রংপুরে পল্লী নিবাসে সমাহিত এরশাদ

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে রংপুরে তার নিজ বাসভবন পল্লী নিবাসের লিচুতলায় দাফন করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বিকাল ৫টা ৫০ মিনিটে তাকে যথাযথ সামরিক মর্যাদায় দাফন করা হয়।

বিকাল সাড়ে ৫টায় গান ক্যারেজে বহন করে তার মরদেহ কবরের পাশে নিয়ে যাওয়া হয়। সামরিক রীতি অনুযায়ী দাফনের আগে জীবন বৃত্তান্ত পাঠ করা হয়। দাফনের আগে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এর পর দাফন কার্য সম্পন্ন করা হয়।

গত রোববার (১৪ জুলাই) ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় এইচ এম এরশাদের মৃত্যু হয়। ওইদিন বাদ জোহর ঢাকা সেনানিবাস কেন্দ্রীয় মসজিদে প্রথম জানাজা হয়। সোমবার বিরোধী দলীয় নেতা এরশাদের দ্বিতীয় জানাজা হয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায়। এরপর বাদ আছর বায়তুল মোকররম জাতীয় মসজিদে তৃতীয় দফায় জানাজা হয়।

এরশাদের মৃত্যুর দিনই জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, প্রয়াত এই নেতার দাফন হবে বনানীতে সামরিক কবরস্থানে। তবে রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র ও জাতীয় পার্টির নেতা মোস্তাফিজার রহমানসহ স্থানীয় নেতারা রংপুরের এরশাদকে কবর দেয়ার দাবি করেন।

আজ সকাল সাড়ে ১০টায় বিমানবাহিনীর একটি হেলিকপ্টার ঢাকা তেজগাঁও বিমানবন্দর থেকে এরশাদের কফিন নিয়ে রংপুরের উদ্দেশে রওনা হয়। কফিনের সঙ্গে ছিলেন জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও এরশাদের ছোট ভাই জি এম কাদের, এরশাদের ছেলে রাহগির আল মাহি শাদ এরশাদ, জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাসহ একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা।

বেলা ১২টার পর ঈদগাহ ময়দানে এরশাদের মরদেহ নেওয়ার পর থেকেই সেখানে রাখা মাইকে এরশাদকে রংপুরে দাফনের দাবি ওঠে। জানাজার আগে বক্তৃতায় মেয়র মোস্তাফিজ এই দাবি আবারও তোলেন। এরপর জি এম কাদের বক্তব্য শুরু করেন। কিন্তু তাঁর বক্তব্যের মাঝেই দাফনের বিষয়টি উল্লেখ করে শ্লোগান শুরু হয়। বেলা ২টা ২৫ মিনিটে এরশাদের জানাজা শুরু হয়।

জানাজার পর শত শত কর্মী এরশাদের মরদেহ বহনকারী গাড়িটি ঘিরে ধরে। তারা রংপুরে কবর দেওয়ার দাবি করেন। রংপুরের মানুষের ভালবাসার প্রতি শ্রদ্ধা রেখে রংপুরেই এরশাদকে দাফন করার অনুমতি দেন রওশন এরশাদ।

এ সময় মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক, রংপুর সেনানিবাসের জিওসি মেজর জেনারেল নজরুল ইনলাম, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা, সাবেক মহাসচিক রুহুল আমিন হাওলাদার, রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা ও এরশাদ পুত্র স্বাদ, এরশাদের ভাতিজা আসিফ শাহরিয়ার, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, রংপুর মহানগরের সাধারণ সম্পাদক এস.এম ইয়াসির গাইবান্ধা জেলা সভাপতি ও প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রশিদ, কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তফা কামাল ফারুক, পঞ্চগড় জেলা সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আবু সালেক, দিনাজপুর জেলা সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রুবেল, সাবেক সংসদ সদস্য সাহানারা বেগম, রংপুর জেলার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হাজী আব্দুর রাজ্জাক, জয়পুরহাট জেলা সভাপতি তিতাস মোস্তফাসহ সেনাবাহিনীরপদস্থ কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

আগামীকাল এরশাদের কুলখানী
আগামীকাল ১৭ জুলাই আছর নামাজের পর গুলশান আজাদ মসজিদে সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের কুলখানী অনুষ্ঠিত হবে। হুসেই মুহম্মদ এরশাদের রুহের মাগফিরাত কামনায় সবাইকে কুলখানীতে অংশ নিতে অনুরোধ জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব এবং সংসদে বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি।


ময়মনসিংহে ট্রাক চাপায় ট্রাফিক কনস্টেবল
ঈদ উপলক্ষে ময়মনসিংহ-শেরপুর, নেত্রকোনা ও কিশোরগঞ্জ সড়কে গাড়ির চাপ বেড়ে
বিস্তারিত
বরগুনায় স্কুলছাত্রী ধর্ষণ মামলার আসামী
বরগুনার আমতলী উপজেলার কাঠালিয়া তাজেম আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের স্কুলছাত্রী ধর্ষনের
বিস্তারিত
চৌগাছায় সাপের কামড়ে বৃদ্ধার মৃত্যু
যশোরের চৌগাছায় বিষাক্ত সাপের কামড়ে ফাতিমা বেগম (৬০) নামের এক
বিস্তারিত
গোপালগঞ্জে বাসচাপায় শিশু নিহত
গোপালগঞ্জে বাসের চাপায় আমিন শেখ (১১) নামে এক শিশু নিহত
বিস্তারিত
মাগুরায় সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী
মাগুরা-শ্রীপুর সড়কের বরিশাট চারাবটতলা এলাকায় শনিবার সকাল ৭টার দিকে সড়ক
বিস্তারিত
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সার্কেল অফিসের
কিশোরগঞ্জের ভৈরবে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সার্কেল অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে নানা
বিস্তারিত