পরপর দুই বলে দুই উইকেট সাকিবের

আফগানিস্তানের ৩৪২ রানের জবাবে প্রথম ইনিংসে ৭০.৫ ওভার খেলে বাংলাদেশ অলআউট হয়েছে ২০৫ রানে। ফলে ১৩৭ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয়বার ব্যাটিংয়ে নেমেছে সফরকারিরা।

তবে বড় ব্যবধানে পিছিয়ে থাকা বাংলাদেশ শুরুতেই ধাক্কা দিয়েছে আফগানদের। ইনিংসের প্রথম ওভারেই বল হাতে নেন অধিনায়ক সাকিব আর নিজের তৃতীয় ডেলিভারিতে ওপেনার ইহসানউল্লাহ জানাতকে (৪) এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন। পরের বলে আরও এক উইকেট। এবার সাকিব ফিরতি ক্যাচ নেন প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান রহমত শাহকে (০)।

এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ১ ওভার শেষে আফগানিস্তানের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৪ রান। হাসমতউল্লাহ আর ইব্রাহিম এখনও রানের খাতা খুলতে পারেননি।

এর আগে তৃতীয় দিনের প্রথম ওভারটা শুরু করেন আফগানিস্তানের অফস্পিনার মোহাম্মদ নবী। আর তৃতীয় ডেলিভারিতেই তিনি ফিরিয়ে দেন তাইজুলকে। ৫৮ বল মোকাবেলায় ১৪ রান করা কাটা পড়েন পরিষ্কার বোল্ড আউটে।

এর দুই ওভার পর রশিদ খানের দারুণ এক ডেলিভারি বুঝতে না পেরে বসে প্যাড দিয়ে ঠেকিয়ে দেন নাইম হাসান। আম্পায়ারও আঙুল তুলতে দেরি করেননি। রিভিউ নিলেও তাতে কাজ হয়নি।

১২ বলে ৭ রানে আউট হন নাইম। অপরপ্রান্তে থাকা মোসাদ্দেক হাফসেঞ্চুরির আশায় দাঁড়িয়ে ছিলেন। কিন্তু ৮২ বলে ১ বাউন্ডারি আর ২ ছক্কায় গড়া তার ৪৮ রানের ধৈর্য্যশীল ইনিংসটি থেমেছে সঙ্গীর অভাবে।

চট্টগ্রাম টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ৮ উইকেটে ১৯৪ রান। আফগানদের প্রথম ইনিংস থেকে সাকিব আল হাসানের দল ১৪৮ রানে পিছিয়ে থেকে তৃতীয় দিনে খেলতে নামে।

এর আগে বাংলাদেশ ইনিংস ওপেন করতে নেমে রানের খাতা খোলার আগেই বিদায় নেন সাদমান ইসলাম। মূলতঃ একজন পেসারও না রেখে পুরোপুরি স্পিনার দিয়ে বোলিং অ্যাটাক সাজিয়েছিল বাংলাদেশ। বিপরীতে আফগানিস্তান দলে নেয়া হয়েছিল একজন পেসার। সেই এক পেসারে শুরুতেই কোণঠাসা বাংলাদেশ। স্কোরবোর্ডে কোনো রান যোগ করার আগেই ওপেনার সাদমান ইসলামকে ফিরিয়ে দেন আফগান পেসার ইয়ামিন আহমদজাই।

প্রথম ইনিংসে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৩৪২ রানের বড় স্কোর গড়ে তোলে আফগানরা। টস জিতে প্রথম দিন ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের বোলারদের ভালোই ভুগিয়েছেন আফগান ব্যাটসম্যানরা। বিশেষ করে রহমত শাহ। আফগানিস্তানের হয়ে টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম সেঞ্চুরি করলেন তিনি। তার সেঞ্চুরি এবং ৮৮ রানে থাকা আসগর আফগানের ব্যাটে ভর করে প্রথম দিন শেষে আফগানিস্তানের সংগ্রহ ছিল ৫ উইকেট হারিয়ে ২৭১ রান।

দ্বিতীয় দিন ব্যাট করতে নেমে দ্রুত বাকি ৫ উইকেট হারালেও ৩৪২ রানের বিশাল সংগ্রহ দাঁড় করায় আফগানরা। ১০২ রান করে আউট হন রহমত শাহ। ৯২ রান করেন আসগর আফগান এবং শেষ মুহূর্তে ঝড়ো হাফসেঞ্চুরি করেন রশিদ খানও।

তাইজুল ইসলাম ৪১ ওভার বল করে নেন ৪ উইকেট। ২টি করে উইকেট নেন নাইম হাসান এবং সাকিব আল হাসান। ১টি করে নেন মেহেদী হাসান মিরাজ এবং মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।


সহজ লক্ষ্যেও ভারতের কাছে হারল
ভারতের বিপক্ষে ১০৭ রানের সহজ লক্ষ্য নিয়েও পারল না বাংলাদেশ।
বিস্তারিত
অল্পের জন্য চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি
আবারও প্রতিপক্ষ ভারত, মঞ্চ এশিয়া কাপ। বাংলাদেশ যেন ভারত বাধা
বিস্তারিত
প্রধানমন্ত্রীর ফোনে কাঁদলেন আফিফ
বাংলাদেশের ক্রিকেটে নতুন সম্ভাবনার নাম আফিফ হোসেন ধ্রুব। এ তরুণের
বিস্তারিত
বাংলাদেশের রোমাঞ্চকর জয়
আফগানিস্তানের কাছে একমাত্র টেস্টে হারলেও ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজে শুরুটা হলো
বিস্তারিত
খেলা নিয়ে পাপনকে প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্ন,
এলেন, খেললেন এবং জয় এনে দিলেন। অথচ তার অভিজ্ঞতার ঝুলিতে
বিস্তারিত
টস জিতে বোলিংয়ে বাংলাদেশ
ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচের খেলা বৃষ্টির কারণে নির্ধারিত সময়ে
বিস্তারিত