সব দাবি মেনে নেব, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে পাপন

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেছেন, ‘আমরা বলছি, সবগুলো দাবি মানার মতো, এটা কোনো সমস্যাই না। আসলেই শেষ। তারপরও আমরা যোগাযোগ করছি, তারা ফোন ধরছে না। ওরা কোনো যোগাযোগ করছে না। তাহলে করবটা কী বলেন?’

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বিসিবি সভাপতি পুরো পরিস্থিতি বর্ণনা করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বিকেল ৩টায় গণভবন থেকে বের হয়ে আসেন বিসিবি সভাপতি। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা খেলোয়াড়দের সব দাবি-দাওয়া মেনে নেওয়ার জন্য প্রস্তুত আছি।’

বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘উনি তো সবই জানেন। গত পরশুদিনও উনার সাথে ছিলাম। কাল সকালে মাশরাফি এসেছিল। এখন আমি উনাকে জাস্ট জানাতে আসলাম আপডেট।’

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার পর ক্রিকেটারদের সঙ্গে আলোচনায় আগ্রহ দেখিয়ে তিনি বলেন, ‘আজকে আমরা আবার তাদের ডেকেছি। আমরা যেহেতু কন্টাক্ট করে পারছি না। সেহেতু আমাদের সিইও তাদের মিডিয়ার মাধ্যমে জানিয়েছে হোয়াট টু ডু। আমরা জানিয়েছি, তারা যেন আমাদের সাথে বসে যে কোনো সময়।’

তিনি বলেন, ‘এখানে সমাধান তো দেওয়াই। আমি তো কালকেই বললাম, ওদের কোন দাবিটা আছে? এখানে এমন কোনো দাবি নেই যে- যেটা মানা যাবে না। দাবি নিয়ে আসলেই সাথে সাথে শেষ। ওদের আসতে হবে তো।’

বিসিবি সভাপতি মনে করেন, ধর্মঘট থেকে সরে না আসলে ভারত সফরটা সঙ্কটের মুখে পড়ে যাবে।

তিনি বলেন, ‘ওরা কি এই জিনিসটা বোঝে না যে, এই ট্যুরটায় গেলাম না, তাতে কী হবে? বাংলাদেশ যদি স্যাংশনে পড়ে! খেলা বন্ধ হয় এক বছরের জন্য তাতে খেলোয়াড়দের কী লাভ? জিনিসটা তো খেলোয়াড়দের আগে বুঝতে হবে।’

এদিকে, আজও নাজমুল হাসান পাপন অভিযোগ করেন, এ আন্দোলনে অন্য কোনো কারণ থাকতে পারে। তিনি বলেন, ‘এরকম একটা গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্টের আগে এই ধরনের সিদ্ধান্ত কেউ নিতে পারে। আমার ধারণা, বেশিরভাগ প্লেয়ারই হয়ত জানে না। এটার মধ্যে ডেফিনেটলি একটা ষড়যন্ত্র আছে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই। কারও কাছে কিছু না বলে খেলা বন্ধ করবে কেন? এটা তো ক্রিকেটকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র। এটা তো হতে পারে না। যে কেউ বোঝার কথা। কোনো দাবি না দিয়ে আগে খেলা বন্ধ! এটা তো হতে পারে না। এটা পৃথিবীর কোথাও নেই। এটার মধ্যে নিশ্চয়ই কোনো একটা ব্যাপার আছে।’

এ সময় বিসিবি সভাপতির সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন সাবেক অধিনায়ক, বর্তমানে বিসিবি পরিচালক এবং ক্রিকেটার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (কোয়াব) সভাপতি নাঈমুর রহমান দুর্জন।

বুধবার সকাল থেকেই খবর, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন ওয়ানডে অধিনায়ক এবং জাতীয় সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজা। তাকে প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব দিয়েছেন মধ্যস্থতা করার। তবে আজই বুধবার দুপুরের পর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে গণভবনে যান বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

এর আগে ১১ দফা দাবি মেনে না নেয়া পর্যন্ত সব ধরনের ক্রিকেট কার্যক্রম বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন ক্রিকেটাররা। সোমবার বিকেলে সাকিব-তামিমদের ওই ঘোষণার পর উত্তপ্ত ক্রিকেটাঙ্গন। মঙ্গলবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলন ডেকে ক্রিকেটারদের আন্দোলনে ষড়যন্ত্রের গন্ধ খুঁজে পেয়েছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। এর পরই প্রশ্ন ওঠে, উদ্ভূত পরিস্থিতির সমাধান হবে কীভাবে? কে নেবে মধ্যস্থতাকারীর দায়িত্ব?


সংসদে বিরোধী দলীয় এমপিদের তোপের
সৌদি আরবসহ বিভিন্ন দেশে গৃহশ্রমিকদের শারীরিক নির্যাতন ও হত্যার ঘটনায়
বিস্তারিত
দেশে পেঁয়াজের বার্ষিক চাহিদা ২৪
বাংলাদেশে বর্তমানে পেঁয়াজের বার্ষিক চাহিদা ২৪ লক্ষ মেট্রিক টন। গত
বিস্তারিত
রাঙ্গাকে সংসদে ক্ষমা চাওয়ার দাবি
নব্বইয়ের স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে নিহত নূর হোসেনকে নিয়ে কূরোচীপূর্ন বক্তব্যে
বিস্তারিত
ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকরি: রাজস্ব
শুল্ক, আবগারী ও ভ্যাট কমিশনারেট ঢাকার (পশ্চিম) সাবেক রাজস্ব কর্মকর্তা
বিস্তারিত
প্রধান শিক্ষকদের ১১তম, সহকারীদের বেতন
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সকল প্রধান শিক্ষক এবং সহকারী শিক্ষকদের বিরাজমান
বিস্তারিত
ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত ১৬ জনের
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় ‘তুর্ণা নিশীথা’ এবং `উদয়ন এক্সপ্রেস' ট্রেনের মধ্যে সংঘর্ষে
বিস্তারিত