আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ৩-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

একাদশ নিয়ে অনুশীলন কোচের

স্পোর্টস রিপোর্টার
| খেলা

বাংলাদেশ দল

আশরাফুল রানা, শহিদুল সোহেল, আনিসুর রহমান, জামাল ভুইয়া, তপু বর্মন, নাসির চৌধুরী, বিশ্বনাথ ঘোষ, টুটুল হোসেন, ওয়ালি ফয়সাল, সুশান্ত ত্রিপুরা, মাসুক মিয়া জনি, মামুনুল ইসলাম, ইমন মাহমুদ, ফয়সাল মাহমুদ, সোহেল রানা, বিপলু আহমেদ, আতিকুল ফাহাদ, শাখাওয়াত রনি, মাহবুবুর রহমান সুফিল ও সাদউদ্দিন।

সাফের ঠিক আগে নীলফামারীতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচে জাতীয় দলের একাদশ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ওঠা ঝড় এখনও চলছে; কটাক্ষ করে বলা হচ্ছেÑ আবাহনী একাদশকে লাল-সবুজ জার্সি গায়ে খেলালেই তো হয়, জাতীয় দলকে বানানো হচ্ছে আবাহনীর পুনর্বাসন ক্যাম্প!
কাল রাতে ঘোষিত সাফের ২০ জনের দল নিয়েও কথা উঠেছে; আবাহনীর সাতজন! বিতর্কের কেন্দ্রে ম্যানেজার সত্যজিৎ দাস রুপু, তিনি আবাহনীরও ম্যানেজার। সাফের ট্রফি উন্মোচনের পর গণমাধ্যমের ‘দল কেমন’ প্রসঙ্গে জাকার্তা এশিয়াডে অলিম্পিক দলের নেতৃত্ব দেওয়া জামাল ভুইয়ার বলেন, ‘এটা নিয়ে আমার কথা বলা ঠিক হবে না। কারণ দল করেছে কোচ-ম্যানেজার।’
কাতার, দক্ষিণ কোরিয়া ও জাকার্তায় ফুটবলারদের পরখ করেছেন ব্রিটিশ কোচ জেমি ডে, এশিয়াডের একাদশের সঙ্গে আরও ৯ জনকে পাস মার্ক দিয়েছেন শ্রীলঙ্কা ম্যাচে। এসব দৌঁড়ঝাপের মধ্যে কোচের ভাবনায় সাফ। দক্ষিণ এশিয়ার বিশ্বকাপখ্যাত টুর্নামেন্টের দল তৈরির জন্য তিন মাস ধরে কাজ করছেন ৩৮ বছরোর্ধ্ব কোচ। গতকাল রাতে অভিজ্ঞতার সঙ্গে তারুণ্যের মিশেলে ৩০ থেকে বেছে নিয়েছেন সেরা ২০ জন। পরশু রাতে জানিয়ে দিয়েছেন কারা থাকছেন দক্ষিণ এশিয়ার ফুটবলের শ্রেষ্ঠত্ব ফিরিয়ে আনার মিশনে।
সেরা ২০ ফুটবলারকে নিয়ে কাল সকালে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে প্রথম অনুশীলনও করেছেন কোচ। এখানেই ২০০৩ সালে প্রথমবার সাফ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশ। আগামীকাল এখানেই হারানো ট্রফি উদ্ধার মিশন শুরু করবেন লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। ঘণ্টা দেড়েক অনুশীলনের শেষ দিকে মাঠ ছোট করে দুইভাগে ম্যাচও খেলেন জামাল-সুফিলরা। তাতে সাফের একাদশও স্পষ্ট হয়েছে, গোলপোস্টে আশরাফুল রানা, রক্ষণে বিশ্বনাথ ঘোষ, তপু বর্মন, টুটুল হোসেন বাদশা, ওয়ালি ফয়সাল, মধ্যমাঠে মাসুক মিয়া জনি, বিপলু আহমেদ, আতিকুল ইসলাম ফাহাদ, জামাল ভুইয়া, আক্রমণে মাহবুবুর রহমান সুফিল ও সাদউদ্দিনকে এক দলে রেখে সাফের একাদশ পরখ করার চেষ্টা করেছেন কোচ।
এশিয়াড একাদশের ডিফেন্ডার সুশান্ত ত্রিপুরার স্থান পেয়েছেন ওয়ালী। এশিয়াড থেকে বাদ পড়াদের মধ্যে বড় মুখ জাফর ইকবাল। অনুশীলন শেষে জাফরের বাদ পড়া প্রসঙ্গে কোচের ব্যাখ্যা, ‘জাফরের ভালো বিকল্প আমার হাতে আছে। ১২ সপ্তাহ খেলোয়াড়দের অনুশীলন করিয়ে আমি সেরাদেরই বেছে নিয়েছি।’ বাদ পড়েছেন মতিন, রহমত, আবদুল্লাহ, মানিক, প্রীতম, রবিউল। সিনিয়র ওয়ালি, ফয়সাল মাহমুদ, শাখাওয়াত রনি, ইমন মাহমুদু, সোহেল রানা, নাসির চৌধুরী ও মামুনুলকে সাফের দলে রেখেছেন কোচ। কোরিয়া ও জাকার্তা সফরে ক্যাম্পে না থাকলেও গোলরক্ষক শহিদুল আলম সোহেল আছেন সাফে। তার ভুলেই নীলফামারীতে বাংলাদেশ ১-০ গোলে হেরেছে শ্রীলঙ্কার কাছে। তৃতীয় গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো। ফজলে রাব্বী ও নাবীব নেওয়াজ জীবনকে রাখা হয়েছে স্ট্র্যান্ডবাই।
এমন দল নিয়েও চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন কোচ জেমি ডে, সম্ভবও মনে করেন। তার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিয়েছেন জাকার্তা এশিয়াডে তরুণরা। শুধু কোচ নয়, কাল বাফুফে সভাপতি কাজী সালাহউদ্দিনও বলেন, ‘এশিয়াড খেলা দলের ভেতর এখন যে টগবগে ভাব, তা ধরে রাখতে পারলে চ্যাম্পিয়ন হওয়া অসম্ভব কিছু নয়।’ অধিনায়ক জামাল ভুইয়ার কথা, ‘ঘরের মাঠে খেলা, প্রত্যাশার কিছুটা চাপ থাকবে, সেটা কাটিয়ে নেওয়া যাবে। কিন্তু ভালো খেলার প্রতি আমাদের আত্মবিশ্বাস আছে।’ দেশবাসীকে ভালো কিছু উপহার দিতে চান লাল-সবুজ ফুটবলাররা।