আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ৫-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

‘রোনালদোহীন রিয়াল কিছুটা দুর্বল’

স্পোর্টস ডেস্ক
| খেলা

আন্তর্জাতিক ব্যস্ততা না থাকায় আপাতত ছুটি মেসির। স্পেনে অ্যাডিডাসের একটি ইভেন্টে উপস্থিত হয়ে ভক্তদের জন্য অটোগ্রাফ দিচ্ছেন

নিজেরা না চাইলেও বিশ্বের সংবাদ মাধ্যমের কল্যাণে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী লিওনেল মেসি। একে অপরের প্রশংসা করেছেন অনেকবার। নিজেদের কেউই কখনও প্রতিদ্বন্দ্বী বলে উল্লেখ করেননি। আরও একবার সেই উদাহরণ পাওয়া গেল মেসির উক্তিতে। রোনালদো যে এতদিন রিয়াল মাদ্রিদের তুরুপের তাস ছিলেন, তা উল্লেখ করলেন বার্সেলোনা তারকা। সরাসরি না হলেও রিয়ালের হয়ে রোনালদোর আধিপত্যের কথাও জানালেন তিনি। রোনালদোর অনুপস্থিতিতে রিয়াল মাদ্রিদের শক্তি কমেছে বলে মনে করছেন বার্সেলোনার অধিনায়ক লিওনেল মেসি। একই সঙ্গে পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডকে পেয়ে জুভেন্টানের খুব উপহার হয়েছে সেটাও বলেছেন। মেসির চোখে ইতালিয়ান জায়ান্টরা এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ফেভারিটদের তালিকায় উপরে উঠে এসেছে। 

চলতি বছরের গ্রীষ্মকালীন দল-বদলে ১১ কোটি ২০ লাখ ইউরো ট্রান্সফার ফিতে জুভেন্টাসে যোগ দেন রোনালদো। ২০০৯ সালে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড থেকে সান্তিয়াগো বের্নাব্যুয়ে আসার পর ৯ মৌসুমে চারটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ও দুটি লা লিগাসহ অসংখ্য শিরোপা জেতেন পাঁচবারের বর্ষসেরা এ ফুটবলার। চলতি মৌসুমে লা লিগা শিরোপা পুনরুদ্ধারের অভিযান শুরু করে প্রথম তিন ম্যাচে জয়ের দেখা পেয়েছে হুলেন লোপেতেগির দল। অবশ্য মেসির মতে, রোনালদোকে হারানোয় শক্তি কমেছে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের। কাতালুনিয়া রেডিওকে একটি সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে মেসি বলেন, ‘রিয়াল মাদ্রিদ বিশ্বের অন্যতম সেরা ক্লাব এবং তাদের অসাধারণ একটা দল আছে। কিন্তু এটা স্পষ্ট যে, রোনালদোর অনুপস্থিতি তাদের দুর্বল করেছে কিছুটা হলেও। আগে রিয়ালের বিপক্ষে খেলতে নেমে যে কোনো দলই রোনালদোকে নিয়ে আলাদা পরিকল্পনা করত, আমরাও করতাম। এখন দলগুলোয তা করতে হচ্ছে না। তাই বিশেষ কিছু পরিকল্পনা ছাড়াই এখন রিয়ালের বিপক্ষে নামা যাবে। এতে রোনালদোকে হারানোয় রিয়াল এই মৌসুমে একটু হলেও চাপে থাকবে। জুভেন্টাসকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ে পরিষ্কার ফেভারিটদের তালিকায় তুলে এনেছে রোনালদো। এখন জুভেন্টাসকে নিয়ে ভাববে অন্য দলগুলো।’ রোনালদো রিয়াল ছাড়ায় নিজের বিস্ময় গোপন করেননি আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড, ‘তার চলে যাওয়া আমাকে বিস্মিত করেছে। তার রিয়াল মাদ্রিদ ছাড়া এবং জুভেন্টাসে যোগ দেওয়া আমার চিন্তার বাইরে ছিল। কারণ অনেক দিন ধরে অনেক দলই তাকে চাইছিল। কিন্তু কখনও শুনিনি সে চলে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। হঠাৎ এটা হয়ে যাওয়ায় আমাকেও অবাক করেছে। কিন্তু সে খুব ভালো একটা দলে যোগ দিয়েছে।’
রোনালদোহীন রিয়ালের বিপক্ষে লা লিগার লড়াইয়ে হাঁফ ছেড়ে নামবে মেসির বার্সেলোনা। সাক্ষাৎকারে আকার ইঙ্গিতে তা জানিয়ে দিলেন মেসি। তাই এই মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের দিকে বাড়তি নজর দিচ্ছে বার্সেলোনা। শেষ তিন মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার-ফাইনাল থেকে বিদায় হতাশ করছে বার্সাকে। তাই এবারে বার্সেলোনাকে ইউরোপ সেরার লড়াইয়ে বিশেষ মনোযোগ দিতে হবে বলে মনে করছেন দলটির অধিনায়ক লিওনেল মেসি। ২০১৪-১৫ মৌসুমে শেষবারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা ঘরে তোলে কাতালান পরাশক্তিরা। পরের তিন মৌসুমে যথাক্রমে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ, জুভেন্টাস ও রোমার কাছে হেরে শেষ আট থেকে বিদায় নিতে হয় মেসিদের। সবচেয়ে বাজে অভিজ্ঞতা হয়েছে গেল মৌসুমে। কোয়ার্টার-ফাইনালের প্রথম লেগে ৪-১ গোলে জয়ের পর দ্বিতীয় লেগে ৩-০ গোলে হেরে অ্যাওয়ে গোলের কারণে বাদ পড়ে এরনেস্তো ভালভারদের দল। এবারে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গ্রুপ পর্বে বার্সেলোনার সঙ্গী ইতালিয়ান ক্লাব ইন্টার মিলান, ইংলিশ ক্লাব টটেনহ্যাম ও নেদারল্যান্ডসের পিএসভি। চলতি মৌসুমে প্রতিযোগিতায় ভালো করতে মরিয়া মেসি, ‘এ বছরে আমরা আবারও চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলছি। টানা তিন বছর আমরা কোয়ার্টার-ফাইনাল থেকে ছিটকে গেছি, আর শেষবারেরটা ছিল সবচেয়ে বাজে। কারণ, যেভাবে আমরা খেলেছিলাম এবং অনুকূল একটা ফল নিয়ে আমরা ফিরতি লেগে এসেছিলাম। ক্লাব, দল ও সমর্থকদের জন্য আমাদের চ্যাম্পিয়ন্স লিগে মনোযোগ দিতে হবে। আমাদের দুর্দান্ত একটা দল আছে। এজন্যই আমরা বলি, আমরা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারি।