উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় জোছনা উৎসব

বরগুনার তালতলীতে উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় জোছনা উৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর)। মুজিববর্ষ উপলক্ষে উপজেলার নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের স্নিগ্ধ বেলাভূমি ‘শুভ সন্ধ্যার’ বিস্তীর্ণ বালুচরে পঞ্চমবারের মত এ উৎসবের আয়োজন করা হচ্ছে।

শুভ সন্ধ্যার বেলাভূমিতে একদিকে সাগরের জলরাশি অপরদিকে বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট। একদিকে দীর্ঘ ঝাউ বন আরেকদিকে তিন তিনটি বিশাল নদীর জলমোহনা। সবমিলিয়ে নদ-নদী আর বন-বনানীর এক অপরূপ সমাহার। এই শুভ সন্ধ্যা এখানে ভরা পূর্ণিমায় এই জল-জোছনায় একাকার হবে জোছনাবিলাসী হাজারো মানুষ।

আর এ উৎসবকে ঘিরে ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে বরগুনা জেলা প্রশাসন। পর্যটন শিল্পের অপার সম্ভাবনাময় বরগুনার নয়নাভিরাম সৌন্দর্যকে দেশ বিদেশের পর্যটকদের কাছে তুলে ধরতে এ উৎসবে যোগ করা হয়েছে নানা আয়োজন। উৎসবকে ঘিরে ইতোমধ্যেই শুভ সন্ধ্যা সৈকতে শুরু হয়েছে বাহারি পণ্যের পসরা সাজানোর প্রস্তুতি।

আমতলী উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, এবারের জোছনা উৎসবে বরগুনা থেকে চারটি দোতলা লঞ্চ আমতলী থেকে একটি লঞ্চে শতশত মানুষ যাবে।

আমতলী লঞ্চ ঘাট থেকে পায়রা নদী দিয়ে বরগুনার খাগদন নদী হয়ে বাইনচটকীর স্নিগ্ধ বনভূমির পাশ দিয়ে কুমীরমারা আর গোড়াপদ্মার নয়নাভিরাম বন-বনানীর কোল ঘেঁষে লঞ্চ পোঁছবে শুভ সন্ধ্যার চরে। এরপর সেই স্নিগ্ধ বালুচরে শেষ বিকেলের ঘোরাঘুরির পর রাতভর জোছনার গান, রাখাইন নৃত্য,হয়লা, বাউল সঙ্গীত, মোহনীয় বাঁশির সুর, যাদু প্রদর্শনী, পুঁথিপাঠ  মিনি যাত্রা ও কবিতা আবৃত্তির সঙ্গে সঙ্গে জল-জোছনায় অবগাহন হবে সবার। এবারের জোছনা উৎসবে স্থানীয় এলাকাবাসীসহ রাজধানী ঢাকা ও দেশ বিদেশের প্রায় হাজার  হাজার পর্যটক ভিড় জমাবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত দীর্ঘ সময়, নদ-নদীর মোহনা ও শীতের হিম হাওয়ার কথা ভবনায় রেখে এ উৎসবে ১০ বছরের কম বয়সী শিশুদের নিয়ে আসতে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। তাছাড়া যেহেতু দীর্ঘ সময় বালুচরে ঘোরাঘুরি করতে হবে। সেহেতু বেলাভূমিতে নিজেদের মত করে আড্ডা জমাতে হলে ভ্রমণের আগে প্রয়োজনীয় মাদুর, বিছানার চাদর, শীতের কাপড়, বিশুদ্ধ পানি, গামছা বা তোয়ালে, টিস্যু পেপার এবং লাইট স্ন্যাক্স সঙ্গে নিয়ে আসার জন্য আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছে। যারা ডাক্তারি পরামর্শে নিয়মিত ওষুধ সেবন করেন তাদের অনুরোধ করা হয়েছে দরকারি সব ওষুধ সাথে নিতে।

বিশুদ্ধ খাবার পানির পাশাপাশি নারী ও পুরুষের জন্য ভিন্ন ভিন্ন শৌচাগারের ব্যবস্থা করা হয়েছে আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে। মূল স্টেজের পেছনেই থাকছে নারীদের জন্য নির্ধারিত শৌচাগার। স্টেজ থেকে একটু দক্ষিণে ঝাউবন ঘেঁষে নির্মাণ করা হয়েছে নারী ও শিশুদের জন্য বিশ্রামাগার। থাকছে র‌্যাব ও পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা। চাঁদনী রাতে তিন নদীর জলমোহনায় ছোট ছোট ট্রলার ভাড়া করে দল বেঁধে ঘুরে বেড়ানোর জন্য থাকছে ভাড়ায় চালিত ট্রলারের সুব্যবস্থাও।

তালতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার ভারপ্রাপ্ত মো. সেলিম মিয়া জানান, জোসনা উৎসবের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।

বরগুনা জেলা প্রশাসনের নিবার্হী ম্যাজিষ্ট্রেট ও আমতলী উপজেলা নির্বার্হী অফিসার মনিরা পারভীন জানান, এবারের উৎসবে বেশ কিছু নতুন ইভেন্ট সংযোজন করা হচ্ছে। পাশাপাশি বরগুনার এ উৎসবকে সারাদেশের উৎসব প্রিয় মানুষের কাছে তুলে ধরতে নেয়া হয়েছে বেশ কিছু পদক্ষেপ।


সীমান্ত হত্যা বন্ধে আবারও বিএসএফের
আবারও সীমান্তে বাংলাদেশি হত্যা বন্ধের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী
বিস্তারিত
সিরাজগঞ্জে ৫ সাংবাদিক সন্ত্রাসী হামলার
সিরাজগঞ্জে রাস্তার নির্মাণকাজে অনিয়মের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে ৫ সাংবাদিক
বিস্তারিত
সচিবের বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশের
সরকারের পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার অপুর বিরুদ্ধে মানহানিকর
বিস্তারিত
ওরশে যাওয়ার পথে ট্রলার ডুবে
চট্টগ্রামের বাঁশখালী থেকে কক্সবাজারের কুতুবদিয়া যাওয়ার পথে ২টি ট্রলার ডুবে
বিস্তারিত
টাঙ্গাইলে প্রাইভেটকারে পাওয়া গেল ৯৭০
টাঙ্গাইলের ভুঞাপুরে প্রাইভেটকারসহ বিপুল পরিমাণ ফেন্সিডিল উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার
বিস্তারিত
কিশোরগঞ্জে করোনাভাইরাস বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত
কিশোরগঞ্জের জাফরাবাদে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালের আয়োজনে
বিস্তারিত