আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২৭-০৩-২০১৭ তারিখে পত্রিকা

পুরনো দিনে ফেরা সাবেক ফুটবলারদের স্বাধীনতা দিবস

প্রীতি ফুটবল ম্যাচ

স্পোর্টস রিপোর্টার
| খেলা

সালাহউদ্দিন, অমলেশ সেন, চুন্নু, আনোয়ার, টুটুল, আসলাম, জনি, ওয়াসিম, সাব্বিররা খেলবেন; সাবেক তারকাদের খেলা দেখতে কাল বিকালে বাফুফের অ্যাস্ট্রোটার্ফে এসেছিলেন শ’খানেক দর্শক। কিন্তু তারা কেউ মাঠে আসেননি। বাদল রায়, সালাম মুর্শেদীরা মাঠে এলেও স্বাধীনতা দিবসের প্রীতি ম্যাচ খেলেননি; ফুটবল ক্যারিয়ারে সাইড লাইনে না থাকলেও কাল কাটালেন সাইডলাইনে!
প্রীতি ম্যাচের শুরুতে পেনাল্টি স্পটে বল বসিয়ে গোলরক্ষক নিজামকে চ্যালেঞ্জ দিলেন সালাম, ‘ঠেকাতে পারলে ১ হাজার টাকা।’ সবার চোখ সেখানে। সালামের স্পটকিকের বল লাগল সাইডপোস্টে। টাকা চাইতেই সালামও দিতে কার্পণ্য বোধ করলেন না, সৌজন্যতা দেখিয়ে নেননি নিজাম। গোলপোস্টের পেছন থেকে অন্যরা বললেন ‘নিজাম নে।’ চোখে সানগ্লাস নিয়ে সালামের আবার স্পটকিক, দৃষ্টিনন্দন গোল দেখে করতালি। স্মৃতি হাতড়ানো! আশির দশকের জমজমাট ফুটবল ৯০ দশকে চোরাবালিতে ডুবতে শুরু করে।
১৯৯৫ সালে মিয়ানমার চারজাতি টুর্নামেন্ট, ১৯৯৯ কাঠমান্ডু সাফ গেমস ও ২০০৩ সালে ঢাকা সাফ ফুটবলে চ্যাম্পিয়নÑ জানান দিয়েছিল ফুটবল ধস ঠেকানোর সময় ফুরিয়ে যায়নি। সেদিকে নজর ছিল না বাফুফে নীতিনির্ধারকদের। বিংশ শতাব্দীর আগেই দৃশ্যমান ফুটবলের সূর্য ডুবছে। বর্তমান ফুটবলারদের পায়ের কাজ দর্শক টানে না। সমঝদার দর্শক এখনও সাবেকদের কথাই বেশি বলেন। 
স্বাধীনতা দিবসে প্রীতি ম্যাচে সবুজ দল ৫-৩ গোলে হারালো লাল দলকে। সাবেকদের প্রীতি ম্যাচে নষ্টালজিক দর্শক এসেছিলেন মাঠে। সুলতান, হাসানুজ্জামান খান বাবলু, আবু ইউসুফ, ডিফেন্ডার সালাহউদ্দিন, মামুন বাবু, জোসী, কায়সার হামিদ, নুরুল হক মানিক, নজরুল, আমান, শফিকুল ইসলাম মানিক, আতিক, নিজাম, ছোট মুন্না, স্বপন, জাকির, আরমান মিয়া, রকসি, মন্টু, মনি, ফিরোজ মাহমুদ টিটু, বিদ্যুৎ, রঞ্জন, নকিব, মিলন, জালাল, জিলানী, কামাল বাবুরা খেললেন। জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক আমিনুল মাঠে গেলেও নামেননি, তার মতো আবাহনীর সাবেক অধিনায়ক ইকবালও।
তবে মাঠে যারা ছিলেন তাদের নিয়ে সাইড লাইনে দাঁড়ানো দর্শকদের কণ্ঠে উচ্চারিত হলো ফুটবলের সোনালি দিনের গল্প। কিভাবে বল পেয়েই জোসী একা দৌড়ে আবাহনীর জালে গোল করেছিলেন, কিভাবে মোনেম মুন্নার পাশে দাঁড়িয়ে আমান, ছোট মুন্নারা ক্ষীপ্রগতির ফুটবল খেলেছেন; জাকির, স্বপনরা কিভাবে ৯০ দশকে আবাহনীর মাঝমাঠ আগলে রাখলেন। বছরের পর বছর মোহামেডানের রক্ষণ দুর্গ রক্ষা করেছেন কায়সার হামিদ, খেলেছেন মাথায় ব্যান্ডেজ নিয়েও। কতো স্মৃতি! বলতে বলতে প্রীতি ম্যাচ দেখে বিদায় নিলেন হতেগোনা কয়েক ফুটবলের মহাপাগল দর্শক।