আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২৭-০৩-২০১৭ তারিখে পত্রিকা

প্রচারণা তুঙ্গে

মোঃ কামাল উদ্দিন, কুমিল্লা
| শেষ পাতা

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আর মাত্র ২ দিন বাকি। দুই জোটের নেতাকর্মী ও প্রার্থী-সমর্থকদের প্রচার-প্রচারণাও অনেকটা শেষপর্যায়ে। নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডের মধ্যে যেসব এলাকায় আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা ও বিএনপির মনিরুল হক সাক্কু যাননি এখন সেসব এলাকায় তুমুল প্রচারণা চালাচ্ছেন তারা। এছাড়াও ভোটের হিসাব-নিকাশে ব্যস্ত এখন হেভিওয়েট দুই মেয়র প্রার্থী। কেন্দ্রীয় নেতারাও এ বিষয়ে দিচ্ছেন নানা দিকনির্দেশনা। জয়ের বিষয়ে উভয় মেয়র প্রার্থীই আশাবাদ ব্যক্ত করে মাঠে প্রচারণা চালালেও শঙ্কায় রয়েছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। তারা নির্বাচন কমিশনের কাছে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোটগ্রহণের দাবি করছেন। 
জানা যায়, শনিবার বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও সাবেক এমপি মনিরুল হক চৌধুরী বিএনপির মেয়র প্রার্থী সাক্কুর পক্ষে সব ধরনের কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার ঘোষণা দেয়ায় উভয় জোটেই নতুন করে হিসাব নতুন করে করতে হচ্ছে। যদিও দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হওয়ায় এ ঘোষণায় তেমন বাধা হবে না বলে জানিয়েছেন বিএনপি প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু। এদিকে নির্বাচন কমিশন পৃথক বিজ্ঞপ্তি জারি করে বহিরাগতদের নির্বাচনী এলাকা ত্যাগের নির্দেশ, যানবাহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা ও প্রার্থীদের প্রচারণা বন্ধে নির্দেশ দিয়েছে বলে রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে। এদিকে শেষমুহূর্তে এসে প্রচারণায় অনেকটা ব্যস্ত সময় পার করছেন উভয় জোটের নেতাকর্মীসহ প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা। এর মধ্যে দুই প্রার্থীর ভোটের হিসাব-নিকাশ নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। সচেতন রাজনীতিক থেকে আরম্ভ করে সাধারণ ভোটাররাও দুই প্রার্থীর পক্ষে-বিপক্ষে জয়-পরাজয় নিয়ে নানা হিসাব-নিকাশ শুরু করে দিয়েছেন। 
বহিরাগতদের এলাকা ত্যাগের নির্দেশ : ৩০ মার্চ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন এলাকার বাসিন্দা বা ভোটার নন তাদের ২৭ মার্চ রাত ১২টার মধ্যেই নির্বাচনী এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। রোববার বিকালে কুমিল্লার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার রকিব উদ্দিন ম-ল স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। তিনি জানান, রাত ১২টা থেকে বহিরাগতরা এলাকা না ছাড়লে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এদিকে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ৩০ মার্চ ভোটগ্রহণের বিষয়ে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।
যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা : নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সব ধরনের যানবাহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন। রোববার বিকালে কুমিল্লার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং  অফিসার রকিব উদ্দিন ম-ল স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে উল্লেখ করা হয়, ২৯ মার্চ মধ্যরাত ১২টা থেকে ৩০ মার্চ মধ্যরাত ১২টা পর্যন্ত কিছু নৌযান/স্থল যানবাহনÑ যেমন লঞ্চ, স্পিডবোট, বেবিটেক্সি/অটোরিকশা, ট্যাক্সিক্যাব, মাইক্রোবাস, জিপ, পিকআপ, কার, বাস, ট্রাক, টেম্পো চলাচলের ওপর নির্বাচন কমিশন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। এছাড়াও সিটি করপোরেশন নির্বাচনী এলাকায় ২৭ মার্চ মধ্যরাত ১২টা থেকে ৩১ মার্চ সকাল ৬টা পর্যন্ত মোটরসাইকেলের ওপর নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে। 
বিএনপি প্রার্থী সাক্কুর গণসংযোগ : বিএনপি প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু রোববার দিনভর নগরীর বজ্রপুর, ডিগাম্বরীতলা, উত্তরচর্থা, তেলিয়াপুকুরপাড়, রাজগঞ্জসহ বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন। এছাড়া এ প্রার্থীর পক্ষে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, কেন্দ্রীয় নেতা সামছুজ্জামান দুদু, আসাদুজ্জামান রিপন, হাবিবুর রহমান হাবিব, ফজলুল হক মিলন, জয়নাল আবেদীন ফারুক, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীসহ ২০ দলের বেশ কয়েকজন নেতা নগরীর নূরপুর, কাপ্তানবাজার, মোগলটুলী, সংরাইশ, চকবাজার, গর্জনখোলাসহ বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগ চালান। এছাড়া কেন্দ্রীয় ছাত্রদল ফাউন্ডেশনের সভাপতি আকবর চুন্নুর নেতৃত্বে কুমিল্লা মহানগর সভাপতি অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম, সাধারণ সম্পাদক নেছার আহমেদ, জেলা সভাপতি নবীনেওয়াজ, সম্পাদক অ্যাডভোকেট দুলালসহ নেতারা নগরীর নিউমার্কেট, কান্দিরপাড় ও রাজগঞ্জ এলাকায় গণসংযোগ চালান। এদিকে বিকালে নগরীর ঋষিপট্টি এলাকায় প্রার্থীসহ দলের কেন্দ্রীয় নেতারা উঠান বৈঠক করেন। 
আওয়ামী লীগ প্রার্থী সীমার গণসংযোগ : আওয়ামী লীগের প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা রোববার নগরীর কাশারীপট্টি, কাঁটাবিল, বালুধুম, মৌলভীপাড়া, সংরাইশ, টিক্কারচর, নবগ্রামসহ বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন। এ প্রার্থীর পক্ষে দলের কেন্দ্রীয় নেতা এ কে এম এনামুল হক শামীম, সুজিত রায় নন্দী, ইঞ্জিনিয়ার আবদুস সবুর, দেলোয়ার হোসেন চুন্নু, ইসহাক আলী খান পান্না, অজয় কর খোকন, লেয়াকত শিকদার, হায়দার চৌধুরী রোটনসহ দলীয় নেতারা নগরীর সংরাইশ, মৌলভীপাড়া, গর্জনখোলা, সুজানগরসহ কয়েকটি এলাকায় গণসংযোগ করেছেন। বিকালে আমরা কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামবাসীর পক্ষে পৌর মেয়র মিজানুর রহমান, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান এ বি এম বাহার, জেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবুল খায়ের, হারুনুর রশীদ, মীর হোসেন মীরু, নিজাম উদ্দিন চৌধুরী, তাজুল ইসলাম, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতা জামশেদ হোসেন, ছাত্রলীগ নেতা লোকমান হোসেন রুবেলসহ নেতারা নগরীর বিভিন্ন স্থানে প্রার্থীর পক্ষে গণসংযোগ চালান।
অস্ত্র জমা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেই ইসির : কুসিক নির্বাচনে বৈধ অস্ত্র জমা প্রদান এবং প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে মনিটরিংয়ের ব্যবস্থাসহ দুইটি বিষয়ে এ পর্যন্ত কোনো প্রকার নির্দেশনা দেয়নি ইসি। দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনে বৈধ অস্ত্র জমা এবং অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে নির্দেশনা না থাকায় সুষ্ঠু ভোটগ্রহণ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে সচেতন মহলে। প্রতিটি কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে মনিটরিংয়ের ব্যবস্থা করা হলে ভোটগ্রহণ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হবে বলে মনে করছেন প্রার্থী ও সাধারণ ভোটাররা। এদিকে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে মাঠে নেমেছে পুলিশ। নির্বাচনকে সামনে রেখে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারে তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।