মৌরিতানিয়ায় গ্রীষ্মের ছুটিতে কোরআনি শিক্ষার আসর

রাজধানীতে নুয়াকশুতের একটি মহল্লার কুঁড়েঘরের ছায়ায় কিছু শিশু বসে আছে। শিশু আহমাদু ওয়ালাদ সাইয়্যিদি আলী সহপাঠীদের মধ্যে বসতে তার জায়গা করে নিচ্ছে। সহপাঠীরা দুপুর পর্যন্ত নতুন কোরআনি পাঠ নেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। এটা মূলত মৌরিতানিয়ার ঐতিহ্যবাহী কোরআনি শিক্ষাব্যবস্থা। (যা আমাদের দেশের কওমি মাদ্রাসার মতো)। তারা তাদের এ প্রতিষ্ঠানকে মাহযারা বলে ডাকে। 
এখানে বাচ্চারা সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত কোরআন শিক্ষা গ্রহণ করে। বর্তমানে যা সাধারণ শিক্ষাব্যবস্থার কারণে চ্যালেঞ্জের মুখে। 
ভোরবেলা ঘুম থেকে ওঠা
পরিবারের বড়রা শিশুদের বাড়ির পাশে এ কোরআনি শিক্ষাকেন্দ্রে পাঠাতে ফজরের নামাজের আগেই শয্যা ত্যাগে অভ্যস্ত করে তোলে। সঙ্গে থাকে কোরআনি পাঠ লেখার জন্য বিশেষভাবে তৈরি কাষ্ঠফলক। শিক্ষার্থীরা শিক্ষকের তৈরি কাঠের কুঁড়েঘরে বাতির আলোয় ওই কাষ্ঠফলকের ওপর লিখে লিখে কোরআন পড়া শেখে, লেখা শেখে এবং কোরআন মুখস্থ করে।
শিক্ষার্থী ওয়ালাদ সায়্যিদি আলী জানান, বেশ কিছু শিশু তো তার আগে ফজরের আগেই মক্তবে চলে যায়। শিক্ষক কুঁড়েঘরের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতাসহ অন্যান্য কাজের জন্য তাদের আগেই প্রস্তুত থাকেন।
ফজর নামাজের আগেই পাঠদান শুরু হয়ে ৮টা বা ৯টায় নাশতার জন্য বিরতি দেওয়া হয়। শিশুরা বাসা থেকে নাশতা করে আবার দলে দলে নতুনভাবে নতুন পাঠ লেখার জন্য মাদ্রাসায় ফিরে আসে। এভাবে ১১টা পর্যন্ত জোহর থেকে আসরের নামাজের আগ পর্যন্ত তারা মাদ্রাসাতেই থাকে। মাগরিবের আগে তারা বাড়ি ফিরে আসে। 
গ্রীষ্মের ছুটি
মাদ্রাসাতুল ফাতহের শিক্ষক সাফি ওয়ালাদ ঈসা নাজাহুল্লাহ বলেন, গ্রীষ্মের ছুটিতে সন্তানদের কোরআন শিক্ষা দিতে আগ্রহী পরিবারের আগ্রহের কারণে কোরআন শিক্ষার প্রতিষ্ঠানগুলোতে বেশ প্রাণচাঞ্চল্য দেখা দেয়। তার মতে, মে মাসে সাধারণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মাদ্রাসায় অন্য সময়ের বিবেচনায় শিক্ষার্থীর সংখ্যা অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে।
তিনি আরও বলেন, কোরআন হেফজ অনেক মৌরিতানিয়াবাসীর কাছে অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত বিষয়। কিছু কিছু পরিবার তাদের সন্তানদের প্রচলিত শিক্ষা ও কোরআনি শিক্ষার মধ্যে সমন্বয় করে একসঙ্গেই পড়ায়। অনুরূপভাবে গ্রীষ্মের ছুটিতে মাদ্রাসাগুলোতে কোরআন শিক্ষার গুরুত্ব বেড়ে যায়। প্রচলতি শিক্ষাব্যবস্থার চাপে অনেক পরিবার তাদের সন্তানদের কোরআন শিক্ষা দিতে পারে না। তারা গ্রীষ্মের ছুটিতে দেশজুড়ে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা শিক্ষাকেন্দ্রে তাদের সন্তানদের শিক্ষা দেয়।
রাজধানী নুয়াকশুতে প্রতিষ্ঠিত মাহযারাতুল ফাতহ সাত বছর আগে প্রতিষ্ঠিত হয়। মাহযারার শায়েখ বলেন, সে সময় থেকে তিনি বাচ্চাদের পাঠ দিয়ে আসছেন। প্রচলিত শিক্ষাব্যবস্থার বার্ষিক ছুটিতে মাহযারায় খুবই ব্যস্ততা বেড়ে যায়। কারণ অধিকাংশ শিক্ষার্থী একই সঙ্গে প্রচলিত সরকারি ও মাহযারি শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে না।
মাহযারায় হিজরত
এ শিক্ষাব্যবস্থায় কোরআন শিক্ষার পাশাপাশি আরবি ভাষা ও উলুমুশ শরিয়াও (শরিয়তের বিষয়) শিক্ষা দেওয়া হয়। মাহযারার এ বিভাগে গ্রীষ্মের ছুটিতে শিক্ষার্থীদের আগমন বেড়ে যায়। সাধারণ স্কুল, কলেজ ও ভার্সিটির শিক্ষার্থীরা তাদের প্রতিষ্ঠান বন্ধের পর এখানে আরবি ভাষা ও উলুমুশ শরিয়া গ্রহণের জন্য ভিড় করে।
মাহযারার আরবি ভাষা ও উলুমুশ শরিয়ার শিক্ষার্থী মুহাম্মাদ ফাল ওয়ালাদ সায়্যিদ মনে করেন, গ্রীষ্মকালীন ছুটিতে এটা সাধারণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভার্সিটির শিক্ষার্থীরাও এখানে শিক্ষাগ্রহণ করতে আসে। তিনি আরও মনে করেন, ‘প্রচলিত শিক্ষাব্যবস্থার ব্যাপক প্রচার সত্ত্বেও মাহযারি শিক্ষার আবেদন মানুষের কাছে রয়েছে। এটাকে দেশের মূল শিক্ষাব্যবস্থা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। কোনো পরিবারের সন্তানদের জন্য মাহাযির থেকে বিশেষত গ্রীষ্মের ছুটিতে অনুপস্থিত থাকাটা এক কথায় অসম্ভব।
সমাজের গভীরে প্রোথিত যার শাখা  
দেশের সব জায়গায় ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে থাকা মাহযারকে শিক্ষাদানের প্রাচীন ধারা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এগুলোকে কোরআন, আরবি ভাষা ও উলুমুশ শরিয়ার শিক্ষাদানের ভ্রাম্যমাণ স্কুল ও ভার্সিটি হিসেবে বিবেচনা করা হয়। আধুনিক শিক্ষার প্রচার সত্ত্বেও এ ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাব্যবস্থা তার আবেদন ও মূল্যবোধ বজায় রাখছে।
মাহযারাতুল ফাতহের শিক্ষক মনে করেন, কোরআন ও উলুমুশ শরিয়া শিক্ষাদানের জন্য প্রতিষ্ঠিত এ মাহযারাগুলো তার লক্ষ্য বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছে। এ শিক্ষা মূলত ছাদহীন খোলা জায়গায় দেওয়া হয়। রাতের বেলা কাষ্ঠফলক পড়ার জন্য বাচ্চারা ও শিক্ষার্থীরা কাঠ জ্বালিয়ে পড়ালেখা করে।
শায়েখ ওয়ালাদ ঈসা নাজাহুল্লাহ বলেন, বর্তমানে যদিও কিছু কিছু মাহযার বিল্ডিং তৈরি করেছে। অন্যরা এখনও কুঁড়েঘরেই শিক্ষাদান অব্যাহত রেখেছে। কোনো কোনো গ্রামে গাছের তলায় বা উন্মুক্ত স্থানে শিক্ষাদানের পর তাঁবুর ভেতর শিক্ষা দেওয়া হয়।

 আলজাজিরা থেকে ভাষান্তরিত


ঘুষখোরদের ওপর আল্লাহর লানত
অবৈধ আয়ের উদ্দেশ্যে জনগণের ওপর কখনও সরাসরি কখনও পরোক্ষভাবে জুলুম
বিস্তারিত
বাজারে সরবরাহ অব্যাহত রাখার ফজিলত ফিরোজ
  আল্লাহ আমাদের রিজিক দাতা। তিনি আমাদের দুনিয়ায় পাঠানোর আগে রিজিকের
বিস্তারিত
সুপারিশে সওয়াব মেলে
রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেনÑ আমি শুধুই একজন সুপারিশকারী। (অর্থাৎ এটা তোমার
বিস্তারিত
ব্যবসায়িক চুক্তি প্রসঙ্গে
প্রশ্ন : মোশাররফ ও হাসান একটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেছেন। শ্রম
বিস্তারিত
ঊর্ধ্বলোকের সূর্যের সন্ধানী হও
  এক লোকের বউটা ছিল দুষ্টু প্রকৃতির, লোভী ও পেটুক। তবুও
বিস্তারিত
পাথেয়
প্রত্যেকের সঙ্গে ফেরেশতা ও  শয়তান থাকে যুবাইর বিন সাঈদ থেকে বর্ণিত,
বিস্তারিত