ফ্রিজে ‘মায়ের অঙ্গ’!

যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যারোলিনার গোল্ডসবরো এলাকার প্রতিবেশী এক নারীর কাছে থেকে মাত্র ৩০ ডলারে একটি পুরাতন ফ্রিজ কেনেন। কিন্তু বিক্রেতা তাকে একটি অজুহাত দিয়ে ফ্রিজটি খুলতে নিষেধ করেন এবং বলেন, ফ্রিজের ভেতরে গির্জার একটি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস রয়েছে। কিন্তু দীর্ঘ সময়ে গির্জা থেকে জিনিসিটি নিতে কেউ না আসার শেষ পর্যন্ত ফ্রিজটি খুলে তাজ্জব বনে যান তিনি!এ কী এতো মানুষের দেহাবশেষ!দ্রুত সে ফিরে এসে দেখতে পান বিক্রেতা শহর ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছে।
মার্কিন ওই নারী বলেন, গির্জা থেকে কেউ আসার কথা ছিল এবং ফ্রিজের ভেতরে থাকা জিনিসটি নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তারা আসেনি। আমি একবার ভেবেছিলাম ফ্রিজটি ফেরত দিয়ে দিব। পরে ফ্রিজটি খোলার সিদ্ধান্ত নেই।
ফ্রিজটি খোলার পর তিনি যা দেখলেন তা বিশ্বাস করতে পারলেন না। মার্কিন ওই নারী তখন জরুরি সার্ভিসকে খবর দেন।
জরুরি নম্বরে ফোন রেকর্ডে ওই নারীকে বলতে শোনা যায়, আমি মারাত্মক সমস্যায় পড়েছি। আমার প্রতিবেশী একটি ফ্রিজ আমার কাছে বিক্রি করেছিল। ফ্রিজটি খোলার পর মানুষের অঙ্গ দেখে মারাত্মক ভয় পাচ্ছি।
মার্কিন ওই নারী ধারণা করছেন, শরীরের অংশটি ফ্রিজ বিক্রেতা ওই নারীর মায়ের। তিনি তার মায়ের সঙ্গে থাকত। কিন্তু গত সেপ্টেম্বর থেকে মাকে দেখা যায়নি। ওই নারী তাকে বলেছিল, তিনি শহর ছেড়ে তার মায়ের সঙ্গে পশ্চিম ভার্জিনিয়া চলে যাচ্ছেন।  
গতকাল বুধবার নর্থ ক্যারোলিনা মেডিকেল পরীক্ষা অফিস দেহাবশেষ শনাক্ত করেছেন। এই পর্যায়ে তারা সন্দেহজনক কোনো কিছু পাননি।
গোল্ডসবরো পুলিশ এই ঘটনার তদন্ত করছেন। একজন মৃত ব্যক্তির তথ্য গোপন করা যুক্তরাষ্ট্রের আইনে গুরুতর অপরাধ বলে পুলিশ জানায়। সূত্র: দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট।   

 


এক ছোবলে ৮৬০ ভোল্ট কারেন্ট,
একদিকে ধ্বংসের আর্তনাদ, অন্যদিকে নতুন প্রজাতির খোঁজ। আমাজনের পরতে পরতে
বিস্তারিত
কুকুর-মুরগীরসহ এক মোটরসাইকেলে ৭ জন!
সাধারণত একটি মোটরসাইকেলে দুই থেকে তিনজন চড়তে পারেন। তবে একটি
বিস্তারিত
জন্মের পর ডেলিভারি রুমেই দাঁড়িয়ে
ইন্টারনেটের সৌজন্যে একটা অবিশ্বাস্য ও অদ্ভুত ঘটনার সাক্ষী হলো গোটা
বিস্তারিত
প্রেমে ব্যর্থ হয়ে কুকুরকে বিয়ে
ডেটিংয়ে ব্যর্থ হয়েছেন ২২১ বার! আবার বিয়েও ভেঙেছে চার বার।
বিস্তারিত
দুটি কলা ৪৪২ টাকায় বিক্রি,
মাত্র এক জোড়া কলার দাম ৪৪২টাকা! শুনলেই চক্ষু চড়ক গাছ।
বিস্তারিত
পেটের ভেতরে এত কিছু! হতভম্ব
পেটে অসহ্য ব্যথা। সন্দেহ হওয়ায় এক্স-রে করে দেখতে বলেন চিকিত্সক।
বিস্তারিত