খালের পানিতে বিষ প্রয়োগে মাছ শিকার: প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিন

হায়রে ক্ষুদে প্রজন্ম তোমাদের জন্মদিয়ে ছেড়ে দিয়েছি ধরণীর আস্তাকুড়ে। একটিবারও ভাবছিনা কী রেখে যাচ্ছি তোমাদের তরে। নিংড়ে গলধগরন করছি ওই রাক্ষুসে ম্যানহোলের মতো। ধরণীর রূপ রস গন্ধ সব চুষে খেয়ে গেলাম, তারপরেও  পেট ভরছেনা।

অন্যায় ভাবে নিজ স্বার্থ আদায়ে সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ছড়িয়ে পড়েছে অমানবিক দুর্নীতি। কৃষক- মজুর -জেলে - তাতী থেকে শুরু করে উপরমহলসহ গোটা সমাজ আজ দুর্নীতির কালো চাদরে আবৃত হয়ে আছে। আর দায়িত্বশীল এক শ্রেণীর মানুষ ফায়দা লুটছে। এর থেকে পরিত্রানের কি কোনো উপায় নেই আমাদের ? 

প্রায় ২৫ বছর পর ফেব্রুয়ারির প্রথমদিকে একটি ব্যক্তিগত জরুরী কাজে বরগুনায় আমার গ্রামের বাড়ি যাই। সেখান থেকে প্রাইভেট গাড়ি করে ঢাকার উদ্দেশ্যে ফেরার পথে একটি সেতু পাড় হওয়ার সময় লক্ষ করলাম খালের দুই পাড়ে সুন্দর সমান্তরাল  করে কিছু বিছিয়ে রাখা হয়েছে। 

ওখানে গাড়ি থামিয়ে কৌতুহলের বশে আশেপাশে থাকা লোকজনদের কাছে জানতে চাইলাম খালে এতো সুন্দর করে কী এবং কেনো বিছানো হয়েছে? ওখানকার এলাকাবাসী
যা বললেন, তা শুনে আমি বিস্ময়ে হতবাক!

লোকজন বললেন সারা খালের মধ্যেই এমনি করে কারেন্ট জাল বিছিয়ে রাখা হয়েছে।  খালের মাঝখানে জাল খালের তলদেশ পাওয়ার জন্য মাঝে মাঝে ইট ছড়িয়ে রাখা হয়। তারপর ৫/৭ দিন এমনি রাখলে  মাছ নিরাপদে বাস করতে থাকে।  তখন মাছ শিকারীরা চারপাশ থেকে জাল গুটিয়ে পোনাসহ মাছ মারে। জিজ্ঞেস করলাম, মৎস্য বিভাগ বিষয়টি তদারকি করছেনা?  জানতে পারলাম,মৎস্য বিভাগ থেকে মাঝে মাঝে এসে তাদের ভাগের মাসোহারা টাকা নিয়ে নেয়। এই বিষয়ে কোনো অভিযোগ করেও কোনো সুরাহা পাওয়া যায়না। এতে প্রভাবশালী মহল ও জেলেরা জড়িত বলে গরীব কৃষক জনসাধারণ বাচ্চাদের মুখে দুটো ছোটমাছও তুলে দিতে পারেনা। এই বিষয়টি আমি তাৎক্ষণিকভাবে ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে দিয়েছিলাম ছবিসহ।

নিচের তিনটি চিত্রই চলার পথে আমার নিজ হাতে মোবাইল ক্যামেরায় তোলা। খাল বিলের পাশে রাস্তা দিয়ে গাড়িতে চলতে চলতে এমন অনেক দৃশ্য আমার দৃষ্টিতে পড়েছে।  প্রথমে বুঝতে পারিনি  একটি ব্রিজের উপরদিয়ে ধীর গতিতে চলার সময় আমার ড্রাইভারকে জিজ্ঞেস করলাম, খালটি এভাবে পলিথিন দিয়ে মোড়ানো কেনো ?  ড্রাইভার যা বললো তাতে আমার হৃদয় মোচড় দিয়ে উঠলো ক্ষণিকের জন্য, উহ্ ! এও হতে পারে ?

বন্ধুগণ ! একবার ছবির প্রতি চোখ বুলিয়ে দেখুন ! পুরো খালটির পাড় থেকে অতল পর্যন্ত বিছানো হয়েছে কারেন্ট জাল। উপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে জোয়ার - ভাটা। মাছেরা রেণুসহ চলাফেরা করে নিশ্চিন্তে। তাপর মৎস্য শিকারী সুযোগ সুবিধা মতো চুপিসারে  চারপাশ থেকে ঘেরাও করে মা ও শিশুমাছ নিধন করে পেটপুরে খায়।  একবারের জন্যও ভাবেনা ওরা, কি খাবে তাদের প্রজন্ম পরম্পরায়।  

একটু খোঁজ নিতে বেড়িয়ে এলো আরো মর্মান্তিক কথা।  যারা এই মাছের পোনার রক্ষক, তাদেরকে আবার দিতে হয় মাসোহারা। হায়রে হতভাগা দেশের মানুষ। কবে আবার তোরা মানুষ হবি ? শুদ্ধ দেশের পরিশুদ্ধ মানুষ চাই ! কবে আসবে ফিরে সেইদিন ?


 এটা সেই খালের তখনকার দৃশ্য

৩/৪ দিন আগে আমার একজন ফেসবুক বন্ধু মাছ শিকারের একটি আশ্চর্যজনক। ভিডিও পাঠায়। ভিডিওচিত্র এবং কথোপকথন থেকে দেখা ও জানা যায় যে, সুন্দরবন সংলগ্ন খালগুলি এখন অসৎ মৎস্য শিকারীরা নিয়ন্ত্রণ করছে। তারা পুরো খাল জুড়ে জালের ফাঁদ পেতে খালের পানিতে বিষ ঢেলে মিশিয়ে দিচ্ছে। ছোট মাছের জন্য এক ধরণের বিষ এবং বড় মাছের জন্য একধরণের বিষ পানিতে মেশান তারা। বিষ পানিতে মেশালে মাছগুলো নিস্তেজ হয়ে জালে আটকে যায়। সুন্দরবনের একপ্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত পর্যন্ত চলছে এমন অবৈধভাবে মাছ শিকার। ভিডিওতে আরো দেখা যায় কেউ একজন জানতে চাইছে এভাবে মাছ শিকারে তারা বাধার সম্মুখীন হচ্ছে কিনা? সেখান থেকে জানা যায় একটি মহলের।ছত্রছায়ায় তারা এমন প্রক্রিয়ায় মাছ ধরছে এবং সেই মহলটিকে মাসোহারা দিতে হয়। তারা নির্বিঘ্নে পানিতে বিষ মিশিয়ে পানি ছেকে মাছ সংগ্রহ করছে। ফলে বিলীন হয়ে যাচ্ছে মৎস্য প্রজাতি।

সুন্দরবনের বিষ প্রয়োগে মাছ শিকারের ভিডিওটি দেখুন এই লিংকে...

https://www.facebook.com/100006688815935/videos/2413657405533863/ 

এ ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলেছে। এর ফলে মাছের সাথে সাথে অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ জলজ প্রাণী মারা গিয়ে একদিকে যেমন পরিবেশের উপর বিরূপ প্রভাব পড়ছে অন্যদিকে বিষ প্রয়োগে শিকার করা মাছ খেয়ে মানুষসহ অন্যান্য প্রাণী স্বাস্থ্যগতভাবে মারাত্মক ক্ষতির মুখে পড়ছে। বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেল ও পত্রপত্রিকায় এনিয়ে সংবাদ প্রকাশ হলেও অবস্থার কোনো উন্নতি হচ্ছে বলে মনে হয় না। গত কয়েক মাসে প্রকাশিত দেশের দৈনিক পত্রিকা পর্যবেক্ষণ করলেই এর সত্যতা বেড়িয়ে আসবে। 

বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত খবর ও ভিডিও চিত্রে যা দেখতে পাওয়া যায় তা ভয়ঙ্কর এবং আমরা মনে করি দিনে পর দিন এভাবে চলতে দেয়া যায় না। এই মারাত্মক ক্ষতিকর প্রক্রিয়ায় মাছ ধরার ফলে একদিকে যেমন সুন্দরবনের মতো গুরুত্বপূর্ণ মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্রের ক্ষতি হচ্ছে অন্যদিকে রেহাই পাচ্ছে না নদী আর খালের মতো জলাশয় সমূহ। আবার সেই বিষ ক্রিয়ায় আক্রান্ত মাছ খেয়ে মানুষের স্বাস্থ্যগত সমস্যা দেখা দেবার পাশাপাশি বিষাক্ত জলাশয়ের পানি পান করে জীবন হারাচ্ছে জলজ ও স্থলজ বন্যপ্রাণী। তাই এখনই এবিষয়ে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন। শুধু আইন প্রয়োগ করে এর সমাধান যেমন করা সম্ভব নয় তেমন কেবলমাত্র সচেতনতা বাড়িও এর প্রতিকার পাওয়া অসম্ভব। তাই প্রয়োজন আইন প্রয়োগের পাশাপাশি সচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে কার্যকর ও টেকসই কৌশল অবলম্বনের। নাহলে এই বিষক্রিয়ার ফলে আগামীতে আমরা হয়তো পেতে থাকবো ভয়ঙ্কর বিকলাঙ্গ ও প্রতিবন্ধী এক প্রজন্মকে। যা দেশের জন্য কখনো কাম্য হতে পারেনা। 

ফিরোজা সামাদ: লেখক ও কলামিস্ট


১৫ আগস্ট: বঙ্গবন্ধুর ২০ উক্তি
আজ জাতীয় শোক দিবস। ১৯৭৫ সালের এই দিনে স্বাধীনতাবিরোধীদের চক্রান্তে
বিস্তারিত
বিশ্বের বিস্ময়ের আরেক নাম বঙ্গবন্ধু
বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ অবিচ্ছেদ্য ইতিহাস। দেশ এবং দেশের মানুষের প্রতি
বিস্তারিত
এখনো রক্তের রঙ ভোরের আকাশে
‘ ... ১১ (১৯৬৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাস) তারিখে রেণু এসেছে
বিস্তারিত
কাশ্মীরের পরিস্থিতি কোন দিকে
কাশ্মীরের পরিস্থিতি এখন কোন দিকে? কাশ্মীরের উত্তেজনার পরিস্থিতি কি আরেকটি
বিস্তারিত
যে পাঁচটি কথা বাবা-মাকে না
সন্তান লালন-পালন করা প্রত্যেক বাবা-মার সবচেয়ে বড় দায়িত্ব। তবে সন্তানকে
বিস্তারিত
শয়তানের তাড়নায় ধর্ষণ!
হঠাৎ করেই দেশে শয়তানের তাড়না শুরু হয়েছে। কেন বললাম? কারণ
বিস্তারিত