চীনে যেভাবে উদযাপিত হলো ভালোবাসা দিবস

প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসে চীনে দিন দিন মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। সেইসঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যাও। চীনের বাইরে বিশ্বের অন্তত ২৫টি দেশে এই ভাইরাসে আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে। করোনাভাইরাসের আতঙ্ক যখন গ্রাস করেছে পুরো বিশ্বকে, চীনে রীতিমত যুদ্ধকালীন জরুরি অবস্থার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে, তখন সেখানে কীভাবে পালিত হয়েছে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস?

এ নিয়ে গতকাল শুক্রবার চীনের গ্লোবাল টাইমসে প্রকাশিত একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। সেখানো দেখানো হয়েছে, করোনাভাইরাসের আতঙ্ক উপেক্ষা করে চীনের মানুষ কীভাবে তাদের প্রেম-ভালোবাসা প্রকাশ করেছেন, এমনকি বিয়েও করেছেন।

বিবিসি বাংলার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘লাভ ইন দ্য টাইম অব কলেরা’ হচ্ছে নোবেল পুরস্কার জয়ী কলম্বিয়ান লেখক গ্যাব্রিয়েলা গার্সিয়া মার্কেজের একটি বিখ্যাত প্রেমের উপন্যাস। চীনের গ্লোবাল টাইমসের এই ভিডিওটির শিরোনাম তারই অনুকরণে ‘লাভ ইন দ্য টাইম অব করোনাভাইরাস আউটব্রেক’।

ভিডিওর একটি দৃশ্যে দেখা যায়, এক স্বাস্থ্যকর্মী তার নারী সহকর্মীকে বিয়ের প্রস্তাব দিচ্ছেন পেপার ক্লিপ দিয়ে তৈরি একটি আংটি দিয়ে। প্রেমিকার সামনে হাঁটু গেড়ে বসে তিনি বলেছেন, ‘আজ কোনো ফুল নেই, কোনো আশীর্বাদ নেই, হীরের আংটিও নেই। কিন্তু আজ আমি আছি তোমার সামনে।’

করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে চীনজুড়ে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা প্রায় স্থবির হয়ে পড়েছে। কিন্তু তার মধ্যেও নানা বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে ভিডিও সংযোগের মাধ্যমেই বিয়ে করেছেন এক তরুণ যুগল। বিয়ের কনে তার কর্মস্থলে সহকর্মীদের সঙ্গে। আর বর বহুদূর থেকে যোগ দিয়েছেন ভিডিওকলের মাধ্যমে।

এই ভাইরাল ভিডিওর আরেকটি দৃশ্যে আছে একটি চুম্বনের দৃশ্য। কাঁচের দেয়ালের এক পাশে দাঁড়িয়ে এক প্রেমিকা। আরেক দিকে প্রেমিক। দুজনের কেউ কাউকে ধরতে পারছেন না, ছুঁতে পারছেন না। প্রেমিক বলছেন, ‘আমি তোমাকে মিস করছি। প্রেমিকা বলছেন আমিও। আমি তোমাকে ধরে রাখতে চাই।’ প্রেমিকের উত্তর, এখন তো সেটি সম্ভব নয়। এরপর তারা কাঁচের দেয়ালে মুখ ঠেকিয়ে পরস্পরকে চুম্বন করছেন।

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টে প্রকাশিত হয়েছে, এক চীনা তরুণী ও ভারতীয় তরুণের প্রেম এবং বিয়ের কাহিনি। চীনের হিহাও ওয়াং এবং ভারতের সত্যার্থ মিশ্রের দেখা হয়েছিল পাঁচ বছর আগে কানাডায় পড়াশোনা করার সময়। তারপর প্রেম। তারা ভারতে গিয়ে হিন্দু রীতিমত বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ালো করোনাভাইরাস।

কনে হিহাও ওয়াং এর পরিবারের সদস্যরা ভারতে ঢুকে যেতে পেরেছিলেন চীনাদের বিরুদ্ধে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়ার আগেই। কিন্তু তারপরও করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে সতর্কতার অংশ হিসেবে তাদের নানা রকম স্বাস্থ্য পরীক্ষার মুখোমুখি হতে হয়। ছয় সদস্যের এক মেডিকেল টিম সব কিছু ঠিক আছে বলে ঘোষণার পর তারা শেষ পর্যন্ত বিয়ে করতে পেরেছেন।

সিঙ্গাপুরের সংবাদমাধ্যম দ্য স্ট্রেইট টাইমস জানিয়েছে, ভ্যালেনটাইন্স ডে চীনে যে রকম ব্যাপকভাবে উদযাপিত হয়, এবার তা দেখা যায়নি। করোনাভাইরাসের কারণে বহু অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে। সংক্রমণের আশঙ্কায় অনেক প্রেমিক-প্রেমিকা ঘরে বসেই দিনটি উদযাপন করেছেন।


‘জয় শ্রী রাম ’ স্লোগান
ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ)নিয়ে জ্বলছে দিল্লি। সিএএ’র পক্ষে আন্দোলনকারীরা
বিস্তারিত
করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলছে
চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া
বিস্তারিত
উত্তপ্ত দিল্লিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে
ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (সিএএ) পক্ষে ও বিপক্ষের গোষ্ঠীদের অব্যাহত
বিস্তারিত
মিসরের সাবেক প্রেসিডেন্ট হোসনি মুবারক
মিসরের সাবেক প্রেসিডেন্ট হোসনি মুবারক মারা গেছেন। আরব বসন্তের ধাক্কায়
বিস্তারিত
আজও উত্তপ্ত দিল্লি, বহু জায়গায়
ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ) নিয়ে গতকাল সোমবারের ন্যায় আজও 
বিস্তারিত
চীনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২৬৬৩
প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে চীনে বেড়েই চলেছে মৃতের সংখ্যা। গতকাল সোমবার পর্যন্ত
বিস্তারিত