গফরগাঁও-ময়মনসিংহ সড়ক যান চলাচলের অনুপযোগী

ময়মনসিংহ-গফরগাঁও সড়কটি এ জেলার অন্যতম পুরনো সড়ক। ময়মনসিংহ থেকে গফরগাঁও পর্যন্ত ৪০ কিলোমিটার পথ। ময়মনসিংহ শহর থেকে বের হয়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মোড় থেকেই এ সড়কটির শুরু।

ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ঘেঁষে সোজাসুজি গফরগাঁও সদরে যাওয়ার এ সড়কটি খান বাহাদুর ইসমাইল রোড নামে পরিচিত। সড়কটি বর্তমানে প্রায় পুরোটাই বেহাল। বলা যায় ৪০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এ সড়কটিতে শুধু ছোট-বড় গর্ত আর গর্ত। সড়কটির পুরোটাই ক্ষতবিক্ষত চেহারা। কার্পেটিং উঠে গেছে অনেক আগেই। বহু স্থানে ভাঙা সড়কে বিছানো ইট ভেঙে খান খান হয়ে গেছে। ওইসব অংশে যানবাহনতো দূরের কথা হাঁটাও দায়। সড়কটির উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনের পথটুকু পার হতে হয় একরকম যুদ্ধ করে।

এ অবস্থায় যানবাহন চালকেরা সড়কটি ব্যবহার একেবারে বন্ধ করে দিয়েছে। অতিরিক্ত সময় ব্যয় হলেও চালকরা এখন বিকল্প পথে যাতায়াত করতে শুরু করেছে।

গফরগাঁও ছাড়াও ধলা, বালিপাড়া, কালির বাজার, সুতিয়াখালী এলাকার অনেক মানুষের সড়ক যোগাযোগের অন্যতম পথ এ সড়কটি। 

গত দশ বছরে সড়ক ও জনপথ বিভাগ (সওজ) ঠিকাদারের পাশাপাশি নিজস্ব তত্ত্বাবধানে কমপক্ষে ৮ বার সড়কটি সংস্কার করে। কিন্তু ১০ বছর ধরেই সড়কটি একেবারেই যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী। যেন সড়কটি গফরগাঁওবাসীর দুর্ভোগের অপর নাম।

এ অবস্থায় জরুরি প্রয়োজনে লোকজন ঢাকা-ময়মনসিংহের বৈলর বা ত্রিশাল অথবা ভালুকা হয়ে গফরগাঁও যাতায়াত করে। 

সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সড়কটির ৪০ কিলোমিটারের প্রায় পুরোটাই যান চলাচলের অনুপযোগী। বলতে গেলে সড়কজুড়ে ছোট-বড় গর্ত আর গর্ত। এসব গর্ত এড়িয়ে যান চালাচল করা প্রায় অসম্ভব। কেউ কেউ ঝুঁকি নিতে গিয়ে রিকশা-ইজি বাইকসহ উল্টে গেছে ওই সব গর্তে।

এ ব্যাপারে কালীরবাজার স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি রতন সরকার বলেন, গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি এখন আর চলাচলের উপযোগী নয়। ময়মনসিংহ থেকে এ সড়ক ধরে তিনি আধ ঘণ্টায় বাড়ি পৌঁছাতেন। কিন্তু এখন বিকল্প সড়ক ধরে বাড়ি পৌঁছাতে সময় লাগে কমপক্ষে এক ঘণ্টা। এভাবেই চলছে গত প্রায় সাত বছর।

এই সড়কে ভারী যানবাহনতো দূরের কথা রিকশা চালকরাও আসতে চায় না। অতিরিক্ত ভাড়ায় রিকশা কিংবা অটোরিকশা হেলে-দুলে যাতায়াত করলেও সড়কের দুরবস্থার কারণে অহরহ ঘটছে দুর্ঘটনা। এ সড়ক দিয়ে গর্ভবতী নারী, শিশু ও বয়োবৃদ্ধদের যাতায়াত এখন অধিক ঝুকিঁপূর্ণ হয়ে উঠেছে। 

জানা যায়, চাঁদনী মোড় থেকে পৌর শহরের শেষ সীমানা পর্যন্ত সড়কটির দেড় কিলোমিটার সড়ক ও জনপথ বিভাগের হওয়ায় পৌর কর্তৃপক্ষ সংস্কার করতে পারছে না। 

এদিকে সড়কটি সংস্কার কাজের জন্য তিন মাস পূর্বে এমএম বিল্ডার্স নামক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ প্রদান করলেও রহস্যজনক কারণে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ শুরু করছে না।

গফরগাঁও উপজেলা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মাইনুদ্দিন খান মানিক জানান, হাসপাতালের সামনের অংশটুকু এতই খারাপ যে রোগীরা ভয়ে হাসপাতালে আসতে চান না। রোগীদের নিরাপদে আসা-যাওয়ায় জন্য দ্রুত মেরামত হওয়া দরকার।

গফরগাঁও পৌরশহরের বাসিন্দা জহির খান বলের, বাধ্য হয়ে যদি কখনো ভাঙাচোরা এ সড়ক দিয়ে চলাচল করতে হয়, তখন দুর্ঘটনার আশঙ্কায় সর্বক্ষণ আল্লাহর নাম জপতে জপতে যাই। 

জানা যায়, ২০১১-১২ অর্থবছরে সওজ মেসার্স এমএম বিল্ডার্স নামক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে এ সড়কটি মেরামত করার কার্যাদেশ দেয়। নিয়ম ভঙ্গ করে মেসার্স শামিম এন্টারপ্রাইজ সাব-কন্ট্রাক নিয়ে ২০১২ সালের জুন মাসে মেরামত কাজটি সম্পন্ন করে। নিম্নমানের কাজ এবং হাসপাতাল সড়কের বেহাল অংশের অধিকাংশ জায়গায় সংস্কার না করে চূড়ান্ত বিল উত্তোলন করায় কয়েক মাস পরেই সড়কটি চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়ে। 

এমনিভাবে গত দশ বছরে সওজ ঠিকাদারের পাশাপাশি নিজস্ব তত্ত্বাবধানে কমপক্ষে ৮ বার সড়কটি সংস্কার করে। কিন্তু ১০ বছর ধরেই সড়কটি একেবারেই যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী। 

সড়ক ও জনপথ বিভাগ ময়মনসিংহের নির্বাহী প্রকৌশলী ওয়াহিদুজ্জামান সোহেল বলেন, যত দ্রুত সম্ভব এ সড়কের সংস্কার কাজ শুরু করার জন্য ঠিকাদারকে তাগিদ দেওয়া হচ্ছে। আশা করছি শিগগির কাজ শুরু হবে।


শেরপুরে সপ্তাহব্যাপী বৃক্ষ রোপন অভিযান
"ফলদ বৃক্ষে ভরবো দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ” ও “শিক্ষায় বন প্রতিবেশ,
বিস্তারিত
বগুড়ায় বিলের পাশ থেকে কয়েক
বগুড়ার শাহজাহানপুর উপজেলায় একটি বিলের পানি এবং তীর থেকে বস্তাভর্তি
বিস্তারিত
গুলশানের তিন ‘স্পা’ সেন্টারে অবৈধ
নগরীর গুলশানের তিনটি ‘স্পা’ সেন্টারে উঠতি বয়সী তরুণী ও নারীদের
বিস্তারিত
পুলিশের তালিকায় রাজধানীর ১৫০ ক্যাসিনো
রাজধানীতে ক্যাসিনো-জুয়া খেলা হয় এমন দেড় শতাধিক স্পটের তালিকা ঢাকা
বিস্তারিত
৭২০ ভরি স্বর্ণ ও কোটি
রাজধানীর ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের ক্যাসিনো ব্যবসার অংশীদার গেণ্ডারিয়া থানা আওয়ামী লীগের
বিস্তারিত
ক্যাসিনোর টাকায় সিনেমা বানান হকার
ক্যাসিনো কারবারের মাধ্যমে কামানো টাকা ঢাকাই চলচ্চিত্রেও লগ্নি করেছেন যুবলীগ
বিস্তারিত