জল : ০১

কাজল কাননে পায়ের আলোতে রবির ঘুম ভাঙে রোজ

যাপিত সংসার সুখ-দুখে আঁকে বাজারের ফর্দ
ঠিক জানি ইচ্ছা অনিচ্ছায় আমিও থাকি

বেলকুনির অ্যালোভেরায়, অ্যাকুরিয়ামের বুদবুদে, কার্নিসের চড়–ই ডাকে
ঘামের শরীরের গোসলের ঠান্ডায়, সিদ্ধ আলুর ভাপে,
শব্দশূন্য ঘরে ঘড়ির নিয়ম করা প্যারেডে, মেঝেতে বাতাসের সাথে পাল্লা দিয়ে উড়া
চুলের গোছায়, কিম্বা বুক সেলফের উঁইপোকা গানে।

হাওরের হাইওয়ে সন্ধ্যার তেপান্তরে ঝুলে থাকা ভার্মিলিয়ন রেড আকাশ
টুপ করে ফিরে ঝিঁঝিঁ পোকার অন্ধকার দেশে।
কৈশোরের ঝড়ের মাথায় ফুটবল মাঠ, বরেন্দ্র মাটির উঁচু নিচু আমবাগান, 
শিমুল ফুলের মুখ, শুকনো পাতার বালিশশূন্য বিছানা
কিম্বা জলের পাখোয়াজের কাজল কায়া নদী।


প্রসন্ন সাঁঝের পাখি ও ভয়াল
পাটাতনে বসে আহত পালাসি-গাঙচিল বিস্ফারিত নয়নে আমাদের দেখছে। ধীরে ধীরে
বিস্তারিত
মাঝ রাতে মির্জা গালিবের শের
আরেক বার দেখা হলে অশুদ্ধ কিছু হবে না মহাভারত, চাই
বিস্তারিত
১৪ বছর বয়সি
রেখা এখন ক্লাস টেন, ক্লাস সিক্স থেকে শুরু হওয়া অপেক্ষা
বিস্তারিত
তুমি যদি এসে
এইসব শিশির ভেজা ফসলের মাঠ নতুন ভোরের সোনালি রোদ্দুর  কৃষকের হাসিমাখা
বিস্তারিত
দেহের নিমন্ত্রণে
কেউ ডাকে দেহের নিমন্ত্রণে কেউ প্রেমেরÑ সঙ্গোপনে কেউবা নিছক খেয়ালের বশে
বিস্তারিত
গাজী আবদুল্লাহেল বাকীর রুবাইয়াতে রূপ
গাজী আবদুল্লাহেল বাকীর রুবাইয়াত মিলবিন্যাস, ছন্দ, বিষয়-বৈচিত্র্য ও আঙ্গিক শোভনে
বিস্তারিত