কবিতা

কাজী জহিরুল ইসলাম
গৃহগল্প

দাঁড়াবার জন্য কিছুটা সময় নেয়
এরপর টুপ করে বসে পড়ে গৃহগল্পের মাদুরে
এক সময় সে, এ যৌবন-দম্ভ জুয়াড়ি
হামাগুড়ি দিতে দিতে কত কিছুই না করেছে দাঁড়াবে বলে...
বাড়িটির সদর দরোজা থেকে শোবার ঘরের
বেডসাইড-ড্রয়ার
সর্বত্র ছড়িয়ে আছে তার স্নেহ, প্রেম, কাম, শ্রম।
বিষুবরেখার ভাঁজ খুলে
খুঁজে খুঁজে তুলে আনে হিরন্ময় আলো।
বাগানে রোপণ করে অমিত সন্তান
স্নেহ ঢালে, প্রেম ঢালে
ঢেলে দেয় সঞ্চিত যৌবন
স্প্রিংলার খুলে স্বপ্নজলে ওম দেয় বীজতলা
মননের রোদ ঢেলে জোগায় পাতার পুষ্টি।
আয়ুসন্ধ্যায় পা মেলে লোকটির স্ত্রী লিখতে বসে
বৃত্তাবর্ত গৃহগল্পের নতুন এক পর্ব
যদিও তখনো সে শেখেনি পুরোপুরি জীবনের ব্যাকরণ।

নুরুননাহার ডলি
নতুন বছর

নতুন বছর আমাদের কাছে শান্তির দ্বাররক্ষী হয়ে আসে
আমরা সব কিছুর কাছে সামঞ্জস্য করতে ভালোবাসি
তুমি আমাদেরকে মিলিয়ে দিতে আসো, যেখানে
আমরা উৎসুক হয়ে তোমার জন্য অপেক্ষা করছি।

তুমি ঝোলানো কুসংস্কার দূর করবে
তুমি তোমার কাজ সঠিকভাবে করবে
তুমি ধর্মীয় গোঁড়ামি, বর্ণপ্রথা দূর করে উদযাপিত হও
তোমার ঐশ্বরিক ক্ষমতা আছে, যা সত্যের মতো
তার উপস্থিতি ঘোষণা করে, আর
তুমি তো কোনো বিড়ম্বনা তৈরি করো না।


কোথায় যাই আমি
  কীভাবে কথা বলে পুষ্প ভুলে গ্যাছে। তাহলে এই ভর
বিস্তারিত
অদৃশ্য জাদুঘর
  জাতীয় জাদুঘরের সামনে দৃষ্টিতে ভর দিয়ে দাঁড়ানো লোকটি চায়ের কাপ
বিস্তারিত
ভুলের ভ্রমর
সমস্ত চিন্তার বাঁকে স্পষ্ট মুখ, মেঘ হঠাৎ আকাশ ভেঙে নামে
বিস্তারিত
একটি সনেট
  নিসর্গ আলিঙ্গনে কাটায় তার দুরন্ত বৈকল্য, কণ্ঠক, বিষ, অমৃত, ঔষধি,
বিস্তারিত
অন্ধকার এক নির্মমতার নাম
  বুকের কিনারে ভয়াল সাইক্লোন রেখে        
বিস্তারিত
সুখের অসুখে
  তোমারই রসময় সুখের উঠোনে প্রেমের দর্পণ, প্রাণের তরঙ্গ, ফুলের সুবাস
বিস্তারিত