‘সীমা অতিক্রম করেছেন জাকির নায়েক’

মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত ভারতের বিশিষ্ট ইসলামি চিন্তাবিদ ও তুখোড় বক্তা জাকির নায়েক বর্ণবাদী রাজনীতি নিয়ে কথা বলতে গিয়ে সীমা অতিক্রম করে ফেলছেন। এ মন্তব্য করেছেন স্বয়ং মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ। ফলে জাকির নায়েককে তিনি মালয়েশিয়ায় কোনো রকম রাজনৈতিক বক্তৃতা দেয়া থেকে বিরত থাকারও পরামর্শ দিয়েছেন।

ভারত থেকে পালিয়ে মালয়েশিয়ায় আশ্রয় নেয়া জাকির নায়েকের প্রতি অতীতে বেশ কয়েকবার নিজের সমর্থন জানালেও রোববার নিজের সুর পাল্টে ফেলেন মাহাথির মোহাম্মদ। কুয়ালালামপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, সাম্প্রতিক বর্ণবাদী মন্তব্যের মাধ্যমে জাকির নায়েক অনেক দূরে চলে গেছেন।

সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে দেশটির সংখ্যালঘু চীনাদের নিয়ে একটি বিতর্কিত মন্তব্য করেন জাকির নায়েক। ওই বক্তব্যে তিনি মালয়েশিয়ায় বসবাসরত চীনা বংশোদ্ভূত নাগরিকদের আগে দেশে ফেরার আহ্বান জানান।

ওই অনুষ্ঠানে তিনি আরো বলেন, ভারতের সংখ্যালঘু মুসলিমদের চেয়ে মালয়েশিয়ার সংখ্যালঘু হিন্দুরা শত গুণ বেশি সুবিধা ভোগ করছে। তার এমন মন্তব্যকে ঘিরে সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়। তাকে দেশ থেকে বিতাড়িত করার দাবি তুলে মালয়েশিয়ার তিন মন্ত্রী বলেন, মালয়েশিয়ার মুসলিমদের সঙ্গে অমুসলিমদের দূরত্ব তৈরির উদ্দেশ্যে এমন মন্তব্য করেছেন জাকির নায়েক। তিনি দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে চাইছেন বলেও অভিযোগ করেন ওই মন্ত্রীরা।

এ নিয়ে জাকির নায়েকেরে সমালোচনা করে মাহাথির মোহাম্মদ বলেন, ‘আমি জানি না, কে তাকে মালয়েশিয়ায় স্থায়ী বসবাসের মর্যাদা দিয়েছেন। তবে রাজনীতি থেকে তার দূরে থাকা উচিত। তিনি ইসলামের ধর্ম নিয়ে কথাবার্তা বললে আমরা তাকে বাধা দিব না। কিন্তু তাকে অবশ্যই মালয়েশিয়ার রাজনীতি নিয়ে কথা বলা বন্ধ করতে হবে। চীনা এবং ভারতীয়দের নিজ দেশে ফিরে যেতে বলাটা রাজনৈতিক। তিনি বর্ণবাদী মানসিকতা উসকে দিচ্ছেন।’

জাকির নায়েকের এই বক্তব্য নিয়ে পুলিশি তদন্ত চলছে বলেও জানান মাহাথির মোহাম্মদ।

কুয়ালালামপুর কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত ওই সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন, ‘মালয়েশিয়ায় আমাদের আইনের শাসন আছে এবং আমরা এটার চর্চা করবো।’

এই সব বক্তব্যের প্রেক্ষিতে ইতোমধ্যে জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে ১১৫টি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এসব অভিযোগের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই তদন্ত শুরু করেছে স্থানীয় পুলিশ। তার বিরুদ্ধে আনীত এসব অভিযোগ প্রমাণিত হলে জাকির নায়েকের নাগরিকত্ব বাতিল করা হতে পারে বলেও জানা গেছে।

জাকির নায়েক স্থায়ী নাগরিকত্ব নিয়ে গত তিন বছর ধরে মালয়েশিয়ায় রয়েছেন। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে মালয়েশিয়ায় তাকে স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি দেয়া নিয়ে দেশটির মন্ত্রিসভার বৈঠকে তিন মন্ত্রী তাকে বহিষ্কারের দাবি জানিয়েছেন। এমনকি তার বিরুদ্ধে শান্তি বিনষ্টের অভিযোগও আনা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, মালয়েশিয়ার জনসংখ্যার ৬০ শতাংশ মুসলিম, বাকি ৪০ শতাংশ মানুষের অধিকাংশই চীনা ও ভারতীয় বংশোদ্ভূত।


জাকির নায়েকের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত
বর্তমানে মালেয়েশিয়ায় অবস্থান করছেন ধর্ম প্রচারক জাকির নায়েক। কেননা অনেক
বিস্তারিত
দিল্লিতে বৈঠকে বসবেন মমতা-মোদি! সরগরম
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে আজ বিকেলে বৈঠক করবেন পশ্চিমবঙ্গের
বিস্তারিত
তিন মুসলিম নারীকে উলঙ্গ করে
তিন মুসলিম নারীকে থানায় আটকে রেখে সারারাত ধরে পিটিয়েছে পুলিশ।
বিস্তারিত
মোদির স্ত্রীকে শাড়ি উপহার দিলেন
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দীর্ঘ দেড় বছর পর বুধবার
বিস্তারিত
মৃত্যুর পরও মানুষের শরীর এক
জন্ম নিলেই মৃত্যু অনিবার্য-এই চিরন্তন সত্যটি সবারই জানা। তার পরও
বিস্তারিত
আফগানিস্তানে বোমা হামলায় নিহত ২৪,
আফগানিস্তানের পারওয়ান প্রদেশে প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির মিছিল লক্ষ্য করে ভয়াবহ
বিস্তারিত