আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ৮-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

আগে চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন, পরে বিচার

সাক্ষাৎ শেষে বললেন খালেদার আইনজীবীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
| প্রথম পাতা

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বিশেষায়িত কোনো হাসপাতাল কিংবা ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন বিএনপির আইনজীবীরা। তা না হলে তিনি প্যারালাইজড হয়ে যেতে পারেন বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন তারা। শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর নাজিমউদ্দিন রোডে পুরানো কেন্দ্রীয় কারাগারে খালেদা জিয়ার সঙ্গে ঘণ্টাব্যাপী সাক্ষাৎ শেষে সরকারের প্রতি এ আহ্বান জানান তার আইনজীবীরা।

এর আগে বিকাল ৫টায় খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে কারাগারে যান তার চার আইনজীবীরা। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকারের নেতৃত্বে এ প্রতিনিধি দলে ছিলেন আবদুর রেজ্জাক খান, সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এজে মোহাম্মদ আলী ও সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন।

সাক্ষাৎ শেষে কারা ফটকের সামনে অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন বলেন, খালেদা জিয়া অত্যন্ত অসুস্থ। তার বাম চোখ ফুলে গেছে। এছাড়া বাম হাত তিনি নাড়াচাড়া করতে পারছেন না। এ অবস্থায় তাকে দ্রুত ইউনাইটেড হাসপাতাল বা রাজধানীর যে কোনো বিশেষায়িত হাসপাতালে নিয়ে সুচিকিৎসা নিশ্চিতের আহ্বান জানাচ্ছি। তিনি আরও বলেন, খালেদা জিয়ার অবস্থা অতি সঙ্কটাপন্ন। আগে চিকিৎসা তারপর বিচার। কোনো ধরনের রাজনীতি না করে দ্রুত তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন।
আজ সারা দেশে বিএনপির প্রতিবাদ : সরকার খালেদা জিয়াকে বিনা চিকিৎসায় কারাগারে আটকে রেখে হত্যার চেষ্টা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। শুক্রবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ অভিযোগ করেন।
মির্জা ফখরুল বলেন, পরিবারের সদস্যরা বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে কারাগারে গিয়েছিলেন। তারা এসে যে বর্ণনা দিয়েছেন, তাতে আমরা কেবল উদ্বিগ্নই নই, আমরা হতবাক, বিস্মিত। খালেদা জিয়ার অসুস্থার কথা বারবার জানানোর পরও সরকার তার চিকিৎসার ব্যবস্থা নিচ্ছে না অভিযোগ করে ফখরুল বলেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে তাকে মিথ্যা সাজানো মামলায় শাস্তি দিয়ে কারাগারে বেআইনিভাবে আটক রেখে হত্যার হীন চেষ্টা চালাচ্ছে সরকার। বিএনপি মহাসচিব বলেন, তারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে চিঠি দিয়ে তার সঙ্গে দেখা করার অনুমতি চাইবেন, খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করার আহ্বান জানাবেন।
বৃহস্পতিবার পরিবারের সদস্যরা কারাগারে গিয়ে খালেদা জিয়াকে দেখে এসেছেন জানিয়ে মির্জা ফখরুল আরও বলেন, তারা বলেছেন, দেশনেত্রী অত্যন্ত অসুস্থ। তার বাম হাত ও বাম পা প্রায় অবশ হয়ে গেছে। অসহ্য ব্যথা অনুভব করছেন। তিনি জানিয়েছেন যে, তার কোনো চিকিৎসা হচ্ছে না। একই কথা তিনি বলেছেন, ৫ সেপ্টেম্বর কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থানান্তরিত বেআইনি আদালত কক্ষে। তিনি বলে দিয়েছেন যে, শারীরিক অবস্থার কারণে তিনি আদালতে যেতে পারবেন না। আমরা তার স্বাস্থ্য নিয়ে অত্যন্ত উদ্বিগ্ন।
দেশের প্রচলিত আইনে কোনো অসুস্থ নাগরিককে চিকিৎসা না দিয়ে বিচার কাজ চালানো যায় না মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়ার ক্ষেত্রে যা হচ্ছে তা সম্পূর্ণ অমানবিক ও সংবিধান পরিপন্থি। সরকারের উদ্দেশে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমরা দৃঢ়তার সঙ্গে বলতে চাই, অবিলম্বে দেশনেত্রীকে মুক্তি দিয়ে তার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করুন। অন্যথায় জনগণ আপনাদের ক্ষমা করবে না। ইতিহাসের কাঠগড়ায় আপনাদের দাঁড়াতে হবে। সব দায়দায়িত্ব আপনাদের ওপর বর্তাবে। বিশেষ করে সংবিধান লঙ্ঘন ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের দায়ে তাদের অভিযুক্ত হতে হবে।
সরকার খালেদা জিয়াকে পরিত্যক্ত নির্জন কারাগারে স্যাঁতসেঁতে ঘরে আবদ্ধ করে রেখেছে মন্তব্য করে ফখরুল বলেন, একজন সাধারণ বন্দির ক্ষেত্রেও এ ধরনের আচরণ করা হয় না। কারাগারের ভেতরে আদালত বসানোর প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন, সরকার তাকে আবার শাস্তি দেওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে। এটা স্পষ্ট যে, দেশনেত্রীকে রাজনীতি থেকে এবং আসন্ন নির্বাচন থেকে দূরে সরিয়ে রেখে একতরফাভাবে নির্বাচনে নিজেদের নির্বাচিত ঘোষণা করার নীল নকশা নিয়েই এ অপপ্রয়াস চালাচ্ছে সরকার।
সংবাদ সম্মেলনে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আতাউর রহমান ঢালী, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, কেন্দ্রীয় নেতা সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, হাবিবুল ইসলাম হাবিব, মাসুদ অরুণ, মুনির হোসেন উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে অসাংবিধানিকভাবে কারাগারের ভেতরে আদালত স্থানান্তরের প্রতিবাদ ও খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবিতে ঘোষিত ৩ দিনের কর্মসূচি অনুযায়ী আজ ঢাকাসহ সারাদেশের জেলা সদর ও মহানগরীতে প্রতিবাদ সমাবেশ করবে বিএনপি। এছাড়া সোমবার ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এবং সব জেলা ও মহানগর সদরে এক ঘণ্টা মানববন্ধন, ১২ সেপ্টেম্বর ঢাকাসহ সব জেলা এবং মহানগর সদরে প্রতীকী অনশন কর্মসূচি পালিত হবে।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বিএনপি নেতাদের সাক্ষাৎ কাল : দলের চেয়ারপারসন কারাবন্দি খালেদা জিয়ার চিকিৎসার দাবি নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। রোববার বিকাল ৩টার দিকে সচিবালয়ে এ সাক্ষাৎ হওয়ার কথা রয়েছে। এরই মধ্যে সাক্ষাতের অনুমতি পেয়েছেন বিএনপি নেতারা। শুক্রবার বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেসউইং সদস্য শায়রুল কবির খান এ তথ্য জানিয়েছেন।
তিনি বলেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরে সঙ্গে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। এর আগে শুক্রবার সকালে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানান, খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করার জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে চিঠি দেবে বিএনপি। একইসঙ্গে তার চিকিৎসার দাবি জানানোর জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করা হবে।
সূত্র জানায়, খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যগত বিষয় নিয়ে আলোচনার জন্য বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ স্থায়ী কমিটির ১০ নেতা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সাক্ষাৎ চেয়ে বৃহস্পতিবার একটি চিঠি দেন। খালেদা জিয়ার একান্ত সচিব আবদুস সাত্তার স্বাক্ষরিত চিঠিটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পৌঁছে দেওয়া হয়। এতে রোববার দুপুরে সাক্ষাৎ চাওয়া হয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর।