আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১০-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

‘কষ্টটা ক্ষণস্থায়ী, গর্ব চিরদিনের’

শফিক কলিম
| খেলা

থিম্পুতে ভুটান বিপর্যয়ের দুই বছর পর ঘরের মাঠে নেপাল বিপর্যয়। গোলরক্ষকের ছোট্ট ভুলে ফের হতাশা জাতীয় দল নিয়ে; স্তব্ধ দেশের ফুটবল।
প্রায় মাঝমাঠ থেকে বিমলের ফ্রিকিকের বল গোলরক্ষক শহীদুল আলম সোহেল গ্রিপ করতে গেলেও হাত ফসকে জালে জড়ায়। অবিশ্বাস্য গোল! মানতে পারছেন না বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনসহ বিভিন্ন অতিথির সঙ্গে মাঠে বসে খেলা দেখা বাফুফে সভাপতি কাজী সালাহউদ্দিন। হতাশার সুর, ‘এমন গোল মেনে নেওয়া যায় না, মানার মতো নয়। কীভাবে সম্ভব?’ আর জাতীয় দলের জার্সি গায়ে তৃতীয়বার বাজে গোল হজম করা গোলরক্ষক সোহেলের আত্মপক্ষ সমর্থন, ‘ফ্লাডলাইটের আলোর ঝলকানিতে বল দেখতে পাইনি, বুঝে ওঠার আগেই দেখি বল জালে; হাত ফসকে বেরিয়ে গেছে। গত দুটি ম্যাচ ভালো খেলেছিলাম, তাই সবাই আশা নিয়ে এসেছিলেন আমরা সেমিফাইনালে যাব, আমাদের চ্যাম্পিয়ন দেখতে চেয়েছেন। আমার জন্য হলো না, দুঃখিত, ক্ষমা চাইছি।’
সোহেলের ভুলে ৩৩ মিনিটে বাংলাদেশ গোল খেলেও বাকি ৬৭ মিনিটে কেন স্ট্রাইকাররা গোল করতে পারলেন না? এ প্রশ্নও উঠে গেছে। ফরোয়ার্ডরা বারবার নেপালি রক্ষণে গিয়ে এলোমেলো হয়েছে। বরং শেষ দিকে গোল শোধে মরিয়া খেলতে গিয়ে হজম করে আরেক গোল। ২-০ গোলে হেরে টানা চতুর্থ সাফ থেকে বিদায় নেয় গ্রুপ পর্বে।
কষ্ট ভুলতে পারছেন না অধিনায়ক জামাল ভুইয়া; ম্যাচশেষে মাথা নিচু করে চলে যান ড্রেসিংরুমে। টানা ২ ম্যাচ জিতে সেমিফাইনালের হাতছানি ছিল স্বাগতিকদের, নেপালের সঙ্গে ড্র করলে শেষ চারে; এমন অবস্থায় টুর্নামেন্ট থেকে বাদ পড়ার শোকে স্তব্ধপ্রায় জামাল, রেশ কাটতে লাগে ১২ ঘণ্টারও বেশি সময়। শোক কাটিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক পেজে কাল জামাল ধন্যবাদ জানান সমর্থন দেওয়া ভক্ত-সমর্থকদের। লিখেন, ‘এ হারে আমরা সবাই অনেক বেশি হতাশ। সবার প্রত্যাশা ছিল সেমিফাইনাল খেলব। কিন্তু সৃষ্টিকর্তা সবকিছুর জন্য ভিন্ন ভিন্ন পরিকল্পনা করে রেখেছেন। আমি আরও কঠোর পরিশ্রম করব ও দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তন করব। আমাদের সবসময় সমর্থন দিয়ে যাওয়া শুভাকাক্সক্ষীদের ধন্যবাদ জানাতে চাই। কষ্টটা ক্ষণস্থায়ী, গর্বটা চিরদিনের।’ কষ্ট লুকাতে ভোর হতেই হোটেল ছেড়ে গেছেন ফুটবলাররা, দুপুর পর্যন্ত যারা ছিলেন মুখে কুলুপ আঁটা।
ফুটবলে ভাগ্যও নিয়ামক। ৬ পয়েন্ট নিয়েও শেষ চারে যেতে না পারার কষ্টে পুড়ছেন স্বাগতিক ফুটবলাররা, আর ১ পয়েন্ট পেয়েও শেষ চার স্বপ্ন ঝুলছিল শ্রীলংকার! কাল রাতে ভারত ৩-০ গোলে মালদ্বীপকে হারালে শিকে ছিঁড়বে লঙ্কানদের, ২-০ হলে টসে। ১-০ হলে ১ পয়েন্ট নিয়ে শেষ চারে মালদ্বীপ! ফুটবলে এমন হয়, হচ্ছেও।
ব্রিটিশ কোচ জেমি ডে বাস্তবতা মেনে লক্ষ্য বলেছিলেনÑ গ্রুপ পর্ব টপকানো। প্রথম ২ ম্যাচ জেতার পর এভাবে গোলগড়ে বিদায় নিতে হবে তা মানতে পারছেন না কেউই।
আসর শুরুর আগে আশঙ্কা ছিল আক্রমণভাগ নিয়ে; গোল করবে কে? শেষ পর্যন্ত গোল করতে না পারার ব্যর্থতাই ডুবিয়েছে দেশকে। ৬৭ মিনিট সময় পেয়েও গোল করে ম্যাচে ফিরতে পারেনি বাংলাদেশ। হাস্যকর গোল খাওয়া সোহেলকে দোষ দেয়া কতটা যৌক্তিক? সোহেল গোল খেয়েছেন, বাকিদের ঘোল খাইয়েছেন নেপালিরা।
১ থেকে ১২ অক্টোবর বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ, নতুন স্বপ্ন! ঘরের মাঠে আবার ভালো খেলার সুযোগ; কিন্তু সেখানে যে আরও শক্ত পরীক্ষা; ‘বি’ গ্রুপে প্রতিপক্ষ লাওস ও ফিলিপাইন। ১৯৯২ এশিয়ান কাপ প্রাক-বাছাইপর্বে নকিবের হ্যাটট্রিকে ৮-০ গোলে হারলেও ফিলিপাইন এখন ১১৫তম, লাওস ১৭৮; বাংলাদেশ ১৯৪!
কোচ জেমি ডে ম্যাচ পরবর্তী গণমাধ্যমপর্বে হারায় হতাশা প্রকাশ করলেও দলের উন্নতির কথাটা জোর দিয়েই বলেছেন, ২০০৫ করাচি সাফের পর টানা ২ ম্যাচ জিতল বাংলাদেশ, এমন কী চলতি সাফের আগের সর্বশেষ তিনটিতে ৯ ম্যাচের মধ্যে জিতেছে মাত্র একটিতে। সেই দল টানা ২ ম্যাচ জিতে বিদায় নিল ৬ পয়েন্ট পেয়ে। দলের উন্নতির এ দিকটাই সামনে আনতে চাইছেন কোচ।
অ্যান্ড্র অর্ড হঠাৎ বিদায় নিলে দায়িত্ব দেওয়া হয় ব্রিটিশ কোচ জেমি ডেকে; জাকার্তা এশিয়ান গেমস, সাফ ও বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের জন্য চার মাস ধরে অলিম্পিক ও জাতীয় দলকে প্রস্তুত করেছেন তিনি; কঠোর পরিশ্রমের পর ভালো পর্যায়েও এনেছেন জেমি; এশিয়াড, প্রীতি ম্যাচ ও সাফ মিলিয়ে ২৫ দিনে ৮ ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। জয় ৩টি, একটা ২০২২ বিশ্বকাপের স্বাগতিক কাতারের বিপক্ষে, ড্র ১টি, হার ৪টি। জয়ের হার ৩৭.৫ শতাংশ। ছয়টি বাংলাদেশ খেলেছে র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা দলের বিরুদ্ধে। পাকিস্তান র‌্যাঙ্কিংয়ে পিছিয়ে থাকলেও ৯ খেলোয়াড় বিভিন্ন দেশে ঘরোয়া ফুটবল খেলে, এদের ৫ ইউরোপে।
কোচ সকাল ৯টার ফ্লাইটে ছুটি কাটাতে ইংল্যান্ড গেছেন, ফিরবেন ২৩ সেপ্টেম্বর। এরপর শুরু বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের প্রস্তুতি। তবে বিদেশি কোচ আসার আগেই ক্যাম্প শুরু করতে চায় বাফুফে; সাফে অন্তত সেমিফাইনাল খেললেও তো ক্যাম্প চলমান থাকত; নিজেদের ব্যর্থতায় এখন পরিবারের সঙ্গে ছুটি কাটানোর সুযোগ পাচ্ছেন!