আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২৫-১১-২০১৭ তারিখে পত্রিকা

তাজরীন অগ্নিকা-ের ৫ বছর

শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় স্মরণ দায়ীদের শাস্তির দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক
| প্রথম পাতা

শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় স্মরণ করা হলো ঢাকার আশুলিয়ার নিশ্চিন্তপুরে তাজরীন ফ্যাশনসে অগ্নিকা-ে নিহতদের। ভয়াবহ এ ঘটনার ৫ বছর পূর্ণ হয়েছে শুক্রবার। এ উপলক্ষে রাজধানীর জুরাইন কবরস্থানে ও তাজরীন ফ্যাশনস কারখানার সামনে নিহতদের শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় স্মরণ করে বিভিন্ন গার্মেন্ট শ্রমিক সংগঠন। সেইসঙ্গে ভয়াবহ ওই অগ্নিকা-ে ১১৩ শ্রমিক নিহত হওয়ার ঘটনায় দায়ীদের বিচারের আওতায় আনার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। 
শুক্রবার সকালে পরিত্যক্ত তাজরীন কারখানার প্রধান ফটকের সামনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠন ও ক্ষতিগ্রস্তদের পরিবারের সদস্যরা। শিল্প পুলিশের পক্ষ থেকেও শ্রদ্ধা জানানো হয়। এরপর জুরাইন কবরস্থানেও নিহতদের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় কিছু শ্রমিক সংগঠন এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন। ফুল দিয়ে ভালোবাসা জানান নিহতদের স্বজনরাও। আশুলিয়ায় বেশ কয়েকটি সংগঠনের পক্ষ থেকে মিছিল বের করা হয়। মিছিল শেষে তারা সমবেত হয়ে বক্তব্য দেন। কালো ব্যানার ও ফুলের তোড়ায় কবরস্থানে হাজির হন সংগঠনগুলোর নেতারা। বিক্ষোভ মিছিলে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি শফিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক-কর্মচারী লীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সভাপতি জিয়াউল করিম প্রমুখ। তারা বলেন, তাজরীনে অগ্নিকা-ের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। আহত ব্যক্তিদের পুনর্বাসন ও চিকিৎসা এবং হতাহতদের ছেলেমেয়েদের শিক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে। এ ধরনের দুর্ঘটনা যাতে আর না ঘটে, সে বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ ও শ্রমিকদের নিরাপদ কর্মপরিবেশ গড়ে তোলার দাবি তোলেন শ্রমিক নেতারা।
২০১২ সালের ২৪ নভেম্বর রাতে ভয়াবহ এ অগ্নিকা- ঘটে। এতে ১১৩ জন পোশাক শ্রমিক অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যান; আহত হন শতাধিক। যাদের অনেকেই এখনও স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারেননি। পঙ্গুত্ব নিয়েই অনেকে জীবিকার তাগিদে অন্য কারখানায় কাজ করছেন। ব্যাপক আলোচিত এ ঘটনায় কর্তৃপক্ষের অবহেলার অভিযোগ ওঠে। সে অভিযোগে তাজরীনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দেলোয়ার ও চেয়ারম্যান তার স্ত্রী মাহমুদা আক্তারসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় সিআইডি। এ ঘটনায় এখন মামলার সাক্ষীগ্রহণের কাজ চললেও বিচার কবে শেষ হবে, তা নির্দিষ্ট করে বলতে পারছেন না কেউ। 
আশুলিয়ায় নিহত শ্রমিকদের প্রতি শ্রদ্ধা : সাভার সংবাদদাতা জানান, ভোরের সূর্য উঁকি দিতেই পরিত্যক্ত তাজরীন কারখানার সামনে পুষ্পমাল্য ও নানা ব্যানার নিয়ে আসতে থাকেন বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের নেতাকর্মীরাসহ হতাহতের স্বজনরা। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে এক এক করে শ্রদ্ধা নিবেদন শুরু হয়। শ্রদ্ধা নিবেদনের পর কারখানার সামনেই বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিবাদ সমাবেশে শ্রমিক নেতারা বলেন, তাজরীনের শ্রমিক হত্যার ৫ বছর পার হয়ে গেলেও এর মালিক দেলোয়ার হোসেনসহ অভিযুক্তরা এখনও ঘুরে বেড়াচ্ছেন। প্রকৃত ঘটনাকে ভিন্নদিকে নেয়ার ষড়যন্ত্রও করছে তারা। তাই দ্রুত ক্ষতিগ্রস্তকে যথাযথ ক্ষতিপূরণসহ তাজরীনের মালিক দেলোয়ারের ফাঁসির দাবি জানান তারা। শ্রদ্ধা নিবেদনে অংশ নেয় গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র, বাংলাদেশ গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রিয়াল শ্রমিক ফেডারেশন, বাংলাদেশ পোশাক শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশন, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট, বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক সংহতি, জাগো বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন, বাংলাদেশ বস্ত্র ও পোশাক শিল্প-শ্রমিক লীগসহ বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।  
ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি : রাজশাহী ব্যুরো জানায়, তাজরীন ফ্যাশনসে অগ্নিকা-ে নিহত শ্রমিক ও আহতদের ন্যায্য পাওনা এবং দোষীদের শাস্তির দাবিতে রাজশাহীতে মানববন্ধন হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে কোর্ট চত্ত্বরে অনুষ্ঠিত এ মানববন্ধন থেকে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে দ্রুত ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি জানানো হয়। বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্রাস্টের (ব্লাস্ট) রাজশাহী ইউনিটের আয়োজনে মানববন্ধনে বক্তব্য দেনÑ ব্লাস্টের রাজশাহী বিভাগীয় সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট সামিনা বেগম শিরিন, সিনিয়র আইনজীবী হুমায়ন আহম্মেদ বাচ্চু, শাহিনুল হক মুন, আমজাদ হোসেন, জাতীয় মহিলা আইনজীবীর বিভাগীয় সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট দিল সেতারা চুনি প্রমুখ। 
নারায়ণগঞ্জে সমাবেশ ও কালো পতাকা মিছিল : নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা জানান, শুক্রবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়া বালুরমাঠে অবস্থিত নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি জেলা শাখার উদ্যোগে শোক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। পরে একটি কালো পতাকা মিছিল বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।  সমাবেশে শ্রমিক নেতৃবৃন্দ বলেন, গার্মেন্টস মালিকদের অধিক লালসার কারণে একের পর এক ট্র্যাজিডি সৃষ্টি হচ্ছে। কখনো আগুনে পুড়ছে, কখনো ভবন ধ্বসে শতশত তাজা প্রাণ মৃত্যুর মিছিলে জায়গা করে নিচ্ছে। বক্তারা দায়ীদের শাস্তির দাবি এবং ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার জোর দাবি জানান।  
সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি শ্রমিকনেতা অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান ইসমাইল। প্রধান বক্তা হিসাবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ বিপ্লবী শ্রমিক সংহতির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শ্রমিক নেতা আবু হাসান টিপু। বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি শ্রমিক নেতা মাহমুদ হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন রাশিদা বেগম, শহীদুল আলম নাননু, সাইফুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান আঙ্গুর, নাজমুল হাসান নাননু, আইয়ুব আলী, আল আমিন, হেলিম সরদার, সুমন মিয়া প্রমুখ।