কাইস সাইদ শিক্ষকতা থেকে তিউনিসিয়ার নির্দলীয় প্রেসিডেন্ট

রাকিবুল হাসান

গেল অক্টোবরে তিউনিসিয়ার নতুন রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ গ্রহণ করেছেন কাইস সাইদ। তৃণমূল থেকে উঠে আসা রাজনৈতিক কোনো ব্যক্তিত্ব নন তিনি। বরং তিনি একজন আইনের অধ্যাপক। কোনো রাজনৈতিক দলের হয়ে তিনি রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেননি। একাই লড়েছেন, সেøাগান তুলেছেন, ইশতেহার পেশ করেছেন। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে প্রার্থী ছিলেন ২৫ জন। প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ‘হার্ট অফ তিউনিসিয়া’র নাবিল কারবি। অর্থ কেলেঙ্কারির অভিযোগে কিছুদিন আগেই যিনি কারাবরণ করেছেন। কিন্তু কারাগারে থেকেও তার দল যে প্রচারণা চালিয়েছে মিডিয়ায়, তার শতভাগের দশভাগও করেননি কাইস সাইদ। তবু তিনি ৭২ শতাংশ ভোট পেয়ে রেসের দৌড়ে সবার চেয়ে এগিয়ে গেছেন। ৬১ বছর বয়সি আইনের অধ্যাপকের এ জয় ছিল অপ্রত্যাশিত, ভাবনাতীত।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাসে
তিউনিসিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের অধ্যাপক কাইস সাইদ। তার ক্লাস মানেই প্রাণোচ্ছল এবং প্রাণোচ্ছ্বাসে ভরা। যে কেউ যে কোনো প্রশ্ন করতে পারত যখন-তখন। তিনি উত্তর দিতেন।
কাইস সাইদের বড়বোন সেমেহ সেলমি বলেন, অন্যান্য অধ্যাপকের চেয়ে তিনি একটু বেশি ঠান্ডা মেজাজের ছিলেন। ক্লাসের ফাঁকে ছাত্রদের সমস্যা শুনতেন, সমাধান দিতেন। এমনকি কাউকে কাউকে ইচ্ছে করে ডেকেও পরামর্শ দিতেন। তিনি শাস্ত্রীয় আরবিতে ক্লাস করাতেন। তবে কেউ যদি আরবি না বুঝত, তিনি ফ্রেঞ্চে বলে দিতেন। এতই জমজমাট থাকত তার ক্লাস, দেরি করে এলে ক্লাসে জায়গা পাওয়া যেত না।

রাজনীতির ময়দানে
যেহেতু তিনি আইনের অধ্যাপক, আইন এবং সংবিধান বিশ্লেষণ করতেন। তিনি সর্বপ্রথম মানুষের চোখে পড়েন ২০১১ সালে আরব বসন্তের সময়। তখন তিনি প্রায়ই টিভির টকশোগুলোতে জনস্বার্থের বিষয়গুলো ব্যাখ্যা করতে উপস্থিত হতেন। তিউনিসিয়ার ক্ষমতায় থাকা দীর্ঘদিনের শাসক যাইনুল আবেদিন বেন আলির পতন ঘটে সেই ক্ষুব্ধ সময়ে।
মানুষ তখন নতুন করে স্বপ্ন বাঁধে। দুর্নীতি, বেকারত্ব এবার দূর হবে বলে আশা প্রকাশ করে। আর কাইস সাইদ জনগণের স্বার্থে আইন ও সংবিধানের বিশ্লেষণ করে তাদের সজাগ করতেন। তাদের সামনে তুলে ধরতেন তাদের কতটুকু অধিকার দিয়েছে রাষ্ট্র, এখন তারা পাচ্ছে কতটুকু।
আরব বসন্তের মূল স্পিরিটই যেহেতু তরুণরা, কাইস সাইদ রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে সেই তরুণদেরই কাছে টেনেছেন। তিনি কাছে টানেননি, বরং তরুণরাই তাকে কাছে টেনেছে। রাষ্ট্রীয় নির্বাচনে তরুণরা যেসব হিসেব উলটে দিতে পারে, তিউনিসিয়া তার জ্বলন্ত প্রমাণ।

তরুণদের সমর্থন
বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কাইস সাইদের অধিকাংশ ভোটারের বয়স ১৮ থেকে ২৫ এর মধ্যে। তার মানে তরুণ এবং যুবকরাই তাকে বেশি সমর্থন দিয়েছে। যদিও তিনি একটু কনজারভেটিভ চিন্তা লালন করতেন; কিন্তু তরুণরা সে কারণে তার প্রতি বিরূপ মনোভাব পোষণ করেনি।
তিনি পুরুষ ও মহিলাদের সমান উত্তরাধিকারের বিরোধিতা করেছেন এবং তিউনিসিয়ায় ১৯৯৪ সাল থেকে স্থগিত মৃত্যুদ- পুনরুদ্ধারের পক্ষে ছিলেন। স্থানীয় একটি সংবাদপত্রকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বিদেশি শক্তিগুলোকে দেশে সমকামিতাকে উৎসাহিত করার অভিযোগ তুলেছিলেন।
তিনি নির্বাচনি ইশতেহারে বলেছিলেন, তিনি দুর্নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবেন। পানি এবং স্বাস্থ্যসেবা জনগণের সাংবিধানিক অধিকার। শিক্ষাই সব চরমপন্থা দূর করতে পারে। তিনি বলেছেন, তিনি আইনে অন্তর্ভুক্ত সামাজিক স্বাধীনতাকে সম্মান জানাবেন।

তরুণরা তাকেই কেন সমর্থন দিল?
২৩ বছর বয়সি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আসমা সালেমি বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, আমি এবং আমার বন্ধু তিউনিসিয়ায় একদিন কাইস সাইদের কার্যালয়ে গেলাম। সেখানে খুব ভিড় এবং গার্ড ছিল। কাইস সাইদ যখন কার্যালয়ে প্রবেশ করলেন, তখন ছাত্রছাত্রীরা জিজ্ঞেস করল, নির্বাচিত হলে বেকারত্ব সমস্যা মোকাবিলায় আপনি কী করবেন? যে সমস্যা আরব বসন্তের পর না কমে, বরং বেড়েই চলেছে? তিনি তার উত্তর দিলেন, একটুও বিরক্তিবোধ করলেন না। আমি জিজ্ঞেস করলাম, কৃষিক্ষেত্রে আপনি কী করবেন, আমার বন্ধুদের কেন আপনাকে ভোট দিতে বলব? তিনি তখন বললেন, আমাদের ভালো মাটি থাকা সত্ত্বেও কেউ কৃষিকাজ করছে না। এরপর তিনি কিছু আইনের কথা বললেন, যেগুলো তিনি বাস্তবায়িত করবেন। তার উত্তর আমার পছন্দ হয়েছে। আমি জানি তিনি সব ঠিক করতে পারবেন না; তবে সংসদে দরকারি এমন কিছু প্রস্তাব করবেন, যা প্রশাসনকে ঠিক করে দেবে।
আরেক শিক্ষার্থী বলেছেন, আমি কারবিকে ভোট দিতে চেয়েছিলাম। কারণ তিনি উদ্ভাবনী এবং বিপণনের ভাষায় কথা বলেন। কিন্তু আমি ভোট দিয়েছি কাইস সাইদকে। কারণ আমি মনে করি, এ দেশে এখন ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা এবং দুর্নীতির অপসারণ দরকার। আমি বিশ্বাস করি, তিনি দুর্নীতির অবসান ঘটাতে এবং একটি শক্তিশালী বিচারব্যবস্থা দাঁড় করাতে চেষ্টা করবেন।
মোদ্দাকথা হলোÑ তরুণদের একটি আশার জায়গা হিসেবে উপস্থিত হয়েছিলেন কাইস সাইদ। তাদের ভরসা দিয়েছিলেন, স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। আইনের শিক্ষক আইনের রক্ষাটা ভালো করেই করবেনÑ এ প্রত্যাশায় মূলত তরুণরা তাকে জিতিয়ে দিয়েছে।

যে সুবিধা পেয়েছেন কাইস সাইদ
রাজনৈতিক নেতাদের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছেন কাইস সাইদ। অন্যদের থেকে নির্বাচনে একটু অ্যাডভান্টেজ বেশিই পেয়েছেন তিনি। কারণ তিনি পুরোনো কোনো রাজনৈতিক দল থেকে আসেননি। তার চরিত্রে দাগ নেই। পক্ষান্তরে অন্যান্য দল থেকে আসা, যেমন নাবিল কারবি অর্থ কেলেঙ্কারির অভিযোগে অভিযুক্ত।
নাবিল কারবি যখন বন্দি, তখন কাইস সাইদ ঘোষণা দিয়েছেন, তিনি এ সুযোগে প্রচারণা চালিয়ে সুবিধা নেবেন না। এ ঘোষণা তাকে প্রচারণার চেয়েও বড় সুযোগ করে দেয়। সবাই ভাবতে শুরু করে আসলেই তার ভেতর ক্ষমতার লোভ নেই।
তিউনিসিয়ার এনজিও আল-বাওসালার সভাপতি সেলিম খারার বলেছেন, অর্থনৈতিক চাহিদা মেটাতে ব্যর্থ হওয়া একটি রাজনৈতিক ব্যবস্থাকে সুস্থ করে তোলার ঘোষণা তার জনপ্রিয়তা বাড়িয়ে দিয়েছে। কারণ তার চরিত্রে অর্থনৈতিক কোনো কেলেঙ্কারির ঘটনা ছিল না। তিনি বিদেশি কারও কাছ থেকে তহবিল পাননি। তাই কারও সঙ্গে তার লিয়াজোঁ আছেÑ এ সন্দেহ কারও হয়নি।
অর্থনৈতিক বিশ্লেষক সিøম বাউস্কার বলেন, আমি তাকে দ্বিতীয় দফায় ভোট দিয়েছি। কারণ আমার মনে হয়েছে, আমাদের তরুণদের দাবি তিনি স্পর্শ করে যাবেন। এটা নতুন বিপ্লব নয়, বরং নতুন সূচনা আমাদের। আমরা বিকশিত হচ্ছি।


জনসমাবেশের ‘শব্দদূষণ’ নিয়ন্ত্রণ
যানবাহনের হর্নের শব্দ, মানুষের হল্লা, চিৎকার, বিভিন্ন রাজনৈতিক প্রোগ্রামের মাইকের
বিস্তারিত
প্রাত্যহিক জীবনে ধৈর্য ও স্থিরতার
  ধৈর্য ব্যক্তিজীবনকে সম্মানের শীর্ষে পৌঁছে দেয়। ধৈর্য মানব জাতির আত্মোন্নয়নের
বিস্তারিত
মোমিনের অন্যতম গুণ ক্ষমা
  মোমিনের অন্যতম গুণ হলো তার ক্ষমা এবং উদারতা। ক্রোধকে নিয়ন্ত্রণে
বিস্তারিত
আত্মীয় স্বজনের সম্পর্ক
হজরত জুবাইর ইবনে মুতইম (রা.) থেকে বর্ণিত রাসুল (সা.) এরশাদ
বিস্তারিত
ঘুষখোরদের ওপর আল্লাহর লানত
অবৈধ আয়ের উদ্দেশ্যে জনগণের ওপর কখনও সরাসরি কখনও পরোক্ষভাবে জুলুম
বিস্তারিত
বাজারে সরবরাহ অব্যাহত রাখার ফজিলত ফিরোজ
  আল্লাহ আমাদের রিজিক দাতা। তিনি আমাদের দুনিয়ায় পাঠানোর আগে রিজিকের
বিস্তারিত