আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১০-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

জোটের পরিসর বাড়াতে মতৈক্য ২০ দলে

নিজস্ব প্রতিবেদক
| প্রথম পাতা

নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনের দাবি আদায়ের আন্দোলন জোরদারে জোটের পরিসর বাড়াতে একমত হয়েছেন বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলের শীর্ষ নেতারা। রোববার রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে জোটের শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। জোটের পরিসর আরও বাড়াতে বিএনপি আগ্রহী হলেও তাদের জোট শরিক জামায়াতে ইসলামীকে নিয়ে আপত্তি রয়েছে অনেকের।

আওয়ামী লীগের শাসনামলে দেশ গণতন্ত্রহীন হয়ে পড়েছে দাবি করে এ থেকে উত্তরণে ‘জাতীয় ঐক্য’ গড়ে আন্দোলনের কথা বলে আসছে বিএনপি। খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার আগে যে নির্দেশনা দিয়ে গেছেন, তা অনুসরণ করে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা চলার কথা বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানানোর এক দিন বাদেই ২০ দলীয় জোট বৈঠকে বসল। বৈঠক শেষে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও জোটের প্রধান সমন্বয়ক নজরুল ইসলাম খান জোটের পরিসর বাড়াতে জোট নেতাদের ঐকমত্যের কথা জানান। এর আগে, সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় বৈঠক শুরু হয়। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এতে সভাপতিত্ব করেন। সূত্র জানায়, বৈঠকে নজরুল ইসলাম খান জোট নেতাদের বলেন, 

কারাগারে যাওয়ার আগে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জাতীয় ঐক্য গঠনের যে উদ্যোগ নিয়েছিলেন, তারই অংশ হিসেবে কাজ চলছে। বিভিন্ন দলের নেতাদের সঙ্গে ঐক্যের প্রক্রিয়া নিয়ে কথাবার্তা হচ্ছে। এতে অনেকখানি অগ্রগতি হয়েছে। অতি অল্পসময়ে জাতীয় ঐক্যের চূড়ান্ত রূপ দেশবাসী দেখতে পাবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। বৈঠকে জোটের শরিক জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য মাওলানা আবদুল হালিম, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহম্মদ ইবরাহিম বীরপ্রতীক, জাতীয় পার্টির (বিজেপি) চেয়ারম্যান আন্দালিভ রহমান পার্থ, এলডিপি মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমদ, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, এনডিপি’র চেয়ারম্যান খোন্দকার গোলাম মোর্তাজা, বাংলাদেশ ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া, মুসলিম লীগের সভাপতি এএইচএম কামরুজ্জামান, জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার, লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব আহমদ আবদুল কাদের, জাগপার সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান, মহাসচিব খন্দকার লুৎফর রহমান, জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের মহাসচিব নূর হোসাইন কাসেমী, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মহিউদ্দিন ইকরাম, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাঈদ আহমদ, পিপলস লীগের মহাসচিব সৈয়দ মাহবুব হোসেন, ডেমোক্র্যাটিক লীগের মহাসচিব সাইফুদ্দিন মনি উপস্থিত ছিলেন।