ইসহাক (আ.) এর স্মৃতি

ফিলিস্তিনের হেবরন বা আল-খলিল (আরবি) শহর ইসলাম, ইহুদি ও খ্রিষ্টান এ তিন ধর্মাবলম্বীদের কাছেই পবিত্র স্থান। এই শহরের পবিত্রতম স্থানটি হচ্ছে মসজিদই খলিল বা মসজিদই ইবরাহিমি তথা কেইভ অব ম্যাকফেলা। বাইবেলের বর্ণনা অনুযায়ী হজরত ইবরাহিম (আ.) এ জায়গাটি তার স্ত্রী সারার মৃত্যুর পর পারিবারিক সমাধির জন্য ক্রয় করেছিলেন। সেখান থেকেই এর নাম হয় কেইভ অব ম্যাকফেলা, যার মানে দাঁড়ায় দুজনের সমাধি। যেখানে ইবরাহিম ও তার স্ত্রী সারা এবং পুত্র ইসহাক ও তার পুত্র ইয়াকুবের কবর রয়েছে। 
৬৩৭ খ্রিষ্টাব্দে অঞ্চলটি মুসলমানদের দখলে আসে এবং এখানে ছাদসহ একটি মসজিদ নির্মাণ করা হয়। ১১০০ সালে মসজিদটি ক্রুসেডের সময় খ্রিষ্টানদের দখলে চলে যায়। তখন মুসলমানদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়। মসজিদটি ফের সালাহউদ্দীন আইয়ুবীর নেতৃত্বে মুসলমানদের দখলে আসে ১১৮৮ সালে এবং আবার মসজিদে রূপান্তরিত হয়। গাজী সালাহউদ্দীন আইয়ুবী মসজিদের চারদিকে চারটি মিনার এবং মিম্বর তৈরি করেন, যার মধ্যে দুটি মিনার আজও টিকে আছে।
১৯৯৪ সালে চরমপন্থি বাসিন্দা বারুচ গোল্ডেন স্টেইচ ২৯ জন ফিলিস্তিনিকে মসজিদের মধ্যে ইবাদতরত অবস্থায় হত্যা করে। পরে ইসরাইলি কর্তৃপক্ষ মুসলিম ও ইহুদিদের প্রার্থনার জায়গা আলাদা করে দেয়। তাছাড়া ইবরাহিমি মসজিদে কয়েকটি আজানের ক্ষেত্রে বিধি আরোপ করা হয়। তখন থেকে মাগরিবের আজান উচ্চৈঃস্বরে দেওয়া যায় না। শুক্রবার মাগরিব ও এশার আজান এবং রোববারে ইহুদিদের সাপ্তাহিক প্রার্থনার দিনে ফজর, জোহর, আসর ও মাগরিবের আজান দেওয়ার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। মাঝেমধ্যেই ইহুদিদের উৎসব পালন করার জন্য ইবরাহিমি মসজিদ বন্ধ করে দেয় ইসরাইলি কর্তৃপক্ষ।
হেবরনে ১৬ হাজার ফিলিস্তিনি মুসলমান ও ৪০০ ইহুদি বসতি রয়েছে। ছিটমহলে এ কয়েকজন ইহুদির জন্য ১৫০০ ইসরাইলি সেনা মোতায়েন থাকে।


বায়তুল মোকাররমে ঈদের জামাতের সময়
পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে প্রতি বছরের মতো এবারও বায়তুল মোকাররম
বিস্তারিত
জুমাতুল বিদা আজ
আজ মাহে রমজানুল মোবারকের ২৮ তারিখ। আজ জুমাবার। এটাই এ
বিস্তারিত
চোখের পলকে পুলসিরাত পার করে
চলছে পবিত্র রমজান মাস। সিয়াম-সাধনার এ মাস জুড়েই রয়েছে রহমত,
বিস্তারিত
কাল পবিত্র লাইলাতুল কদর
হাজার মাসের চেয়ে শ্রেষ্ঠ রাত পবিত্র 'লাইলাতুল কদর'। মহিমান্বিত এ
বিস্তারিত
১০ বার কোরআন খতমের সওয়াব
একে একে শেষ হয়ে যাচ্ছে রহমত, মাগফিরাত আর নাজাতের দিনগুলো।
বিস্তারিত
মাগফিরাতের ১০দিন শুরু এবং আমাদের
আজ থেকেই শুরু হবে মাগফিরাতের ১০ দিন। দুনিয়ার সকল গোনাহগার
বিস্তারিত