আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১১-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

‘পুঁজিবাজারের সবকিছু বিএসইসির নিয়ন্ত্রণে থাকে না’

নিজস্ব প্রতিবেদক
| অর্থ-বাণিজ্য

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) প্রতিষ্ঠা সত্ত্বেও ১৯৯৬ এবং ২০১০ সালের পুঁজিবাজারে ধস হয়েছে। এতে বিএসইসির ভূমিকা কী ছিল এবং দায়িত্ব পালনে কতটুকু ব্যর্থ বা স্বার্থক হয়েছে সাংবাদিকদের এমন এক প্রশ্নের জবাবে কমিশনের নির্বাহী পরিচালক ফরহাদ আহমেদ বলেছেন, পুঁজিবাজারের সবকিছু নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি নিয়ন্ত্রণে থাকে না। সোমবার রাজধানীর আগারগাঁও সিকিউরিটিজ কমিশন ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন। বিএসইসির রজতজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে কমিশনের নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান এবং আনোয়ারুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।
ফরহাদ আহমেদ বলেন, সাফল্য বা ব্যর্থতা নিয়ে খুব একটা কিছু বলার নেই। করপোরেট সেক্টর নতুন, নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসেবে নতুন। এর সঙ্গে আমাদের হাতে তখন ক্ষমতা ছিল না, তখন সার্ভিল্যান্স সফটওয়্যার ছিল না বলে যোগ করেন নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান। তিনি বলেন, পরবর্তী সময়ে বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয়েছে। তাছাড়া ডেরিভেটিভ রুলস, ইসলামি বন্ড এবং বন্ড মার্কেট নিয়ে কাজ করছে বিএসইসি। ২৫ বছরের মাইলফলক সম্পর্কে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে ফরহাদ আহমেদ বলেন, বাজারে অটোমেশন সিস্টেম চালু, সেন্টাল ডিপোজেটরি প্রতিষ্ঠা, করপোরেট গভর্নেন্স প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। যখন সেন্ট্রাল ডিপোজেটরি প্রতিষ্ঠা করা হয় তখন ১ কোটি টাকা দিয়ে পরিচালক হওয়ার লোক খুঁজে পেতে অনেক সময় লেগেছে। 
জনবল সম্পর্কে তিনি বলেন, সীমিত জনবল নিয়ে কাজ চলছে। জনবল কাঠামো বাড়ানোর বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। জনবল বাড়ানোর বিষয়ে সরকারের অনুমোদন পেলে বিএসইসির বিভিন্ন কাজ আরও ত্বরান্বিত হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। উল্লেখ্য, ১৯৯৩ সালের ৮ জুন সিকিউরিটিজ ও  এক্সচেঞ্জ কমিশন আইন ১৯৯৩ এর মধ্য দিয়ে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) যাত্রা শুরু করে। পরবর্তী সময়ে ২০১২ সালে এর নাম পরিবর্তন করে করা হয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। প্রতিষ্ঠার ২৫ বছর উপলক্ষে রজতজয়ন্তী উদযাপন করবে বিএসইসি। ১২ সেপ্টেম্বর এর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।