আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ৯-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

খালেদার নিরাপত্তা বিবেচনায় কারাগারে আদালত : হানিফ

| খবর

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যালয়ে শুক্রবার ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমি আয়োজিত প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ইমামদের ৫ দিনব্যাপী রিফ্রেসার্স প্রশিক্ষণ কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথিরা

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ এমপি বলেছেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা ও নিরাপত্তা বিবেচনা করে কারাগারের পাশে আদালত স্থাপন করা হয়েছে। এজন্য বিএনপি সংবিধান লঙ্ঘনের অভিযোগ করছে। বিএনপির নিকট প্রশ্ন করতে চাই, জিয়াউর রহমান যখন কারাগারের ভিতরে আদালত বসিয়ে কর্নেল তাহেরকে ফাঁসি দিয়েছে তখন কি সংবিধান লঙ্ঘিত হয়নি? শুক্রবার ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যালয়ে ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমি আয়োজিত প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ইমামদের ৫ দিনব্যাপী রিফ্রেসার্স প্রশিক্ষণ কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেন, এতিমের টাকা আত্মসাৎ করে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া দ-িত হয়ে কারাগারে আছেন। তার মুক্তি একমাত্র আদালতের মাধ্যমে হতে পারে। এছাড়া রাষ্ট্রপতির নিকট ক্ষমা প্রার্থনার মাধ্যমে তিনি মুক্তি পেতে পারেন। আমরা চাই খালেদা জিয়া মুক্তি পাক। সাবেক প্রধানমন্ত্রী এতিমের টাকা আত্মসাৎ করে দ-িত হয়ে কারাগারে আছেনÑ এতে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ হয়। তিনি যদি নিজেকে নির্দোষ ভাবেন তাহলে আইনি লড়াইয়ের মাধ্যমে তা প্রমাণ করে মুক্ত হোক। 
হানিফ বলেন, ইসলামের জন্য সবচেয়ে ক্ষতিকর জামায়াতে ইসলাম। ইসলামকে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহারের মাধ্যমে তারা এটাকে বিকৃত করছে। ধর্মের দোহাই দিয়ে একাত্তরে আমাদের স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছে। গনিমতের মাল বলে নারীদের ইজ্জত লুণ্ঠন করেছে। তিনি আরও বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু এদেশে ইসলাম প্রচার প্রসারে সবচেয়ে বেশি কাজ করেছেন। তিনি ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা ও বিশ্ব ইজতেমার জন্য টঙ্গিতে জায়গা বরাদ্দ করেছেন। হজযাত্রীদের জন্য ‘হিযবুল জাহাজ’ ক্রয় করেছেন। জাতির পিতা মদ, জুয়া ও হাউজি নিষিদ্ধ করেছেন। রেসকোর্স ময়দানে ঘোড়দৌড় নিষিদ্ধ করেছেন। 
আওয়ামী লীগের এ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, মানুষের নৈতিক অধঃপতন সমাজের সবচেয়ে বড় সমস্যা। মানুষের নৈতিকতা, সততা ও মূল্যবোধ কমে যাচ্ছে। অন্যের সম্পত্তি দখল, লুট, খাদ্যে ভেজাল, ঘুষ-দুর্নীতি ইত্যাদি ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে। মানুষের নৈতিকতা, সততা ও মূল্যবোধ ফিরিয়ে আনতে পারে ইমাম ও আলেম সমাজ। তিনি ইমাম ও আলেম সমাজকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। 
সভাপতির বক্তব্যে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক সামীম মোহাম্মদ আফজাল বলেন, ইসলামকে ব্যবহার করে রাষ্ট্রক্ষমতা দখলের যে বিকৃত দর্শন বাংলাদেশে জামায়াত, মিসরে ব্রাদারহুড ও ভারতে জাকির নায়েক চালু করেছে তার সঙ্গে প্রকৃত ইসলামের কোনো সম্পর্ক নেই। তিনি বলেন, দ্বীনের ডাক্তার আলেম-ওলামাদের আরবি ভাষায় কোরআন-হাদিস বুঝতে হবে। দ্বীনি শিক্ষার বিকৃতি রোধে আরবি কারিকুলামে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ বছর সারা দেশে ১ হাজার ১০টি দারুল আরকাম ইবতেদায়ি মাদ্রাসা চালু করেছেন। কোনো সরকার প্রধান কর্তৃক একসঙ্গে এত মাদ্রাসা চালু করার ইতিহাস নেই।
অনুষ্ঠানে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সচিব কাজী নূরুল ইসলাম স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন। অন্যদের মধ্যে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বোর্ড অব গভর্নর সিরাজ উদ্দিন আহমেদ, ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমির পরিচালক জালাল আহমেদ, ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রেস ব্যবস্থাপক বোরহান উদ্দিন মো. আবু আহসান ও পরিকল্পনা বিভাগের পরিচালক মুহাম্মদ রফিক উল ইসলামসহ ফাউন্ডেশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং চার শতাধিক ইমাম উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি