টি-টোয়েন্টি

বাংলাদেশকে ৫ উইকেটে হারাল পাকিস্তান

বাংলাদেশকে ৫ উইকেটে হারিয়েছে পাকিস্তান। তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাট করে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৪১ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। জবাবে ১৯.৩ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে জয়ের নাগাল পায় স্বাগতিকরা। এ জয়ের মধ্যদিয়ে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল তারা।

এর আগে ব্যাটিংয়ে নেমে শুভসূচনা করেন বাংলাদেশ দলের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও মোহম্মদ নাঈম। ৮ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়ে ৫০ রান সংগ্রহ করে তারা। দলীয় ৭১ রানে তামিম ইকবাল রান আউট হন। আউট হওয়ার আগে তিনি ৩৪ বলে ৩৯ রান করেন। দলীয় ৯৮ রানে তামিমের মতোই রান আউট হন লিটন কুমার দাস। নিজের বোলিংয়ে ফিল্ডিং করে দারুণ থ্রো করেন শাদাব খান। বল সরাসরি আঘাত করে স্ট্যাম্পে। ১৩ বলে ১২ রান করেন আউট হন লিটন।

লিটনের পর দ্রুত ফিরে গেছেন মোহাম্মদ নাঈম। লেগ স্পিনার শাদাব খানের গুগলি উড়িয়ে মারতে গিয়ে লং অনে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন নাঈম। ৪১ বলে ৪৩ রান করেন তিনি। তার আউটের সময় বাংলাদেশের রান ৩ উইকেটে ৯৮।

এর পর অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে জুটি গড়েন আফিফ হোসেন। দ্রুত রান তোলার তাড়ায় এলোমেলো শট খেলছিলেন আফিফ। শেষমেষ বোল্ড হয়ে ৯ রানে সাজঘরে ফেরেন আফিফ।

সৌম্য সরকার উইকেটে এসেই বাউন্ডারি ভাল কিছু করার ইঙ্গিত দিয়েছিল। কিন্তু তিনি নিজের ইনিংসকে বড় করতে পারেনি। বাঁ-হাতি পেসার শাহীন শাহ আফ্রিদির স্লোয়ার ডেলিভারিতে বোল্ড হন সৌম্য। ৫ বলে ৭ রান করে সৌম্য ফিরেছেন সাজঘরে। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ১৯ রানে অপরাজিত থাকেন।

জয়ের জন্য ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারেই উইকেট হারায় পাকিস্তান। শফিউল ইসলামের প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলটি বাবর আজমের ব্যাট ছুঁয়ে উইকেট কিপার লিটন দাসের গ্লাভসে জমা হয়। ফিল্ডারদের জোড়ালো আবেদনে আঙ্গুল তুলে দেন আম্পায়ার। কিন্তু আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে রিভিউ নিলেও আর ফেরা হয়নি বাবর আজমের।

শফিউল ইসলামের পর বাংলাদেশ দলকে সাফল্য এনে দেন মোস্তাফিজুর রহমান। মুস্তাফিজের স্লোয়ার শর্ট বলে ভুল শট খেলে আউট হন মোহাম্মদ হাফিজ। তার আউটের সময় পাকিস্তানের রান ছিল ২ উইকেটে ৩৫।

তৃতীয় সাফল্য এনে দেন আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। লেগ স্পিনারের সোজা বল ক্রস করতে গিয়ে লং অনে ক্যাচ দেন ৩৬ রান করা আহসান আলী। তার আউটের সময় পাকিস্তানের রান ৩ উইকেটে ৮১। ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় উইকেট পান শফিউল ইসলাম। বাবর আজমের পর তার শিকার ইফতিখার আহমেদ। ডানহাতি ব্যাটসম্যান শফিউলের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন ১৬ রানে। তার আউটের সময় পাকিস্তানের রান ৪ উইকেটে ১১৭।

আল-আমিনের শর্ট বল পুল করতে গিয়ে বোল্ড হন ইমাদ ওয়াসিম। তার আউটের সময় পাকিস্তানের রান ৫ উইকেটে ১৩৩। শোয়েব মালিক ৫৮ রানে অপরাজিত থাকেন।


জিম্বাবুয়েকে ইনিংস ব্যবধানে হারাল বাংলাদেশ
টানা ছয় ম্যাচ হারের পর ক্রিকেটের অভিজাত সংস্করণ টেস্ট ক্রিকেটে
বিস্তারিত
মুশফিকের দুর্দান্ত ক্যাচে ফিরলেন রাজা
ব্যাট হাতে ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে এরই মধ্যে চলতি মিরপুর টেস্ট
বিস্তারিত
নাঈম-তাইজুলের ঘূর্ণি জাদুতে দিন শুরু
জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে চালকের আসনে বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে জিম্বাবুয়েকে
বিস্তারিত
ভারতকে হারাতে বাংলাদেশে প্রয়োজন ১৪৩
চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভারতকে হারাতে হলে
বিস্তারিত
মুশফিকের তৃতীয় ডাবল সেঞ্চুরির পর
ঢাকা টেস্টে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক
বিস্তারিত
জোড়া সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের লিড ২০০
জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে চালকের আসনে বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে জিম্বাবুয়েকে
বিস্তারিত