আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ৯-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

বঙ্গবন্ধুর রেখে যাওয়া সংবিধান দেশের উন্নয়নে কাজে আসছে -কাজী রিয়াজুল হক

নিজস্ব প্রতিবেদক
| শেষ পাতা

রাজধানীর কারওয়ানবাজারে শনিবার মানবাধিকার কমিশনের সভাকক্ষে ‘শারীরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধীদের সমাজের মূলস্রোতে সম্পৃক্তকরণ : করপোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক - আলোকিত বাংলাদেশ

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে সংবিধান রেখে গিয়েছিলেন, তা আমাদের উন্নয়নের কাজে লাগছে। তিনি সবসময় চেয়েছেন সমাজের সব মানুষ যেনো সমান সুযোগ পায়। তার সুযোগ্য কন্যা আমাদের প্রধানমন্ত্রী সব শ্রেণির মানুষকে নিয়ে দেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন।’ শনিবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে মানবাধিকার কমিশনের সভাকক্ষে ‘শারীরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধীদের সমাজের মূলস্রোতে সম্পৃক্তকরণ : করপোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

কাজী রিয়াজুল হক বলেন, ‘সরকার সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী ও প্রতিবন্ধীদের সমাজের মূলস্রোতে সম্পৃক্ত করতে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। আমি মনে করি, সরকারের পাশাপাশি করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো এগিয়ে এলে আরও দ্রুত শারিরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধীদের সমাজের মূলস্রোতে সম্পৃক্ত করা সহজ হবে।’ তিনি জানান, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের হিসেব অনুযায়ী যে ১০ হাজার হিজড়া আছে, সেখান থেকে ৫ হাজার হিজড়ার কর্মসংস্থান করতে পারলে এ গোষ্ঠীকে দ্রুত মূলস্রোতে আনা সম্ভব হবে। মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রী এবং তার মেয়ে অটিস্টিকদের জন্য দীর্ঘদিন কাজ করে যাচ্ছেন। আটিস্টিকদের জন্য ২০১৩ সালে আইনও করা হয়েছে। এ আইন তৃতীয় বিশ্বের যে কোনো দেশ থেকে ভালো।’

সভায় প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব মো. নজিবুর রহমান বলেন, ‘অটিস্টিকদের যা করা দরকার, তা করা হচ্ছে; আমরা বসে নেই। অটিস্টিকদের জন্য আলাদা বাসস্থানসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ হাতে নেওয়া হয়েছে। আমরা সমাজের সবাইকে নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই।’ তিনি বলেন, ‘দেশ অনেক উন্নত হয়েছে। এখানে সরকারের সঙ্গে সবাই সহযোগিতা করেছে বলে আরও দ্রুত আমরা উন্নত হচ্ছি।’ সভায় সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব জিল্লার রহমান বলেন, সমাজের উন্নয়নে সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে যারা কাজ করছেন, তাদের সবসময় সহযোগিতা করবে। দেশের উন্নয়নের জন্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে যা করা প্রয়োজন, আমাদের প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তা-ই করছি। সমাজের আবহেলিত মানুষকে নিয়ে এগিয়ে যেতে চায় সরকার।’