মক্কা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতিগত সাংস্কৃতিক উৎসবে বাংলাদেশ

 

সৌদি আরবের পবিত্র মক্কা নগরীতে ঐতিহ্যবাহী উম্মুল-কুরা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে হয়ে গেল জাতিগত সাংস্কৃতিক উৎসব। বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে এই প্রথম প্রায় ৪০ দেশের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত এ জমকালো আয়োজনে লাল-সবুজের বাংলাদেশও অংশগ্রহণের সুযোগ লাভ করে।
চার দিনব্যাপী (১১ থেকে ১৪ নভেম্বর) এ সাংস্কৃতিক উৎসব উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলরের পক্ষ থেকে ছাত্রবিষয়ক অনুষদের ডিন ড. উমর সুম্বুল।
‘কুল্লুল কুরা ফি উম্মিল কুরা তথা সমস্ত জনপদ মক্কায়’ শিরোনাম ধারণ করে আয়োজিত দৃষ্টিনন্দন এ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আগত দর্শনার্থীদের ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, সহকারী ডিন, নানা পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং শিক্ষক-ছাত্রদের আগমনে উৎসবে যেন আনন্দের বন্যা বয়ে যায়।
শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি হয়ে প্রায় ১৫ দেশের কূটনীতিকরা উৎসবে আসেন। উৎসবের দ্বিতীয় দিন মঙ্গলবার সৌদি আরবে বাংলাদেশ দূতাবাসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ড. আবুল হাসান ও শেষ দিন বৃহস্পতিবার জেদ্দা কনস্যুলেটের কাউন্সিলর কামরুজ্জামান ভূঁঁইয়া আগমন করেন। শিক্ষার্থীদের এমন অংশগ্রহণ দেখে তারা বিমোহিত হন।
উৎসবে প্রতিটি দেশই নিজেদের সমাজ-সংস্কৃতি-সভ্যতা-রীতিনীতি ও দৈনন্দিন জীবনের সামান্য কিছু চিত্র তুলে ধরে। নিজ দেশের খাবার, দেশীয় উপকরণ ও জাতীয় পোশাক ইত্যাদি এ উৎসবে উপস্থাপনের মুখ্য দিক ছিল। অংশগ্রহণকৃত দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশিদের আয়োজন ছিল অনেকটা ব্যতিক্রমী ও মুগ্ধতায় পরিপূর্ণ। ‘দেশ-দেশ, বাংলাদেশ’ সেøাগানে মুখরিত ছিল চারদিক। 
প্রতিটি ইভেন্টে বাংলাদেশিদের অংশগ্রহণ ছিল দৃষ্টিনন্দন। প্যারেডের পুরো প্রদর্শন যেন ছেয়ে যায় লাল-সবুজের পতাকায়। দেশের গ্রাম্য জীবনের কিছু খ-চিত্র অভিনয়ে অভিনয়ে তুলে ধরা হয়। দেশীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, ঐতিহাসিক স্থান ও পর্যটনকেন্দ্রগুলোর পরিচিতি-সংবলিত স্থিরচিত্রে স্টলের দেয়ালে সাঁটানো ছিল। দেশীয় পোশাক, স্বদেশি নানা ধরনের খাবার, মিষ্টান্ন ও হরেক রকমের পিঠাপুলিতে পূর্ণ ছিল কর্নারটি। দুলার পরিচ্ছদ, দুলহানের জন্য ব্যবহৃত পালকি ও ঐতিহ্যবাহী ত্রিচক্রযান রিকশা ইত্যাদির উপস্থাপন ছিল উল্লেখযোগ্য।
এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ১ লাখ শিক্ষার্থীর মধ্যে বহিরাগত শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ৬ হাজার। এর মধ্যে বাংলাদেশি ছাত্রছাত্রী মিলিয়ে প্রায় ৭০ শিক্ষার্থী এমফিল, পিএইচডিসহ বিভিন্ন স্তরে সুনামের সঙ্গে অধ্যয়ন করছেন। এদের অধিকাংশই দেশের বিভিন্ন মাদ্রাসা থেকে আসা। 

লেখক : শিক্ষার্থী, উম্মুল-কুরা বিশ্ববিদ্যালয়


শীতকালের তাৎপর্য ও বিধিবিধান
শরিয়তে বিধানের অন্যতম একটি বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, কষ্ট বা প্রয়োজনের সময়
বিস্তারিত
পাথেয়
  ‘যেখানে থাকো, যে অবস্থায় থাকো, আল্লাহর ব্যাপারে তাকওয়া অবলম্বন করবে।
বিস্তারিত
শ্রেষ্ঠ নবীর শ্রেষ্ঠ স্বভাব
গত শুক্রবার মসজিদে নববিতে শীতার্ত এক বয়োবৃদ্ধ ওমরায় আগমনকারী গভীর
বিস্তারিত
মহিলাদের কবর জিয়ারত প্রসঙ্গে
কবর জিয়ারত পুরুষদের সঙ্গেই সম্পৃক্ত। নবীজি (সা.) বলেন, ‘তোমরা কবর
বিস্তারিত
পরিবেশ ও প্রকৃতি : ইসলামি
প্রাকৃতিক সৌন্দর্য রক্ষা ও দূষণ প্রতিরোধে সবার যথোচিত দায়িত্ব পালন
বিস্তারিত
লজ্জা অনৈতিক কাজের প্রতিবন্ধক
আল্লাহ তায়ালা বান্দাকে ভালো আর মন্দ, পাপ আর নেক উভয়
বিস্তারিত