আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ৫-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

আহ্ছানিয়া মিশন দেশবাসীর সেবায় দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছে : অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
| প্রথম পাতা

রাজধানীর উত্তরায় আহ্ছানিয়া মিশন ক্যান্সার অ্যান্ড জেনারেল হাসপাতালে মঙ্গলবার ‘আবুল মাল আবদুল মুহিত অপারেশন থিয়েটার’ উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ষ আলোকিত বাংলাদেশ

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, আহ্ছানিয়া মিশন দেশের মানুষের সেবায় দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছে। এ মিশনের একটি প্রতিষ্ঠান আহ্ছানিয়া মিশন ক্যান্সার হাসপাতাল। এখানে সাধারণ মানুষকে অল্প খরচে চিকিৎসা দেওয়া হয়। হাসপাতালটির যন্ত্র অনেক লেটেস্ট ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। এখানে এসে আমার অনেক ভালো লেগেছে; আমাকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য আন্তরিকভাবে আমি আহ্ছানিয়া মিশনকে ধন্যবাদ জানাই। মঙ্গলবার ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ক্যান্সার অ্যান্ড জেনারেল হাসপাতালে অত্যাধুনিক যন্ত্র সংবলিত অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত অপারেশন থিয়েটারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘আমার চাকরির বয়স যখন দুই বছর তখন থেকে আমি আহ্ছানিয়া মিশনকে চিনি। প্রতিষ্ঠানটির প্রেসিডেন্ট কাজী রফিকুল আলমের সঙ্গে আমার পরিচয় ৩০ বছর আগে থেকে। তিনি তখন অনেক তরুণ ছিলেন। এ প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে তার বন্ধুবান্ধব যেভাবে তৎপর, তাতে তারা প্রশংসার দাবিদার। তারা আমার কাছে

দীর্ঘদিন সহায়তা চেয়ে আসছেন। আমি তাদের সহায়তার আশ্বাস দিয়েছি।’ মুহিত বলেন, ‘আমার দেশে ক্যান্সার যে কত বড় অসুখ, সেটা বলে বোঝানো যাবে না।’ তিনি বলেন, ‘আমার বন্ধু সাংবাদিক আলতাফ মাহমুদ ক্যান্সারে মারা গেছেন। তাকে অনেক রক্ত দিতে হয়েছে দেখেছি। এছাড়া আমার মাও ক্যান্সারে মারা গেছেন। যার যায় সে বোঝে, এটা কী কষ্টের!’ তিনি বলেন, ‘আহ্ছানিয়া মিশন মানুষের সেবায় দিনকে দিন আরও বড় প্রকল্প নিচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটির সব কাজ মানুষের সেবার জন্য। আমি তাদের আবারও ধন্যবাদ জানাই।’ 

সভাপতির বক্তব্যে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের প্রেসিডেন্ট কাজী রফিকুল আলম বলেন, আহ্ছানিয়া মিশন ক্যান্সার হাসপাতালে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত অপারেশন থিয়েটার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আসার জন্য অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন ও হাসপাতালের সবাইকে ধন্যবাদ জানাই।

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য সাহারা খাতুন বলেন, ‘আমাদের সরকারের অর্থমন্ত্রী হিসেবে অর্থমন্ত্রী যে সহায়তা করেছেন, তাতে আমরা আন্তরিকভাবে তাকে ধন্যবাদ জানাই। ২০১৪ সালের ৯ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেছিলেন আহ্ছানিয়া মিশন হাসপাতাল। এখানে ক্যান্সারের চিকিৎসা হয়; অনেক গরিব মানুষ চিকিৎসা পায়। আমার নির্বাচনি এলাকা হওয়ায় এখানকার অনেক গরিব মানুষ সহযোগিতা পেয়েছে। আমি অনেক সময় তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে আমার এলাকার মানুষের জন্য সহায়তা চেয়েছি। তারা আমাকে যথেষ্ট সহায়তা করেছে।’

শুভেচ্ছা বক্তব্যে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. মাহমুুদুল হাসান বলেন, আহ্ছানিয়া মিশন ক্যান্সার হাসপাতাল ৫০০ শয্যাবিশিষ্ট ও বিশ্বমানের। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এটি উদ্বোধন করেছিলেন। হাসপাতালটি নো লস নো প্রফিট হিসেবে পরিচালিত হচ্ছে। এখানে ৩০ শতাংশ ফ্রি চিকিৎসা দেওয়া হয়।