logo
প্রকাশ: ১০:৫৯:১৮ AM, সোমবার, নভেম্বর ৬, ২০১৭
সকালের স্বাস্থ্যকর নাস্তা

স্বাস্থ্যকর নাস্তা দিয়ে দিন শুরু করাটা অত্যন্ত জরুরি, বিশেষ করে যারা ওজন কমাতে আগ্রহী।
পরিপূর্ণ সকালের নাস্তা খাওয়ার মাধ্যমে ওজন কমানোয় সফল হওয়ায় রয়েছে অনেকগুলো উপায়। তবে নির্ভর করবে নাস্তার মান এবং কোন খাবারগুলো খাওয়া হচ্ছে তার উপর।

সকালের নাস্তায় কয়েকটি করণীয় এবং নিষিদ্ধ বিষয় সম্পর্কে জানিয়েছে স্বাস্থ্যবিষয়ক এক ওয়েবসাইট।

সকালে নাস্তা খেলে দুপুরের খাবারের আগে ‘হালকা কিছু’ খাওয়ার ক্ষুধা থাকে না। ফলে দুপুরের দিকে বেশি খাওয়ার ইচ্ছা কমে যায়।

সকালের নাস্তা খাওয়ার কারণে শরীরের বিপাকীয় প্রক্রিয়ার কোনো উপকার হয়না, এতে ওজন কমানোর কোনো বিশেষ শক্তিও নেই। পাশাপাশি এ সময় গ্রহণ করা ক্যালরি দিনের অন্যান্য সময়ের খাবারের সঙ্গে গ্রহণ করা ক্যালরি মতোই গুরুত্বপূর্ণ।

কার্বোহাইড্রেটযুক্ত খাবার গ্রহণ কমাতে হবে। সিরিয়াল, প্যানকেক, পাউরুটি ইত্যাদিতে প্রচুর কার্বোহাইড্রেট থাকে। বাড়তি শর্করা এবং কার্বোহাইড্রেটযুক্ত খাবার গ্রহণের ফলে খাওয়ার কিছুক্ষণ পরেই আবার ক্ষুধা লেগে যেতে পারে।

নাস্তায় হজমবান্ধব প্রোটিন যেমন: ডিমের সাদা অংশ, চর্বিহীন সসেজ, টক দই ইত্যাদি প্রোটিনের উৎস যোগ করা উচিত। এগুলো দীর্ঘসময় পেট ভরা এবং সন্তুষ্ট অনুভূতি দিতে সাহায্য করে। মাংসপেশী এবং সুঠাম শারীরিক গঠন ও ক্যালরি খরচের জন্য মাংসপেশীর রক্ষণাবেক্ষণেও সাহায্য করবে এই প্রোটিন।

শষ্যজাতীয় খাবার খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। এতে থাকা আঁশ হৃদপিন্ড ভালো রাখে এবং ক্ষুধা কমায়। তবে এধরনের খাবারের ক্যালরির হিসেব রাখাও জরুরি।
 স্বাস্থ্যগুণ থাকলেও এর মধ্যে অনেকগুলোতেই প্রক্রিয়াজাত প্রতিরূপের তুলনায় চর্বি ও ক্যালরির পরিমাণ বেশি থাকে। খাবার আগে প্যাকেটে লেখা পুষ্টি তথ্য পড়তে হবে এবং একবারের বেশি বাটিতে তুলে নেয়া উচিত হবে না।

সকালের নাস্তায় শর্করা ও ক্যালরির পরিমাণ কম এমন খাওয়া উচিত। বাড়তি পুষ্টি পেতে ননীমুক্ত দুধ মেশানো যেতে পারে।

কাজ করা অবস্থা নাস্তা করতে হলে কম ক্যালরিযুক্ত খাবার খাওয়া উচিত। যোগ করতে পারেন তাজা ফলমূল, দই ইত্যাদি। তবে তৈরির সময় উপকরণ পরিমাণ মতো নেয়া জরুরি। স্মুদির জনপ্রিয় উপকরণ যেমন: মধু বা ফলের শরবতে অনেক সময় থাকে বাড়তি শর্করা ও ক্যালরি। যা সহজেই আপনার স্মুদিকে পরিণত করতে পারে উচ্চ ক্যালরিযুক্ত বিধ্বংসী পানীয়তে।

 সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে ফুরফুরে মেজাজ আনতে কফি খাওয়া যেতে পারে। তবে খেতে হবে ব্ল্যাক কফি। কারণ এতে ক্যালরি প্রায় থাকে না বললেই চলে।

সবসময় তাজা খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। এরজন্য স্থানীয় বাজার থেকে খাবার সংগ্রহ করা যেতে পারে। আর কীটনাশক ব্যবহার করা হয়নি এরকম খাবার সংগ্রহ করতে পারলে খুব ভালো হয়।

সম্পাদক ও প্রকাশক : কাজী রফিকুল আলম । সম্পাদক ও প্রকাশক কর্তৃক আলোকিত মিডিয়া লিমিটেডের পক্ষে ১৫১/৭, গ্রীন রোড (৪র্থ-৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২০৫ থেকে প্রকাশিত এবং প্রাইম আর্ট প্রেস ৭০ নয়াপল্টন ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত। বার্তা, সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক বিভাগ : ১৫১/৭, গ্রীন রোড (৪র্থ-৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২০৫। ফোন : ৯১১০৫৭২, ৯১১০৭০১, ৯১১০৮৫৩, ৯১২৩৭০৩, মোবাইল : ০১৭৭৮৯৪৫৯৪৩, ফ্যাক্স : ৯১২১৭৩০, E-mail : [email protected], [email protected], [email protected]