আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১০-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রাচীর পদ্মায়

শরীয়তপুর প্রতিনিধি
| দেশ

পদ্মার কড়াল গ্রাসে রোববার সকাল ৭টার দিকে নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সীমানা প্রাচীর বিলীন হয়ে যায়। সীমানা প্রাচীরের পর এবার ধীরে ধীরে মূল ভবনের দিকে এগোচ্ছে পদ্মা। প্রতি মুহূর্তে একটু একটু করে গ্রাস করছে। ফলে নড়িয়া উপজেলার সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যসেবার ৫০ শয্যার হাসপাতালটি রোগীদের কাছে এখন শুধুই ভীতি। পদ্মার আগ্রাসন বিগত প্রায় তিন মাসে নড়িয়া উপজেলার সাড়ে ৪ সহস্রাধিক পরিবারের বিলাসবহুল পাকা বাড়িসহ আবাসস্থল, দেড় শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, দুটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মসজিদসহ কাঁচা-পাকা বহু সড়ক বিলীন হয়েছে। ১৯৬৮ সালে নড়িয়া উপজেলা সদরের চার কিলোমিটার দূরে মুলফৎগঞ্জে ৩০ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স  শুরু হয়ে ২০১৪ সালে ৫০ শয্যার হাসপাতালে উন্নীত হয়। হাসপাতাল ক্যাম্পাসে ১২টি পাকা ভবন আছে। মুলফৎগঞ্জ গ্রামের আবুল কালাম দেওয়ান বলেন, যেভাবে পদ্মা হাসপাতালের সীমান প্রাচীর গ্রাস করে ভেতরের দিকে ঢুকছে তাতে মনে হয় কয়েক দিনের মধ্যেই মূল ভবন পদ্মায় বিলীন হয়ে যাবে। নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মুনির আহমেদ খান বলেন, প্রশাসনিকভাবে হাসপাতালটি ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করায় এর আগেই হাসপাতালের মূল্যবান যন্ত্রপাতি ও আসবাবপত্র সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অনুযায়ী অন্যত্র স্থানান্তর করা হয়েছে।