যেসব অসুখের শত্রু আম

বাজারে হাত বাড়ালেই পাওয়া যাচ্ছে পাকা আম। আম পাকা বা কাঁচা যাই খান কেন, আমের রয়েছে নানাবিধ পুষ্টিগুণ। জনপ্রিয়তা ও স্বাদে অন্য ফল থেকে এগিয়ে থাকে আম। কাঁচা আম দিয়ে আমরা সাধারণ আম-তেল, আম ডাল, আমের আচার তৈরি করে খেয়ে থাকি। এছাড়া পাকা আম হলে তো কথাই নেই। আমের গুণের কথা আমাদের অনেকেরই অজানা। পেট, ত্বক ও চুলের যত্নে আমের জুড়ি নেই।

পুষ্টিবিদদের মতে, আমের শাঁস থেকে আঁটি পুরোটাতেই রয়েছে নানাবিধ উপকারিতা। আম খেলে শরীরের অতিরিক্ত মেদ কমে। এছাড়া হজমশক্তি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে এই ফল।আসুন জেনে নেই যেসব অসুখ ছাড়াবে আম

১. আমে রয়েছে উচ্চ পরিমাণে ভিটামিন সি ও ফাইবার। যা রক্তে উপস্থিত খারাপ কোলেস্টরলের মাত্রা কমায়। তাই প্রতিদিন পরিমান মত আম খেতে পারেন।

২.আম শরীরের প্রোটিন অণুগুলো ভেঙে ফেলতে সাহায্য করে। ফলে হজমশক্তি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

৩. আমের আঁশে থাকা ভিটামিন সি ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়। আম বাটা মাখলেও ত্বকে রোমের মুখগুলো খুলে গিয়ে ত্বক পরিষ্কার থাকে।

৪. শরীরে প্রয়োজনীয় ভিটামিন ‘এ’-এর চাহিদার প্রায় পঁচিশ শতাংশের যোগান দিতে পারে আম। তাই আম চোখের জন্যও উপকারী। ভিটামিন এ চোখের দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি এবং রাতকানা রোগ থেকে রক্ষা করে।৫. আমে রয়েছে প্রায় ২৫ রকমের বিভিন্ন কেরাটিনোইডস। তাই আম খেলে আপনার ইমিউন সিস্টেমকে রাখবে সুস্থ ও সবল।

৬. আমের শাঁস থেকে আঁটি পুরোটাই বেশ উপকারী। আমে রয়েছে টারটারিক অ্যাসিড, ম্যালিক অ্যাসিড ও সাইট্রিক অ্যাসিড। যা শরীরের ক্ষার ধরে রাখতে সাহায্য করে।

৭. আমের থাকা অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট ক্যানসার প্রতিরোধে সাহায্য করে।

৮. অপুষ্টিতে ভুগলে এই গরমে প্রতিদিন একটি করে আম খেতে পারেন। শরীরে শক্তি জোগান দিতে আমের জুড়ি নেই।


জেনে রাখেন কমলা খাবেন যে
শীতকালে বাজারে প্রচুর কমলা পাওয়া যায়। কিন্তু সুস্বাধু এই ফলের
বিস্তারিত
প্রস্রাব ধরে রাখতে না পারলে
প্রস্রাব ধরে রাখতে সমস্যা হওয়ার কারণ হঠাৎ মূত্রথলি সংকুচিত বা
বিস্তারিত
কচি আমপাতায় সারাবে যেসব রোগ
শীত শেষ হয়ে শুরু হচ্ছে বসন্ত। তার সঙ্গে আগমন ঘটেছে
বিস্তারিত
ভ্যালেন্টাইন্স ডে’তে সাবধান, চুমুতে ছড়াতে
‘ঠোঁটে ঠোঁট রেখে ব্যারিকেড কর, প্রেমের পদ্যটাই। বিদ্রোহ আর চুমুর
বিস্তারিত
ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি
খাওয়া-দাওয়া, তেজস্ক্রিয়তা, পুরোনো ক্ষতসহ নানা কারণেই শরীরে বাসা বাঁধতে পারে
বিস্তারিত
জেনে নিন যৌন ক্ষমতা বাড়াতে
স্বাস্থ্যকর এবং সুখী যৌন জীবন প্রত্যেকেই চায়। তারপরও কারও কারও
বিস্তারিত