জল : ০১

কাজল কাননে পায়ের আলোতে রবির ঘুম ভাঙে রোজ

যাপিত সংসার সুখ-দুখে আঁকে বাজারের ফর্দ
ঠিক জানি ইচ্ছা অনিচ্ছায় আমিও থাকি

বেলকুনির অ্যালোভেরায়, অ্যাকুরিয়ামের বুদবুদে, কার্নিসের চড়–ই ডাকে
ঘামের শরীরের গোসলের ঠান্ডায়, সিদ্ধ আলুর ভাপে,
শব্দশূন্য ঘরে ঘড়ির নিয়ম করা প্যারেডে, মেঝেতে বাতাসের সাথে পাল্লা দিয়ে উড়া
চুলের গোছায়, কিম্বা বুক সেলফের উঁইপোকা গানে।

হাওরের হাইওয়ে সন্ধ্যার তেপান্তরে ঝুলে থাকা ভার্মিলিয়ন রেড আকাশ
টুপ করে ফিরে ঝিঁঝিঁ পোকার অন্ধকার দেশে।
কৈশোরের ঝড়ের মাথায় ফুটবল মাঠ, বরেন্দ্র মাটির উঁচু নিচু আমবাগান, 
শিমুল ফুলের মুখ, শুকনো পাতার বালিশশূন্য বিছানা
কিম্বা জলের পাখোয়াজের কাজল কায়া নদী।


নৈসর্গ, পাহাড় ও নদীর কবি
কবি ও কথাসাহিত্যিক আফিফ জাহাঙ্গীর আলির জন্মদিন পহেলা জানুয়ারি। ১৯৭৮
বিস্তারিত
এলোমেলো
মনে করো কেউ তোমাকে ডাকেনি,  অথচ তুমি শুনতে পাচ্ছো অতল
বিস্তারিত
বুড়ি চাঁদ
সুগন্ধি রোমাল হাতে         তুমি মেপে গেলে ষাঁড়ের
বিস্তারিত
প্রেমিক হতে পারি না আজকাল
প্রেমিকার উষ্ণ চুম্বনে কৃষ্ণগৌড় ঠোঁটে  ভেসে ওঠে শোষিত মানুষের রক্তের দাগ! 
বিস্তারিত
এ মাটি
এ মাটি আমাকে দিয়েছে জীবনের যতো গান, বাতাসে রৌদ্রের ঝিলিমিলি প্রজাপতি
বিস্তারিত
নোনাজলের ঢেউ
যাবতীয় আয়োজন শেষে কত ভেঙেছি  এ নদীতে নোনাজলের মিছিলের ঢেউ  শব্দবাণে
বিস্তারিত