মাদ্রাসা শিক্ষার ঐতিহ্য ও অস্তিত্ব রক্ষার আহ্বান

মাদ্রাসা শিক্ষার ঐতিহ্য ও অস্তিত্ব গভীর সংকটের সম্মুখীন। অথচ মাদ্রাসা শিক্ষার সুবিধাভোগী মহল উদাসীনতার গভীর ঘুমে তলিয়ে রয়েছে। এ অবস্থায় ইসলামী শিক্ষার বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র রুখে দাঁড়াতে অতীতের মতো জমিয়তে তালাবায়ে আরাবিয়ার সাবেক ও বর্তমান কর্মীদের শপথ নিতে হবে। মাদ্রাসাছাত্রদের শতাব্দীকালের ঐতিহ্যবাহী ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ জমিয়তে তালাবায়ে আরাবিয়ার সাবেক সদস্যদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে সভাপতির ভাষণে ড. মুহাম্মদ ঈসা শাহেদী এ কথা বলেন। 
তিনি আরও বলেন, মওলানা আকরম খাঁ ও মওলানা মুনীরুজ্জমান ইসলামাবাদীর হাত ধরে প্রতিষ্ঠিত জমিয়তে তালাবা ইতিহাসের সুদীর্ঘ পরিক্রমায় মাদ্রাসা শিক্ষার উন্নয়ন ও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ও আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করেছে। দুঃখজনক হলেও সত্য, মাদ্রাসা শিক্ষাকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় এখন সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরিত হয়েছে। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠিত আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ও মাদ্রাসা শিক্ষার ঐতিহ্য পুনঃপ্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে কোনো অবদান রাখতে পারছে না। যেসব মাদ্রাসায় অনার্স কোর্স চালু করা হয়েছে, সেখানে অনার্স-মাস্টার্সের শিক্ষকদের এমপিওভুক্তি না থাকায় উপযুক্ত শিক্ষক পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে প্রতিযোগিতামূলক শিক্ষার বর্তমান যুগে মাদ্রাসাগুলোতে ছাত্রশূন্যতার হাহাকার চলছে। ইবতেদায়ি মাদ্রাসাগুলোতে প্রাইমারি স্কুলের মতো সুযোগ-সুবিধা না থাকায় ছাত্র জোগান হচ্ছে না। অপরিকল্পিতভাবে আধুনিক সাবজেক্টের বোঝার চাপে মাদ্রাসাগুলোর দ্বীনি শিক্ষার করুণ অবস্থা চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা যাবে না। 
ড. শাহেদী আরও বলেন, নতুন শিক্ষানীতিতে জেনারেল শিক্ষায় এতদিন ধরে স্কুলের নবম-দশম শ্রেণিতে বাধ্যতামূলক ১০০ নম্বরের ইসলামী শিক্ষা ঐচ্ছিক করে দেওয়া হয়েছে। কলেজগুলোতে নতুন করে কোনো ইসলামিক স্টাডিজের অনুমোদন দেওয়া হচ্ছে না। সব মিলিয়ে শিক্ষাব্যবস্থা থেকে সন্তর্পণে ইসলামী শিক্ষা নির্বাসন দেওয়ার পরিকল্পনা চূড়ান্ত করা হয়েছে। অথচ দেশকে নৈতিক অনাচার থেকে রক্ষার জন্য ধর্মীয় শিক্ষার বিকল্প নেই বলে অভিজ্ঞ মহল মনে করে। মাদ্রাসা শিক্ষার এহেন দুর্দিনে অতীতের সংগ্রামী চেতনা নিয়ে জাগ্রত হওয়া ও জাতিকে জাগ্রত করার চিন্তা থেকেই আজকের পুনর্মিলনীর আয়োজন করা হয়েছে। 
২০ জুলাই ঢাকায় ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন মিলনায়তনে আয়োজিত ওই পুনর্মিলনীতে সাবেক তালাবা নেতাদের মধ্য বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক মাওলানা এটিএম হেমায়েত উদ্দিন, অধ্যাপক মাওলানা এরশাদ উল্যাহ ভূঁইয়া, অধ্যক্ষ মুহাম্মদ শওকাত হোসেন, মাওলানা মুহাম্মদ রুহুল আমীন, অধ্যাপক মাওলানা মুহিবুল্লাহ নাসির, অধ্যক্ষ মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান, অধ্যক্ষ অ্যাডভোকেট মনিরুজ্জামান, অ্যাডভোকেট আবু হানিফ, মাওলানা কাজী সাইফুদ্দীন, মাওলানা সুরুজুজ্জামান, অধ্যাপক মোস্তফা তারেকুল হাসান, অধ্যাপক মাওলানা মো. কামাল উদ্দীন, মাওলানা মাহফুজুর রহমান, ডা. সাখওয়াত হুসাইন, অ্যাডভোকেট ওয়াজী উল্লাহ তাওহীদ, মাওলানা মাকসুদ উল্লাহ আমীনী, মাওলানা মো. আবু বকর সিদ্দিক, অ্যাডভোকেট মাওলানা ওয়াহিদুজ্জামান, মাওলানা মো. নুরুল হুদা। বর্তমান নেতাদের মধ্যে কেন্দ্রীয় সভাপতি মো. আবদুর রহমান, সেক্রেটারি জেনারেল মোস্তফা আল মুজাহিদ, ইবি তালাবার সভাপতি মো. জহিরুল ইসলামও বক্তব্য রাখেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি


ঘুষখোরদের ওপর আল্লাহর লানত
অবৈধ আয়ের উদ্দেশ্যে জনগণের ওপর কখনও সরাসরি কখনও পরোক্ষভাবে জুলুম
বিস্তারিত
বাজারে সরবরাহ অব্যাহত রাখার ফজিলত ফিরোজ
  আল্লাহ আমাদের রিজিক দাতা। তিনি আমাদের দুনিয়ায় পাঠানোর আগে রিজিকের
বিস্তারিত
সুপারিশে সওয়াব মেলে
রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেনÑ আমি শুধুই একজন সুপারিশকারী। (অর্থাৎ এটা তোমার
বিস্তারিত
ব্যবসায়িক চুক্তি প্রসঙ্গে
প্রশ্ন : মোশাররফ ও হাসান একটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেছেন। শ্রম
বিস্তারিত
ঊর্ধ্বলোকের সূর্যের সন্ধানী হও
  এক লোকের বউটা ছিল দুষ্টু প্রকৃতির, লোভী ও পেটুক। তবুও
বিস্তারিত
পাথেয়
প্রত্যেকের সঙ্গে ফেরেশতা ও  শয়তান থাকে যুবাইর বিন সাঈদ থেকে বর্ণিত,
বিস্তারিত