আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২৫-১১-২০১৭ তারিখে পত্রিকা

বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি রবি-সোমবার কর্মবিরতি

নিজস্ব প্রতিবেদক
| প্রথম পাতা

সদ্য জাতীয়কৃত ও জাতীয়করণের তালিকাভুক্ত কলেজগুলোর শিক্ষকদের বিসিএস শিক্ষাক্যাডারে অন্তর্ভুক্ত করা হলে লাগাতার কর্মবিরতির হুমকি দিয়েছে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি। একই দাবিতে ২৬ ও ২৭ নভেম্বর সারা দেশে শিক্ষাক্যাডারভুক্তরা পূর্ণ কর্মবিরতি পালন করবে। শুক্রবার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এক মহাসমাবেশে এ কর্মসূচি ঘোষণা দেন সংগঠনটির মহাসচিব শাহেদুল কবির চৌধুরী। সংগঠনটির দাবি, সংশ্লিষ্ট কলেজ শিক্ষকদের শিক্ষাক্যাডারে অন্তর্ভুক্ত না করে দ্রুত স্বতন্ত্র বিধিমালা প্রণয়ন করতে হবে। অন্যথায় অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতির ঘোষণা দেয়া হবে।

‘নো বিসিএস, নো ক্যাডার’ স্লোগান সামনে রেখে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি আয়োজিত মহাসমাবেশে বক্তারা বলেন, ২০১৬ সালের জুলাইয়ে যেসব উপজেলায় সরকারি স্কুল ও কলেজ নেই সেসব উপজেলায় একটি করে স্কুল এবং কলেজ জাতীয়করণের ঘোষণা দেয় সরকার। এর মাধ্যমে ৩২৫টি বেসরকারি স্কুল ও ৩১৫টি বেসরকারি কলেজ জাতীয়করণ হওয়ার কথা রয়েছে। ফলে লক্ষাধিক শিক্ষকের চাকরি জাতীয়করণের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে; কিন্তু কোনোভাবেই চাকরি জাতীয়করণ হওয়া শিক্ষকদের ক্যাডারভুক্ত করা যাবে না। সরকারের পক্ষ থেকে জাতীয়করণের মাধ্যমে আসা শিক্ষকদের ক্যাডারভুক্ত করা বা সাংঘর্ষিক কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হলে লাগাতর কর্মবিরতির ঘোষণা দেয়া হবে।
সমিতির মহাসচিব শাহেদুল কবির চৌধুরী বলেন, আমরা জাতীয়করণকে স্বাগত জানাই; কিন্তু এর মাধ্যমে কোনোভাবেই এসব শিক্ষককে ক্যাডারভুক্ত করা যাবে না। তিনি বলেন, ২৬ ও ২৭ নভেম্বর সারা দেশে শিক্ষাক্যাডারভুক্তরা পূর্ণ কর্মবিরতি পালন করবে। ডিসেম্বরে কোনো কর্মসূচি দেয়া হবে না। তবে আগামী বছরের ৬, ৭ ও ৮ জানুয়ারি একইভাবে সারা দেশে পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালন করা হবে। এ সময়ের মধ্যে যদি তাদের দাবি না মেনে জাতীয়করণের তালিকাভুক্ত কলেজগুলোর শিক্ষকদের বিসিএস শিক্ষাক্যাডারে অন্তর্ভুক্ত করা হলে সঙ্গে সঙ্গে লাগাতর কর্মবিরতি পালনের ঘোষণা আসতে পারে বলে জানান তিনি। সমিতির সভাপতি অধ্যাপক আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকারের সভাপতিত্বে সহ-সভাপতি অলিউল্যাহ মোঃ আজমতগীর, যুগ্ম মহাসচিব মাসুদা বেগম, প্রচার সচিব কামাল উদ্দিন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।