ঐতিহাসিক সমঝোতা চুক্তি উদযাপনে সুদানিরা

 

দ্বীপাঞ্চলের আবদুল কাইয়ুম রাজধানী খার্তুমে সেনা কর্তৃপক্ষ ও বিরোধী জোটের ক্ষমতা ভাগাভাগির চুক্তি অনুষ্ঠানে অংশ নিতে শত শত মাইল অতিক্রম করে এসেছেন। তিনি সাক্ষী হবেন নতুন সুদানের নতুন পর্বের। 
শহরের পর শহর সুদানের পতাকা উড়িয়ে ও বিপ্লবী সংগীতের তালে তালে আবদুল কাইয়ুমের সঙ্গীদল এখন চূড়ান্ত পর্বানুষ্ঠানের অপেক্ষায় রাজধানীর অনুষ্ঠাস্থলে। 
‘আনন্দিত হও, খুশির সময় হয়েছে, বিজয়ের ঘণ্টা বেজেছে।’
নতুন যুগের আগমনী সুসংবাদ নিতে খার্তুমের রাস্তায় শুধু আবদুল কাইয়ুম একা নন। বরং তার সঙ্গে অনেক মানুষই অংশ নিচ্ছেন। তাদের ভাষায় আজ মহাবিজয় দিবস।
সবাই একমত, সুদানের এই ঐতিহাসিক চুক্তি দ্রুত বিপ্লবের প্রকৃত লক্ষ্য বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখবে।
অনুষ্ঠান উদযাপনকারীরা মনে করেন, জনগণের প্রত্যাশা হলো, ব্যক্তিকেন্দ্রিক ব্যবস্থা থেকে প্রাতিষ্ঠানিক পথেই চলবে দেশ। একমাত্র রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠানই দেশ শাসন করবে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফাতিমাহ মুতাওল্লি মনে করেন, এখনও রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক সংকট জেঁকে আছে। এর জন্য প্রয়োজন সাহসী পদক্ষেপ। অন্যদিকে সকাল থেকে সুদানের পতাকা হাতে ষাটোর্ধ্ব উসমান যাবারাহ মনে করেন, ‘পরিবর্তন ও চূড়ান্ত চুক্তির অনুষ্ঠান শুধু কাক্সিক্ষত সমতা ও সুশাসনের নতুন রাষ্ট্রের জন্ম।’
অন্যদিকে ফাতিমা আলজাজিরাকে বলেন, আগামীর চ্যালেঞ্জ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রাষ্ট্রের পুনর্গঠন, যুবকদের বিভিন্ন প্রয়োজন পূরণে অর্থনৈতিক সমস্যা সমাধানের মাধ্যমে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে।
রাষ্ট্রের আগামী প্রয়োজন সম্পর্কে নাগরিকদের বিভিন্ন মত থাকা সত্ত্বেও আইনজীবী মুয়াবিয়া খদর মনে করেন, গত তিন দশকে সুদানের বৈদেশিক সম্পর্কে যে ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে, তা পুষিয়ে নেওয়া দরকার।
কোনো কোনো নাগরিক মনে করেন, দেশের বেকারত্ব ও অর্থনৈতিক সমস্যা মোকাবেলাই এখন মূল গুরুত্বপূর্ণ।
বেসরকারি খাতে কর্মরত আবদুল যাওয়াদ মানসুর বলেন, ‘দুর্নীতি মোকাবিলার পাশাপাশি আয় বাড়াতে রাষ্ট্রীয় সম্পদের যথার্থ ব্যবহার ও অর্থনৈতিক পরিকল্পনা জরুরি।’

হ সূত্র : আলজাজিরা


পবিত্র শবে মেরাজ কবে, জানা
১৪৪১ হিজরি সনের পবিত্র শবে মেরাজের তারিখ নির্ধারণ এবং রজব
বিস্তারিত
মাতৃভাষার নেয়ামত ছড়িয়ে পড়ুক
ভাষা আল্লাহ তায়ালার বিরাট একটি দান। ভাষার রয়েছে প্রচ- শক্তি;
বিস্তারিত
ন তু ন প্র
বই : আল-কুরআনে শিল্পায়নের ধারণা লেখক : ইসমাঈল হোসাইন মুফিজী প্রচ্ছদ :
বিস্তারিত
উম্মতে মুহাম্মদির মর্যাদা
আল্লাহ তায়ালা যে বিষয়কে আমাদের জন্য পূর্ণতা দিয়েছেন, যে বিষয়টিকে
বিস্তারিত
যেভাবে সন্তানকে নামাজি বানাবেন
হাদিসে এরশাদ হয়েছে ‘তোমরা প্রত্যেকেই নিজ নিজ অধীনদের ব্যাপারে দায়িত্বশীল। আর
বিস্তারিত
আবু বাকরা (রা.)
নোফায় বিন হারেস বিন কালাদা সাকাফি (রা.)। তার উপনাম আবু
বিস্তারিত