logo
প্রকাশ: ০১:৫৬:৩০ PM, বুধবার, সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৮
ইউএস ওপেন থেকে শারাপোভার বিদায়
অনলাইন ডেস্ক

বেশ ভাল সুযোগ ছিল এবার, কিন্তু কাজে লাগাতে পারলেন না বিশ্বের সাবেক এক নম্বর টেনিস তারকা মারিয়া শারাপোভা। ৫ গ্র্যান্ডস্লাম জয়ী এ তারকা ইউএস ওপেন জিতেছিলেন ২০০৬ সালে এবং সর্বশেষ গ্র্যান্ডস্লামটি এসেছে ২০১৪ সালে ফ্রেঞ্চ ওপেনে। চলমান ইউএস ওপেনে আগেভাগেই বর্তমান বিশ্বসেরা সিমোনা হ্যালেপ ছাড়াও এ্যাঞ্জেলিক কারবার, পেত্রা কেভিতোভা, ক্যারোলিন গার্সিয়া, জেলেনা অস্টাপেঙ্কো, কিকি বার্টেন্স, ভেনাস উইলিয়ামস ও ভিক্টোরিয়া আজারেঙ্কাসহ শীর্ষ কয়েকজন তারকা বিদায় নিয়েছে। কিন্তু চতুর্থ রাউন্ডে এসে থেমে গেলেন ৩১ বছর বয়সী শারাপোভাও। ৩০ নম্বর বাছাই স্পেনের কার্লা সুয়ারেজ নাভারোর কাছে ৬-৪, ৬-৩ সেটে হেরে বিদায় নিয়েছেন তিনি। তবে কি সুন্দরী মাশার ক্যারিয়ারের কঠিনতম সময় চলে এসেছে? অনেকেই এমনটা বলছেন। কারণ ১৫ মাস ডোপিং নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে গত বছর ফেরার পর থেকেই তিনি নিজেকে ফিরে পাওয়ার লড়াই করছেন। অবশ্য শারাপোভা দাবি করলেন ক্যারিয়ারের শুরুর সময়টাই ছিল সবচেয়ে কঠিন।

মাকে ফেলে বাবার সঙ্গে যখন প্রথমবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পা রেখেছিলেন মাত্র ৭০০ মার্কিন ডলার ছিল তাদের কাছে। আরেকটি বড় চ্যালেঞ্জ ছিল তার বাবা ইউরি এবং তিনি নিজে ইংরেজী বলতে পারতেন না। এমনকি মা ইয়েলেনা ২ বছর ভিসা জটিলতায় রাশিয়াতেই পড়ে ছিলেন। সেখান থেকে লড়াই করে এক সময় বিশ্বের সবচেয়ে বেশি আয় করা মহিলা টেনিস খেলোয়াড়ে পরিণত হয়েছিলেন, অর্জন করেছিলেন মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার। তবে ডোপ পাপের কারণে থমকে যেতে হয়েছিল মাশাকে। টানা ১৫ মাসে আয় করা দূরে থাকা, আয়ের পথগুলো একে একে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। তারপর আবার কোর্টে ফিরে নিজেকে একটা পর্যায়ে তুলে এনেছেন। এবার ইউএস ওপেনে তিনি ২২ নম্বর বাছাই হিসেবে খেলছেন। বেশ দুরন্ত গতিতেই ছুটে চলছিলেন, উঠে গিয়েছিলেন চতুর্থ রাউন্ডে। আর ততক্ষণে বর্তমান বিশ্বের সেরা অনেক খেলোয়াড়ই ছিটকে যাওয়ায় মাশার ভক্ত-সমর্থকরা আশায় বুক বাধতে শুরু করেছিলেন যে, এবার হয়তো এ রাশিয়ান তারকা শিরোপার কাছাকাছি যাবেন। তবে শেষ ষোলোর লড়াইয়ে তাকে সে সুযোগটাও দিলেন না স্প্যানিশ তারকা নাভারো। তার কাছে হেরে যাওয়ার পর শারাপোভাকে ইউএস ওপেনের দর্শকই বনে যেতে হলো। বেশ সংগ্রামী সময়ের মধ্যে টিকে থাকার আপ্রাণ চেষ্টায় এ রাশিয়ান সুন্দরী ব্যর্থ। কিন্তু শারাপোভা বললেন, ‘যখন টিনেজার থাকে কেউ সেটাই হয়তো তার জন্য সবচেয়ে চ্যালেঞ্জের সময়। যদি তখন মাত্র কয়েকশত ডলার থাকে এবং ভবিষ্যতের জন্য আদতে কোন ধারণা থাকে না তখন আসলে অনিশ্চিত হয়ে যায় কোন পর্যায়ে থেমে যেতে হবে। তখন শুধু স্বপ্নটাই পুঁজি হিসেবে থাকে। আমার মনে হয় সেই পরিস্থিতিটা অনেক বেশি কঠিন ৩১ বছর বয়সী একজনের চেয়ে। এখন তো যখন যা খুশি করার মতো যথেষ্ট সুযোগ আছে আমার জীবনে।’

গত বছর কোর্টে ফেরার পর প্রথম গ্র্যান্ডস্লাম হিসেবে ইউএস ওপেনেই খেলেছিলেন শারাপোভা এবং চতুর্থ রাউন্ড থেকেই বিদায় নেন। এ বছর জানুয়ারিতে অস্ট্রেলিয়া ওপেনের তৃতীয় রাউন্ড, ফ্রেঞ্চ ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনাল এবং উইম্বলডনের প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় নিয়েছিলেন শারাপোভা। এবারও চতুর্থ রাউন্ডে শেষ হলো তার ইউএস ওপেনের অভিযান। এটি ফ্ল্যাশিং মিডোসে কৃত্রিম আলোর নিচে ২৩ ম্যাচে প্রথম হার মাশার। নাভারো কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি হবেন যুক্তরাষ্ট্রের ১৪ নম্বর বাছাই ম্যাডিসন কিসের। ম্যাডিসন ২৯ নম্বর বাছাই স্লোভাকিয়ার ডোমিনিকা সিবুলকোভাকে ৬-১, ৬-৩ সেটে বিধ্বস্ত করেন। আগেরদিনই নিশ্চিত হয়েছে অন্যতম ফেবারিট সেরেনা উইলিয়ামসের প্রতিপক্ষ ৮ নম্বর বাছাই চেক প্রজাতন্ত্রের ক্যারোলিনা পিসকোভা এবং গত আসরের চ্যাম্পিয়ন মার্কিন কৃষ্ণ তরুণী স্লোয়ানে স্টিফেন্সের প্রতিপক্ষ হিসেবে ১৯ নম্বর বাছাই লাটভিয়ার আনাস্তাসিয়া সেবাস্তোভা। অন্য কোয়ার্টার ফাইনালটি হবে ২০ নম্বর বাছাই জাপানের নাওমি ওসাকা এবং ইউক্রেনের অবাছাই লেসিয়া সুরেঙ্কোর মধ্যে। ওসাকা শেষ ষোলোর লড়াইয়ে ২৬ নম্বর বাছাই বেলারুশের দুরন্ত তারকা এরিনা সাবালেঙ্কাকে থামিয়ে দিয়েছেন। তিনি জয় পান ৬-৩, ২-৬ ও ৬-৪ সেটে। অপর ম্যাচে সুরেঙ্কো চেক অবাছাই মারকেতা ভন্দ্রুসোভাকে হারিয়েছেন ৬-৭ (৩-৭), ৭-৫, ৬-২ সেটে।

সম্পাদক ও প্রকাশক : কাজী রফিকুল আলম । সম্পাদক ও প্রকাশক কর্তৃক আলোকিত মিডিয়া লিমিটেডের পক্ষে ১৫১/৭, গ্রীন রোড (৪র্থ-৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২০৫ থেকে প্রকাশিত এবং প্রাইম আর্ট প্রেস ৭০ নয়াপল্টন ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত। বার্তা, সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক বিভাগ : ১৫১/৭, গ্রীন রোড (৪র্থ-৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২০৫। ফোন : ৯১১০৫৭২, ৯১১০৭০১, ৯১১০৮৫৩, ৯১২৩৭০৩, মোবাইল : ০১৭৭৮৯৪৫৯৪৩, ফ্যাক্স : ৯১২১৭৩০, E-mail : [email protected], [email protected], [email protected]