তাদের শুরুটা যেমন ছিল

১৬ বছর বয়সে ভার্জিন গ্রুপ অব কোম্পানিজের মালিক রিচার্ড ব্র্যানসন ‘স্টুডেন্ট ম্যাগাজিন’ নামে একটি ম্যাগাজিন প্রকাশ করেছিলেন। ১৯৬৬ সালে মাত্র ১০০ পাউন্ড মূলধন নিয়ে উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ শুরু করেছিলেন তিনি

জীবনে লক্ষ্য না থাকার বড় সমস্যা হলো আপনি জীবনভর মাঠের ভেতর ছুটেও গোল দিতে পারবেন না। কাজেই সফল হতে শুরুতে ঠিক করে নিতে হবে কী চান। নির্ধারিত লক্ষ্যে পৌঁছতে কীভাবে বড় চিন্তা করবেন কিংবা বড় স্বপ্ন দেখবেন তার অনেক উদ্ধৃতি দেখা যায়। তবে শুরুটা ছোট উদ্যোগ বা সামান্য পারিশ্রমিকের চাকরি দিয়েও হতে পারে। অনেক বিলিয়নেয়ারের জীবনের শুরু এমনই ছিল। বিশ্বের শীর্ষ ধনী জেফ বেজোস কিংবা ফেইসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গের মতো এখনকার প্রযুক্তি বিলিয়নেয়ারের প্রথম চাকরি নিয়ে আজকের আয়োজন
জেফ বেজোস : বিশ্বের শীর্ষ ধনী অ্যামাজন ডটকমের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোসের প্রথম চাকরি ছিল ম্যাকডোনাল্ডে বার্গার তৈরি করা। তার ঘণ্টাপ্রতি বেতন ছিল মাত্র ২ দশমিক ৬৯ ডলার। এছাড়াও, ফাস্টফুড চেইন শপের রান্নাঘরেও কাজ করেছেন তিনি।
মাইকেল ডেল : বিশ্বের অন্যতম কম্পিউটার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ডেলের প্রতিষ্ঠাতা মাইকেল ডেল। ১২ বছর বয়সে তিনি চীনা রেস্তোরাঁয় থালাবাসন ধোয়ার কাজ শুরু করেছিলেন, যা পরবর্তী সময়ে তাকে এগিয়ে যেতে কাজে দিয়েছে।
রিচার্ড ব্র্যানসন : ১৬ বছর বয়সে ভার্জিন গ্রুপ অব কোম্পানিজের মালিক রিচার্ড ব্র্যানসন ‘স্টুডেন্ট ম্যাগাজিন’ নামে একটি ম্যাগাজিন প্রকাশ করেছিলেন। ১৯৬৬ সালে মাত্র ১০০ পাউন্ড মূলধন নিয়ে উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ শুরু করেছিলেন তিনি।
ইভান স্পিগেল : মাল্টিমিডিয়া মেসেজিং অ্যাপ স্ন্যাপচ্যাটের উদ্যোক্তা ইভান স্পিগেল। তিনি বিনা পারিশ্রমিকে প্রথম বেভারেজ ব্র্যান্ড রেড বুলে কাজ করেছিলেন।
ট্রাভিস কালানিক : রাইডশেয়ারিং কোম্পানি উবারের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাভিস কালানিকের শুরুটা ছিল কষ্টের। উবার প্রতিষ্ঠার আগে তিনি সেলসম্যান বা বিক্রয়কর্মী হিসেবে কাজ শুরু করেছিলেন। বাসাবাড়িতে গিয়ে পণ্য বিক্রির চাকরি করতেন তিনি।
ইলোন মাস্ক : টেসলার প্রতিষ্ঠাতা ইলোন মাস্কের শুরুটাও ছিল ছোটখাটো কাজ দিয়ে। তিনি ১২ বছর বয়স থেকে ভিডিও গেমের কোড বিক্রি শুরু করেন। ওই ভিডিও গেমের নাম ছিল ব্লাস্টার্ড।
জ্যাক ডরসি : টুইটারের প্রতিষ্ঠাতা জ্যাক ডরসি হ্যাকার হিসেবে কাজ শুরু করেছিলেন। এক সাক্ষাৎকারে তিনি স্বীকার করেন, একটি ডিসপ্যাচ কোম্পানির সার্ভার হ্যাক করে তিনি পেশাদার সফটওয়্যার প্রকৌশলী হিসেবে কাজ শুরু করেন।
ল্যারি এলিসন : ওরাকলের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ল্যারি এলিসন কম্পিউটার প্রোগ্রামার হিসেবে প্রথম চাকরি শুরু করেছিলেন। তিনি আমঢাল ও অ্যামেক্স ডাটাবেজ তৈরির কাজ করেছিলেন।


ডিজিটাল রূপান্তরকে গতিশীল করতে আরও
ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপান্তরকে গতিশীল করার পথে প্রতিশ্রুতি ও প্রচেষ্টা বাড়িয়েছে
বিস্তারিত
১৩ লাখ ডেভেলপার নিয়ে এগিয়ে
বিশ্বব্যাপী নিরাপদ ও সুরক্ষিত ইকোসিস্টেম গড়ে তুলতে অব্যাহতভাবে কাজ করে
বিস্তারিত
৬ প্রাইভেসি চেক করতে পারবেন
ব্যবহারকারীদের হাতে তাদের তথ্যের বাড়তি নিয়ন্ত্রণ তুলে দিতে প্রাইভেসি চেকআপ
বিস্তারিত
বাংলাদেশে রিয়েলমির অফিসিয়াল যাত্রা শুরু
স্মার্টফোন ব্র্যান্ড রিয়েলমি ২৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে যাত্রা শুরু করছে প্রেস
বিস্তারিত
করোনা ভাইরাসের প্রভাবে দক্ষিণ কোরিয়ায়
করোনা ভাইরাসের প্রভাবে সবচেয়ে কম ক্ষতি হয়েছে স্যামসাংয়ের। কারণ আগেই
বিস্তারিত
টিএসএ কর্মীদের টিকটক ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা
যুক্তরাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ সংস্থা ‘ট্রান্সপোর্টেশন সিকিউরিটি অ্যাডমিনিস্ট্রেশন’ (টিএসএ)-এর কর্মীরা
বিস্তারিত