আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১১-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

শিশু একাডেমি আইনের খসড়া চূড়ান্ত অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক
| প্রথম পাতা

বাংলাদেশ শিশু একাডেমি আইন-২০১৮ এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ। সোমবার প্রধানমন্ত্রীর তেজগাঁও কার্যালয়ে তার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার সম্মেলনকক্ষে প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম এ কথা জানান।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এ আইনে ১৯ সদস্যের বোর্ড গঠনের কথা বলা হয়েছে। বাংলাদেশ শিশু একাডেমির নতুন আইনানুসারে পরিচালকের জায়গায় মহাপরিচালক সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবেন। বোর্ডের 

এক-তৃতীয়াংশ সদস্যের উপস্থিতিতে কোরাম হবে এবং বোর্ড বছরে ছয়টি সভা করবে। ব্যবস্থাপনা বোর্ডের চেয়ারম্যানকে সরকার নিযুক্ত করবে। চেয়ারম্যানের চাকরি সরকারের বিধির মাধ্যমে নির্দেশিত হবে। এর আগে শিশু একাডেমি ১৯৭৬ সালের একটি অধ্যাদেশ অনুসারে চলে আসছিল।
৯ জুলাই বাংলাদেশ শিশু একাডেমি আইন-২০১৮ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়। তখন মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, উচ্চ আদালত এবং মন্ত্রিসভার নির্দেশ রয়েছে অধ্যাদেশগুলোকে আইনে পরিণত এবং বাংলায় রূপান্তর করতে হবে। তাই এ আইন অনুমোদন করা হয়েছে। এ আইনানুযায়ী বাংলাদেশ শিশু একাডেমির প্রধান দপ্তর রাজধানী ঢাকায় স্থাপিত হবে। তবে সরকারের বিশেষ অনুমতি নিয়ে দেশের অন্য বিভাগ এবং জেলাগুলোয়ও শিশু একাডেমির অফিস স্থাপন করা যাবে। বাংলাদেশ শিশু একাডেমির পরিচালনা ও প্রশাসন সরকার গঠিত বোর্ডের ওপর ন্যস্ত থাকবে। ব্যবস্থাপনা বোর্ড নামে পরিচিত এ বোর্ডে একজন চেয়ারম্যানসহ মোট ১৭ জন সদস্য থাকবেন। বোর্ডে নতুন করে আইসিটি ডিপার্টমেন্টের একজন প্রতিনিধি থাকবেন।
তিনি আরও জানান, বাংলাদেশ শিশু একাডেমির নতুন আইনের ৮ ধারা মোতাবেক ফেলোশিপ প্রদান করার বিধান রাখা হয়েছে। এ ফেলোশিপ দেওয়ার জন্য একটি বিশেষ কমিটি গঠন করা হবে। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রী, মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ সাত সদস্যের এ কমিটি গঠন করা হবে। এ কমিটির কার্যক্রম বিধির মাধ্যমে পরিচালিত হবে।
বৈঠকে বাংলাদেশ প্রকৌশল গবেষণা কাউন্সিল আইন-২০১৮ এর খসড়া নীতিগত অনুমোদন না দিয়ে তা পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য চারজন প্রকৌশলী মন্ত্রীকে নিয়ে একটি কমিটি গঠন করেছে মন্ত্রিসভা। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, প্রকৌশল গবেষণার জন্য যেহেতু প্রতিষ্ঠানটি হবে, সেজন্য আইনের খসড়া পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য চারজন প্রকৌশলী মন্ত্রীর সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। তিনি বলেন, স্থানীয় সরকারমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেনকে কমিটির প্রধান করা হয়েছে। এছাড়া কমিটির বাকি সদস্যরা হলেনÑ গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী মোশাররফ হোসেন, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান। শফিউল আলম বলেন, যেহেতু চারজনই প্রকৌশলী, তাই তারা নিজেদের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে এ সংস্থার কীভাবে উন্নয়ন করা যায়, সে বিষয়গুলো দেখবেন। পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে একে চূড়ান্ত করবেন। ক’দিনের মধ্যে মন্ত্রীরা এ আইনের খসড়া পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবেন, তা বেঁধে দেওয়া হয়নি বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।