আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

উইঘুর মুসলিম গণআটক নিয়ে জাতিসংঘের উদ্বেগ

আলোকিত ডেস্ক
| আন্তর্জাতিক

চীনে উইঘুর মুসলমানদের গণআটক নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ। ‘সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানের অজুহাতে’ যাদের আটক করা হয়েছে তাদের মুক্তি দেওয়ার জন্য চীন সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বিশ্বসংস্থাটি। সন্ত্রাস দমনের নামে চীনে বিশেষ করে উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকজনকে আটক করে বিশেষ বন্দি শিবিরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। সম্প্রতি জাতিসংঘের হাতে এমন কিছু প্রতিবেদন পৌঁছেছে। এসব প্রতিবেদনে বলা হয়, জিনজিয়াং প্রদেশে উইঘুর মুসলমান সম্প্রদায়ের ১০ লাখের বেশি মানুষকে বন্দি শিবিরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। যদিও বেইজিং এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে। তবে তারা কয়েকজন ‘চরমপন্থি’ ধর্মীয় নেতাকে বিশেষ ওই শিবিরে নিয়ে যাওয়ার কথা স্বীকার করেছে। 

আগস্টের শুরুর দিকে এক পর্যালোচনায় জাতিসংঘের জাতিগত বিভেদ নিরসন কমিটির সদস্যরা জানান, তাদের কাছে বিশ্বাসযোগ্য তথ্য আছে যে, বেইজিং স্বায়ত্তশাসিত উইঘুর অঞ্চলকে এমন কিছুতে রূপান্তর করেছে যা একটি বিশাল বন্দি শিবিরের মতো হয়ে গেছে। বন্দি শিবিরের বিষয়ে হাতে পড়া ১৪ থেকে ১৭টি প্রতিবেদন পর্যবেক্ষণের বিষয়ে বৃহস্পতিবার সর্বশেষ এক বিবৃতিতে জাতিসংঘ চীন সরকারের ‘চরমপন্থি বোঝাতে সন্ত্রাসবাদের বিশাল সংজ্ঞা ও অস্পষ্ট উদাহরণ এবং চীনা আইনে বিচ্ছিন্নতাবাদের অস্পষ্ট ব্যাখ্যার’ সমালোচনা করেছে। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এবং হিউম্যান রাইটস ওয়াচসহ আরও কয়েকটি মানবাধিকার সংগঠনও চীন সরকারের বিরুদ্ধে জাতিসংঘের কাছে গণআটক এবং বন্দি শিবিরে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করে শপথগ্রহণে বাধ্য করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে। অভিযোগপত্রের সঙ্গে তারা তাদের বক্তব্যের স্বপক্ষে কিছু তথ্যপ্রমাণও দিয়েছে। বিবিসি