকার মৃত গুরা মিয়ার পুত্র কালু ও তার স্ত্রী হাছিনা বেগম, বদিউরের স্ত্রী আলমাছ খাতুন ও আনোয়ারা বেগমের বাড়িতে প্রতিনিয়ত বাংলা মদের আসর বসছে। ইতোমধ্যে পুলিশ অভিযান চালিয়ে মদ, গাঁজাসহ কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ীকে কারাগারে প্রেরণ করলেও বদরখালী ইউনিয়নে অন্তত ৩০টি স্পটে এখনো অঘোষিতভাবে চলছে মাদক বেচাকেনা।

স্থানীয় লোকজনের অভিযোগ, বদরখালী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. ইসমাইল হোসেন ফাঁড়িতে যোগদানের পর থেকে ইউনিয়নের প্রত্যন্ত এলাকার মাদকের বিস্তার ঘটেছে। মাদক নিয়ে পুলিশের টোকেন বাণিজ্যের কারণে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে মাদক কারবারীরা। সম্প্রতি পুলিশ বদরখালী ইয়াবা সিন্ডিকেটের প্রধান জিয়াবুলকে গ্রেপ্তার করলেও তার সহযোগীদের রহস্যজনক কারণে গ্রেপ্তার করছে না 

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান বলেন, মাদক কারবারীদের ব্যাপারে কোনো ছাড় নেই। তাদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এ ব্যাপারে পুলিশের কারো বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ পেলে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


ফেনীতে ২ কোটি টাকার ভারতীয়
ফেনীস্থ (৪ বিজিবি) বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের মিরসরাইয়ের অলিনগর বিওপির মঙ্গলবার
বিস্তারিত
সাংবাদিকের বিরুদ্ধে করা সাইবার ট্রাইব্যুনালে
দৈনিক সময়ের আলো, অনলাইন নিউজ পোর্টাল বিডিমর্নিং ও গাজী টেলিভিশনের
বিস্তারিত
চাঁদপুরে ১৪ বছর জেলখাটা আসামি
চাঁদপুরে ১৪ বছরের জেলখাটা আসামি কর্তৃক ৮ বছরের স্কুলশিক্ষার্থী শিশুকে
বিস্তারিত
সিরাজগঞ্জে পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নির্যাতনের
সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলায় এক পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আদালতে পৃথক দুটি
বিস্তারিত
আগামী সব নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার
প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা বলেছেন, বগুড়ায়
বিস্তারিত
নাটোরে স্ত্রী হত্যায় স্বামীর যাবজ্জীবন
নাটোরের বাগাতিপাড়ায় স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামী মারুফ হাসানকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড
বিস্তারিত