হৃদয়-ঝরা বৃষ্টির জল

আমার হৃদয়ে অঝোরধারায় বৃষ্টি ঝরে অনেকদিনÑ

ধুলোবৃষ্টি, সাদাবৃষ্টি, কালোবৃষ্টি, লালবৃষ্টি কিংবা এসিডবৃষ্টি।
নীলাভ-নিদাগ আকাশ যেমন থেকে-থেকে মেঘাচ্ছন্ন হয়,
গুরুমগুম হাঁকডাক দেয়, তেমনই। চমকায় কত বিজলি!
চাঁদের আকর্ষণে যেমন সাগরে আসে জোয়ারভাটা, 
সাগর উত্তাল হয়, ভাঙাগড়া হয় ঠিক তেমনই।

হায়, আমার ফেনিল হৃদয়েও ওঠে ঢেউয়ের তা-ব, ম্যাসাকার;
তারপর কখনও মুষলধারায় কখনও বা ঝরঝর-ঝিরঝির ধারায়Ñ
ঝরতে থাকে বেদনার্ত প্রস্রবণ! আমি হই বেসামাল আকাশ।

ডাস্টবিনে শিশুর কান্না দেখলেই নামে তাই এসিডবৃষ্টি,
জ্বালিয়ে দিতে চায় বেশরম সভ্যতা ও পাশবিক হৃদয়!
নিরীহ পথ কিংবা ঘরের ভেতর দেখলেই রক্তাক্ত লাশÑ
হৃদয়ে বয়ে যায় ফনির আঘাত আর ঝরে লাল লালবৃষ্টি।
লঞ্চ-বাস বা দালানের ফাঁদে শোকাতুর লোকের কান্নায়,
আমার পেলব-হৃদয়ে ঝরে শোকার্ত কালোবৃষ্টির ঢলÑ
মজলুমের কান্না, ভাঙাচোরা পথ, যানজটে নাকাল,
দেখলেই আমার শান্ত-হৃদয়ে ঝরে নর্দমার ঘোলা-ধুলোবৃষ্টি।

অথচ কখনও বেদনাক্লিষ্ট মানুষের মুখের স্বস্তির হাসিটাও
আমার হৃদয়ে ঝরায় কী যে সাদাবৃষ্টির স্বচ্ছতোয়া জল।
আমার অদ্ভুত হৃদয়ে জোয়ারভাটার এ সফেন রোগ
বইতে চাই না আর। কেউ করতে পার নাকি নিরাময়?


সাহিত্যে নোবেল জয়ী পিটার হান্ডকে
সাহিত্যে কে পাবেন নোবেল পুরস্কার? এমন প্রশ্নে অবধারিতভাবেই গত কয়েক
বিস্তারিত
বেলা অবেলার গল্প
  বের হয়েছে হামিদ রেজা খানের উপন্যাস ‘বেলা অবেলার গল্প’। এটি
বিস্তারিত
স্নানমুখী এক শাপলা
  আছাড়-পিছাড় খেতে-খেতে হাঁটু তুষার মাড়িয়ে যখন ছুটছি, কেবল ছুটছিÑ
বিস্তারিত
মমি ও লাল টমেটো
তুমি গবেষণগারে তৈরি নতুন একটি লাল টমেটো খেয়ে তিন মাস
বিস্তারিত
তোমারই আঁচল ছায়ায়
  এই যে শরৎ  এই যে নীল-সাদা আকাশ এই যে
বিস্তারিত
একদিন শিহরণ সংগীতে
তরুণীরা ভিজছে, তাদের মানুষ বলে মনেই হচ্ছে না। প্রেমিকের বুকের
বিস্তারিত